Big Story

আবারো একই অভিযোগ পুলিশ মহলেও

তাদের অভিযোগ, সুরক্ষার অভাবে আক্রান্ত হচ্ছেন কর্মীরা

পল্লবী : আবারো একই অভিযোগ। সুরক্ষার অভাবে আক্রান্ত হচ্ছেন কর্মীরা। নেওয়া হচ্ছে না কোনও ব্যবস্থা। দিল্লির পর এবার কলকাতাতেও গাফিলতির অভিযোগ তুলে মঙ্গলবার রাতে আন্দোলনে নামে কলকাতা পুলিশের কমব্যাট ব্যাটালিয়নের জওয়ানেরা। এর আগে দিল্লিতে পুলিশের বিক্ষোভ দেখা গিয়েছে। দিল্লি পুলিশের সদর দফতর কার্যত অবরুদ্ধ হয়েছিল।

এবারো সেই একই ঘটনার চিত্রায়ন ঘটলো মহানগরীর বুকে। যে প্রত্যেকজন মানুষ করোনা বিপর্যয়ে নিজেদের প্রাণের বিনিময়ে প্রতিটি মুহূর্তে সামনে দাঁড়িয়ে লড়ছে তাদের জন্য কেন কোনো উপযুক্ত সুরক্ষার ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছেনা ? এর উত্তর কে দেবে ? প্রথমে এই একই অভিযোগে রাজ্য থেকে বিদায় নিয়েছে শ’এ শ’এ নার্স আর এবার পুলিশ কর্মী। করোনা মোকাবিলায় একেবারেই সামনের সারিতে দাঁড়িয়ে লড়ছেন পুলিশ এবং ইতিমধ্যেই কলকাতা পুলিশের ৫০ জনেরও বেশি আক্রান্ত হওয়া আশঙ্কা রয়েছে। তাঁদের হোম কোয়ারেন্টিনে পাঠানো হয়েছে। আক্রান্ত হয়েছেন বালিগঞ্জ থানার এসডিও, মানিকতলা থানার সাব ইন্সপেক্টর, ইস্টার্ন সাবার্বান ডিভিশনের ডিআরও, ময়দান থানার কনস্টেবল আর কয়েকজন হোমগার্ড, সিভিক ভলেন্টিয়ার রয়েছেন। এই তালিকায় আরও অনেকের নাম রয়েছে। আবার অনেক অফিসার সুস্থ হয়ে উঠেছেন। কেউ কেউ ডিউটিতে যোগ দিয়েছেন।

আর তাই এবার এই অভিযোগ নিয়েই পিটিএস অর্থাত্‍ পুলিশ ট্রেনিং স্কুলের বাইরে এসে বিক্ষোভ দেখান জওয়ানেরা। আন্দোলনকারীরা এজেসি বোস রোড, ডি এল খান রোড অবরোধ করে। বিক্ষোভ থামাতে গিয়ে নিগৃহীত হন ডিসি এন এস পল।তাদের অভিযোগ, কলকাতা পুলিশ ট্রেনিং স্কুলের কর্মীরা করোনা আক্রান্ত হচ্ছেন । কিছু দিন আগেই এক জন কমব্যাট ব্যাটালিয়নের জওয়ান আক্রান্ত হয়েছেন । কিন্তু তার সংস্পর্শে আসা পুলিশ কর্মীদের কোয়ারেন্টাইনে পাঠানো হয়নি।

লকডাউন যেখানে সংক্রমণ আটকাবার একমাত্র পথ সেখানে এই পুলিশেরাই তাদের দিন রাত এক করে তা স্বার্থক করার পথে হেঁটেছেন, তাই তাদের জন্য এইটুকু সুরক্ষায় না পাওয়ায় তাদের একাংশের মনেই অসন্তুষ্টি তা ছাড়াও তারা সরকারের কাছে এমনটাই দাবি করে যে, তারা তাদের সব টুকু দিয়েই লড়বে কিন্তু তাদের সুরক্ষা এনে দিতে হবে। কেন বারংবার একই অভিযোগ ? এই প্রথম সারির যোদ্ধাদের এরূপ অবহেলা করলে যুদ্ধ জয় সম্ভব হবে তো !

Show More

Related Articles

Back to top button
%d bloggers like this: