West Bengal

অর্থনীতিকে চাঙ্গা করতে, গ্রামবাংলায় নতুন প্রকল্প ঘোষণা মুখ্যমন্ত্রীর

লকডাউনের মাঝে যাতে কেউ না খেয়ে থাকে, আর্থিক সমস্যা যাতে না হয় কারোর, সেই দিকেই নজর দিতে চাইছে রাজ্য সরকার

@ দেবশ্রী : গত মঙ্গলবার জাতির উদ্দেশ্যে ভাষণে আত্মনির্ভরতার উপর জোর দিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। আর এবার সেই ঘোষণার ২৪ ঘন্টা কাটার পূর্বেই, গ্রামীণ অর্থনীতির জাগরণের কথা বললেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কর্মসংস্থানের উপরে জোর দিয়ে নতুন প্রকল্পও ঘোষণা করলেন তিনি। তবে কর্মসংস্থানের ক্ষেত্রে কোনও রং বিচার করা চলবে না বলে জেলাশাসকদের নির্দেশ দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী।

জেলাশাসক, জেলা পরিষদের সভাধিপতিদের সঙ্গে গতকাল বুধবার বৈঠকে বসেছিল পঞ্চায়েত দফতর। সেই বৈঠকেই গ্রামীণ অর্থনীতি চাঙ্গা করার রূপরেখা স্থির করে দেন মুখ্যমন্ত্রী। তিনি বলেন, ”আমরা চাইছি, আরও দোকানপাট খুলুক। এখন তো মত্‍স্য, সেচ দফতরের কাজ করতে অসুবিধা নেই। তার জন্য আরও বেশি লোককে কাজে লাগাতে হবে। এছাড়া ভিন্ রাজ্য থেকে যাঁরা এসে এ রাজ্যে আটকে পড়েছেন, প্রয়োজনে তাঁদেরও একশো দিনের কাজ দিতে হবে।”

এ দিন বাঁকুড়া, পুরুলিয়া, বীরভূম, ঝাড়গ্রাম, পশ্চিম বর্ধমান এবং পশ্চিম মেদিনীপুরে ‘মাটির সৃষ্টি’ প্রকল্পের আনুষ্ঠানিক সূচনা হয়। পশ্চিমাঞ্চলের ৬টি জেলার ৬০ হাজার একর জমি এই প্রকল্পের আওতায় আসবে। তাতে আড়াই লক্ষ মানুষ উপকৃত হবেন বলে দাবি করেছেন মুখ্যমন্ত্রী। ইতিমধ্যে সাড়ে ছ’হাজার একর পতিত জমির জন্য প্রায় সাড়ে পাঁচশো মাইক্রো প্ল্যান তৈরি হয়েছে। একশো দিনের কাজের মাধ্যমে এগুলি রূপায়ণ হবে। তবে ঠিকাদার নিয়োগ হবে না, জানিয়েছে সরকার। ঘটনাচক্রে, কাজে লোক নিয়োগ নিয়ে কোনো সমস্যা যাতে না-হয়, তা দেখার জন্য এ দিন জেলাশাসকদের নির্দেশ দেন মুখ্যমন্ত্রী। জয় বাংলা-সহ সামাজিক পেনশন নিয়ে কোনরকম অভিযোগ বরদাস্ত করা হবে না বলেও হুঁশিয়ারি দিয়েছেন তিনি। মুখ্যমন্ত্রীর কথায়, ”জয় বাংলা নিয়ে কোনও অভিযোগ এলে আইনত ব্যবস্থা নেব। রেশন নিয়ে একটিও অভিযোগ শুনতে চাই না। যাতে কেউ অনাহারে না-থাকে, তা নিশ্চিত করতে হবে।” জয় বাংলা-জয় জোহরের জুন-জুলাইয়ের অর্থ দ্রুত দেওয়ার ব্যবস্থা হবে বলেও জানান মুখ্যমন্ত্রী।

Show More

Related Articles

Back to top button
%d bloggers like this: