West Bengal

আজ বন্ধ রাজ্যের সব রেশন দোকান

দোকানগুলিকে পুরোপুরি স্যানিটাইজ করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

প্রেরনা দত্তঃ আজ রাজ্য জুড়ে বন্ধ থাকবে রেশন দোকান। গত দু’মাস ধরে একাধিক মানুষ রেশন দোকান মুখী হয়েছেন। তাই রেশন দোকান স্যানিটাইজ করতে হবে বলে জানিয়েছে খাদ্য দফতর। এর জন্য রাজ্যের ২১ হাজার রেশন দোকান বন্ধ আজ। বুধবার পর্যন্ত বন্ধ রাখা হবে খাদ্য দফতরের বিভিন্ন গুদাম। ইতিমধ্যেই দফতরের পক্ষ থেকে এই সিদ্ধান্তের কথা জানিয়ে দেওয়া হয়েছে।

সামাজিক দুরত্ব বজায় থাকলেও বা মাস্ক পরলেও সংক্রমণের আশঙ্কা পুরোপুরি উড়িয়ে দেওয়া যায় না। তাই দোকানগুলিকে পুরোপুরি স্যানিটাইজ করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। দোকান বন্ধ না করে এই কাজ করা সম্ভব নয়। চলতি মাসের রেশন তুলে নিয়েছেন গ্রাহকরা। তাই সমস্যা হবে না বলে একদিন বাছাই করা হয়েছে।

অগাস্ট মাস থেকেই এক দেশ, এক রেশন কার্ড ব্যবস্থা চালু হবে বলে জানিয়েছেন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমন। তবে কেন্দ্রের এই সিদ্ধান্তে খুশি নয় বাংলার খাদ্যমন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক। তাঁর দাবি, ‘পশ্চিমবঙ্গে কেন্দ্রের ওই প্রকল্প কার্যকর হবে না। রাজ্যে চালু থাকবে খাদ্যসাথী প্রকল্পই। ‘এক দেশ, এক রেশন কার্ড’ ব্যবস্থা চালুর কথা জানিয়েছিলেন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী‌। এই ব্যবস্থায় দেশের নাগরিকরা যে প্রান্তেই থাকুন না কেন, স্থানীয় রেশন দোকানে গিয়ে তিনি রেশন-সামগ্রী সংগ্রহ করতে পারবেন। পরিযায়ী শ্রমিক বা গরিব মানুষ যাতে প্রয়োজনীয় রেশন পান, তার জন্যই কেন্দ্রের এই তত্‍পরতা বলে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমন।

খাদ্য দফতরের গুদামে যেহেতু প্রচুর লরি চালক আসেন তাই গুদামগুলিও স্যানিটাইজ করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। গ্রাহকদের সাথে খারাপ ব্যবহার করলেই পড়তে হবে শাস্তির মুখে। আরও একবার জানিয়ে দেওয়া হল খাদ্য দফতরের তরফ থেকে। মুর্শিদাবাদের ঘটনার পড়ে নড়েচড়ে বসেছিল রাজ্যের খাদ্য দফতর। অভিযোগ রেশন ডিলারের পরিবারের বিরুদ্ধে। তার খারাপ আচরণের জেরেই ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠেন গ্রামবাসীরা। খাদ্য দফতরের তরফ থেকে জানিয়ে দেওয়া হয়েছিল, ভবিষ্যতে রাজ্যের কোনও প্রান্ত থেকে যদি এমন অভিযোগ আসে তাহলে তার বিরুদ্ধে কড়া ব্যবস্থা নেওয়া হবে। ইতিমধ্যেই খাদ্য দফতর জেলাওয়ারি রিপোর্ট তৈরি করেছে।

অগাস্ট মাসের মধ্যেই দেশের একটি বড় অংশের মানুষকে ‘এক দেশ, এক রেশন কার্ড’-এর আওতায় আনা সম্ভব হবে। ২০২১ সালের মার্চ মাসের মধ্যে গোটা দেশের রেশন ব্যবস্থা খোলনলচে বদলে ফেলা হবে বলে জানিয়েছেন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী। ‘এক দেশ, এক রেশন কার্ড’ ব্যবস্থা কার্যকর হলে দেশের ২৩ রাজ্যের ৬৭ কোটি মানুষ উপকৃত হবেন বলে দাবি করেছেন নির্মলা সীতারমন।
নয়া এই ব্যবস্থা চালু হলে গোটা দেশে পাবলিক ডিস্ট্রিবিউশন সিস্টেমের ৮৩ শতাংশ মানুষ এই প্রকল্পের আওতায় আসবেন বলে জানিয়েছেন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী।

অন্যদিকে খাদ্যমন্ত্রীর নিজের জেলায় ৮২ জন রেশন ডিলারকে শো-কজ করা হয়েছে। পিছিয়ে নেই দক্ষিণ ২৪ পরগণা। সেখানে শো-কজ করা হয়েছে ৬৪ জনকে। তারপর আছে নদীয়া। সেখানে ৫৩ জনকে শো-কজ করা হয়েছে। মুর্শিদাবাদ জেলায় শো-কজ করা হয়েছে ৪৯ জনকে। উত্তর দিনাজপুর জেলায় শো-কজ করা হয়েছে ৩৪ জনকে। পূর্ব মেদিনীপুর করা হয়েছে ২৭ জনকে। রেশন নিয়ে সবচেয়ে কম অভিযোগ এসেছে ঝাড়গ্রাম থেকে। এখানে মাত্র ১ জন রেশন ডিলারকে শো-কজ করা হয়েছে। হাওড়ায় ৫ ও কালিম্পং জেলায় ৬ রেশন ডিলারকে শো-কজ করা হয়েছে।
সবচেয়ে বেশি রেশন ডিলার সাসপেন্ড হয়েছে পশ্চিম মেদিনীপুর জেলায়। সেখানের ১৮ জনকে সাসপেন্ড করা হয়েছে।

Show More

Related Articles

Back to top button
%d bloggers like this: