West Bengal

আজ থেকে রাস্তায় মিলবে আধ ঘণ্টা অন্তর সরকারি বাস, নামছে না বেসরকারি বাস

ডানলপ, হাওড়া'র মতো জায়গায় যাত্রী বেশি থাকায় বেশি সংখ্যক বাসের ব্যবস্থা করা থাকবে।

প্রেরনা দত্তঃ পরিবহণ মন্ত্রী ভাড়া বৃদ্ধির অনুমোদন খারিজ করে দিতেই বেঁকে বসলেন বেসরকারি বাস সংগঠনগুলি। তাদের সাফ কথা, ২০ জন যাত্রী নিয়ে পুরোনো ভাড়ায় বাস চালানো সম্ভব নয়।
বেসরকারি বাস বাড়তি ভাড়া নিতে পারবে না। শনিবার একথা স্পষ্ট করে জানিয়ে দেন রাজ্যের পরিবহণ মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী। তাই আজ থেকেই রাস্তায় নামছে অধিক সরকারি বাস। মিলবে না বেসরকারি বাস। যে সংখ্যক মানুষ রাস্তায় গণপরিবহণ ব্যবস্থার সাহায্য নেবেন তাদের সুবিধার জন্য বাড়িয়ে দেওয়া হল সরকারি বাস।

আজ সকাল থেকে রাস্তায় মিলবে আধ ঘণ্টা অন্তর সরকারি বাস। যে সমস্ত রুটে এখন সরকারি বাস চলছে সেই সমস্ত রুটে বাসের সংখ্যা বাড়ছে। চাহিদা অনুযায়ী বৃদ্ধি করা হতে পারে আরও বাস। তাই আপাতত বেসরকারি বাসের ভাড়া বাড়িয়ে রাস্তায় নামার সিদ্ধান্ত মেনে নিচ্ছে না সরকার। পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য পরিবহণ নিগম সূত্রে জানানো হয়েছে, বিভিন্ন ডিপোতে বাস স্যানিটাইজ করে প্রস্তুত রয়েছে। ২০ জন যাত্রী নিয়েই বাস দৌড়বে। সামাজিক দুরত্ব মেনেই বাসে যাত্রী তোলা হবে। ডানলপ, হাওড়া’র মতো জায়গায় যাত্রী বেশি থাকায় বেশি সংখ্যক বাসের ব্যবস্থা করা থাকবে।

১৫টি রুটের প্রতিটিতে ১৬টি বাস নামাচ্ছে রাজ্য পরিবহণ নিগম। ওই সব রুটে সকাল ৭টা থেকে সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত আধ ঘণ্টা অন্তর বাস চলবে। প্রশাসনিক সূত্রের খবর, এটা অতিমারির সময়। সেই জন্য বিষয়টি পরিবহণ দফতরের অধীন হলেও একক ভাবে তারা কোনও সিদ্ধান্ত নিতে পারে না। প্রশাসনের সর্বোচ্চ স্তরে আলোচনার পরে সিদ্ধান্ত ঘোষণা করা হবে। আলোচ্যের তালিকায় ফেরি সার্ভিস-সহ পরিবহণের বিভিন্ন বিষয় রয়েছে।

ওয়েষ্ট বেঙ্গল বাস এণ্ড মিনিবাস ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের সম্পাদক প্রদীপ নারায়ণ বোস বলেন, “একদিন রাস্তায় বাস বেরোলে চার হাজার টাকা ব্যয় আর ১৮০০ টাকা আয়। আয়-ব্যায়ের হিসেব করেই মুখ্যমন্ত্রীকে বলা হয়েছিল। কিন্তু আজ পরিবহণ মন্ত্রীর এই ঘোষণার পর আমাদের পক্ষে আর বাস চালানো সম্ভব নয়।”এব্যাপারে আগামীকাল একটি বৈঠক ডেকেছেন তাঁরা।
রবিবার বরাহনগরে বৈঠকে বসেন রাজ্য বাস, মিনিবাস ওনারস অ্যাসোসিয়েশনের সদস্যরা। যদিও এই সংগঠনের প্রতিনিধিরা মুলত মিনিবাস চালান। তাদের দাবি, সোমবার থেকে রাস্তায় বাস নামানোর জন্য তারা প্রস্তুত ছিলেন। কিন্তু সরকার ভাড়া না বাড়ানোয় তাদের অসুবিধার মধ্যে পড়তে হল। ফলে বাস চালক ও কন্ডাক্টরদের ক্ষতির বোঝা বাড়বে। জয়েন্ট কাউন্সিল অব বাস সিন্ডিকেটের সাধারণ সম্পাদক তপন বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছেন, ” সরকার একতরফা ভাবে এই সিদ্ধান্ত নিয়ে নেওয়ায় আমরা হতাশ। জেলায় যে সব বাস মালিকরা প্রস্তুত হয়েছিলেন তারাও ভেবে উঠতে পারছেন না এবার তাদের কি করা উচিত।” ফলে সোমবার সকাল থেকে কলকাতার রাস্তায় ভরসা সেই সরকারি বাস। তবে সমস্যা মেটাতে সময়ের ব্যবধান কমিয়ে চলবে বেশি সংখ্যায় সরকারি বাস।

Show More

Related Articles

Back to top button
%d bloggers like this: