West Bengal

আর চিন্তা নেই খুলছে সেলুন-পার্লার অপেক্ষায় ২৭ মে

তাহলে এক নজরে দেখে নেওয়া যাক জোন ভিত্তিক ছাড়ের তালিকা

পল্লবী : তৃতীয় দফার লকডাউনের সময়সীমা শেষের সাথে সাথেই রাজ্য সরকার নিয়ন্ত্রণ বিধিতে শিথিলতা আনার চেষ্টা করেছেন। প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণায় যে নাইট কারফিউ-র ঘোষণা হয়েছে তা তিনি আনুষ্ঠানিক ভাবে না মানতে চাইলেও সম্পূর্ণভাবে অস্বীকার ও করেননি। তিনি বলেন, তবে সন্ধ্যা ৭টার পরে জমায়েত দেখলে পুলিশ পদক্ষেপ নিতে পারে। তবে সম্পূর্ণ রাজ্যে যাতে সু-নজরদারি রাখা যায় তাই কন্টেনমেন্ট এলাকাগুলিও তিন ভাগে ভাগ করা হচ্ছে। যেখানে সংক্রমণ হয়েছে বা হতে পারে, তা কন্টেনমেন্ট অ্যাফেক্টেড (এ)। দ্বিতীয় স্তরে রয়েছে কন্টেনমেন্ট বাফার (বি) এলাকা। যেখানে নজর রাখবে সরকার। আর তৃতীয় স্তরে রয়েছে কন্টেনমেন্ট ক্লিন (সি) এলাকা।

কন্টেনমেন্ট এলাকার পরিধি কমাতে তা বুথ ও ওয়ার্ডভিত্তিক করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে রাজ্য। কন্টেনমেন্ট ‘এ’ এলাকা বাদে আগামী বৃহস্পতিবার থেকে বড়-মাঝারি-ছোট দোকান-অফিস খুলবে। শপিং মলের মধ্যে অফিস থাকলেও খোলা যাবে। ২৭ মে থেকে খুলবে হকার্স মার্কেট। সেখানে জোড়-বিজোড় ভিত্তিতে একদিন অন্তর দোকান খোলার হবে বলে ইঙ্গিত। স্বরাষ্ট্রসচিব, পুরসভার সচিব এবং পুলিশ মার্কেট কমিটির সঙ্গে কথা বলবেন। মার্কেটে পাসের ব্যবস্থাও করবে পুলিশ। একক দোকানের পাস লাগবে না। ওই দিন থেকে দু’জন যাত্রী নিয়ে অটোরিকশা রাস্তায় নামতে পারবে। সাথে সেলুন, বিউটি পার্লার খোলার ঘোষণা করেছে সরকার। তবে প্রতিটি ক্ষেত্রেই ব্যবহৃত সামগ্রীর জীবাণু নাশ করে কাজ করতে নির্দেশ দেওয়া হচ্ছে সেলুন, পার্লারকে। দোকান খোলার ক্ষেত্রেও স্বাস্থ্য-বিধি আবশ্যিক। সেই সঙ্গে মুখ্যমন্ত্রীর মতে, নিজের যত্ন নিজেকেও নিতে হবে।

রাজ্যে ৩১ মে পর্যন্তই লকডাউন চালু থাকছে। তবে কার্ফু বলবত্‍ হচ্ছে না। সাত জনের বদলে ১৫ জনের জমায়েতে ছাড় দেওয়া হয়েছে। বিধি ভাঙলে পুলিশ পদক্ষেপ করবে। এ দিন মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ”মানুষকে দমবন্ধ করে টেনশনে ভোগানো উচিত নয়। সন্ধ্যা ৭টার পরে বাইরে থাকবেন না। এটা আপনাদের কাছে অনুরোধ। কার্ফু আইনটা যাতে আপনাদের উপরে বলবত্‍ না-হয়, মাথায় রাখবেন। কেউ সন্ধ্যা ৭টার পরে বেরোলে বা জমায়েত করলে পুলিশ ব্যবস্থা নেবে। সরকারকে যেন এমন কোনও পদক্ষেপ করতে না-হয়, যাতে মানুষের অসুবিধা হতে পারে।” কয়েক দিন পরেই ইদ। কঠিন হলেও বাড়িতে বসেই তা পালন করার কথা বলেছেন মুখ্যমন্ত্রী। তাঁর কথায়, ”ইদও বাড়িতে পালন করতে হতে পারে। কোনও সম্প্রদায় নিয়ে যেন রাজনীতি করা না-হয়। অপপ্রচার যেন না-হয়।”

তাহলে এক নজরে দেখে নেওয়া যাক জোন ভিত্তিক ছাড়ের তালিকা –

• কন্টেনমেন্ট অ্যাফেক্টেড (এ) জ়োন: সব বন্ধ।
• কন্টেনমেন্ট বাফার (বি) জ়োন: কিছু নিয়ন্ত্রণ।
• কন্টেনমেন্ট ক্লিন (সি) জ়োন: পুরোটাই খোলা।

২১ মে থেকে ছাড় –

• বড়, মাঝারি, ছোট দোকান
• আন্তর্জেলা বাস
• সেলুন, বিউটি পার্লার
• ৫০% কর্মী শিল্পক্ষেত্র, বেসরকারি অফিসে
• জমায়েতশূন্য খেলা (গল্ফ, টেবল টেনিস, লন টেনিসের মতো খেলা)
• শপিং মলের মধ্যে অফিস

২৭ মে থেকে ছাড় –

• হকার্স মার্কেট
• দু’জন নিয়ে অটোরিকশা

Show More

Related Articles

Back to top button
%d bloggers like this: