Big Story

একে করোনা বিতর্ক তার ওপর আম্ফান : মোদী মমতা এক যোগে , রাজ্যের কপালে সিকে ছিড়বে কি ?

চলতি লকডাউনে এটিই তার প্রথম সফর

পল্লবী : মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় প্রধানমন্ত্রী কে অনুরোধ করেন যে তিনি যেন নিজে এসে দেখে যান কি করুন অবস্থা পশ্চিমবঙ্গে তার সাথে সুন্দরবন ও তার সংলগ্ন এলাকার। সঙ্গে থাকবেন তিনি নিজেও। মুখ্যমন্ত্রীর ডাকে সাড়া দিয়ে আজ রাজ্যে আসছেন মোদী। আকাশপথে এলাকা পর্যবেক্ষণের পরে উত্তর ২৪ পরগনার বসিরহাটে নামবেন তাঁরা। সেখানে রাজ্য প্রশাসনের পদস্থ আধিকারিকদের সঙ্গে ঝড়ে ক্ষয়ক্ষতি নিয়ে মূল্যায়ন-বৈঠক করবেন মোদী ও মমতা। অন্যদিকে, চলতি লকডাউনে এটিই তার প্রথম সফর।

প্রশাসন সূত্রে যে কর্মসূচি জানা গিয়েছে, সেই অনুযায়ী মোদী দমদমে নামবেন আজ সকাল সওয়া ১০টা নাগাদ। মুখ্যমন্ত্রীকে সঙ্গে নিয়ে ঘণ্টাখানেক আকাশপথে দক্ষিণ ও উত্তর ২৪ পরগনার বিধ্বস্ত অঞ্চলগুলি পরিদর্শন করবেন তিনি। পরে বসিরহাটে বৈঠক সেরে ওড়িশার আমপান-ক্ষতি দেখতে যাওয়ার কথা প্রধানমন্ত্রীর। তাঁর দফতরও টুইট করে মোদীর আজকের বাংলা, ওড়িশা সফরের কথা জানিয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে কর্মসূচি সেরে মুখ্যমন্ত্রী চলে আসবেন নবান্নে। সেখানে সনিয়া গাঁধীর ডাকা বিরোধী নেতাদের ভিডিয়ো-বৈঠকে যোগ দেবেন তিনি।

সূত্রের খবর, প্রথমে পরিকল্পনা ছিল, প্রধানমন্ত্রী বিমানে কলাইকুণ্ডায় নামবেন। তার পর কপ্টারে দক্ষিণ ২৪ পরগনার সাগর ও সংলগ্ন এলাকা দেখে ডায়মন্ড হারবারে যাবেন। সেখানে কথা বলবেন ওই জেলার দুর্গতদের সঙ্গে। কিন্তু রাজ্য প্রশাসন দিল্লিকে জানায়, ওখানে হেলিপ্যাড তৈরি করার মতো পরিস্থিতি এখন নেই। তার পর নবান্ন ও প্রধানমন্ত্রীর দফতরের আলোচনার ভিত্তিতে বসিরহাটে মোদীর সফর চূড়ান্ত হয়। যে মাঠে প্রধানমন্ত্রী ও মুখ্যমন্ত্রীকে নিয়ে হেলিকপ্টার নামার কথা, তার খুব কাছেই রয়েছে কোভিড কোয়রান্টিন কেন্দ্র। প্রাথমিক ভাবে সেটি সরিয়ে নেওয়ার প্রসঙ্গ উঠলেও এসপিজি জানায়, প্রধানমন্ত্রীর সফরের জন্য ওই কেন্দ্র সরানো যাবে না। এর পরে রাজ্য প্রয়োজনীয় নিরাপত্তার বন্দোবস্ত করে ওই মাঠেই কপ্টার নামানোর ব্যবস্থা নিয়েছে। বুলবুলের ক্ষয়-ক্ষতি দেখতে একই জায়গায় নেমেছিল মমতার কপ্টার। সূত্রের খবর, হেলিপ্যাডের কাছে রাজ্য সরকারের ‘কর্মতীর্থ’ ভবন আছে। সেখানেই মমতা-সহ সকলের সঙ্গে বৈঠক করতে পারেন মোদী।

প্রধানমন্ত্রীর আসার সম্ভাবনা বৃহস্পতিবার দুপুর থেকেই শোনা যাচ্ছিল। তবে কখন আসবেন, খুব নিশ্চিত ভাবে সে খবর বিকেল পর্যন্ত রাজ্যের কাছে ছিল না। যদিও এ দিন মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ”আমরা নিশ্চয়ই চাইব, তিনি আসুন। এলে তো ভালই।” এর পরেই দিল্লি এবং নবান্নের মধ্যে আলোচনা করে প্রধানমন্ত্রীর সফরসূচি ঠিক হয়। প্রশাসন সূত্রে খবর, মোদীর সঙ্গে মমতাও থাকুন, এটাই দিল্লি চেয়েছিল। মুখ্যমন্ত্রী তাতে সম্মত হন। এ দিন মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ”কেন্দ্র এই তাণ্ডবের ভয়াবহতা জানতে পেরেছে। পাশাপাশি আমরাও তাদের বলেছি। আশা করি সহযোগিতা পাব। তবে যত ক্ষণ না-পাই, কিছু বলতে পারব না। আমরা কোনও বিতর্ক চাই না।”

Show More

Related Articles

Back to top button
%d bloggers like this: