Nation

এটাই দেশের ভবিষ্যৎ নয়তো ?

অবশেষে ট্রেনের কামরায় খাবার নিয়ে বেঁধে গেলো মহা যুদ্ধ

পল্লবী : এমন তাই দেশের ভবিষ্যত নয়তো ? অবশেষে ট্রেনের কামরায় খাবার নিয়ে বেঁধে গেলো মহা যুদ্ধ। অবশেষে বাড়ি ফেরার ট্রেন মিলেছে পরিযায়ী শ্রমিকদের। তবে ট্রেনে সবার জন্য পর্যাপ্ত খাবার নেই, অভিযোগ এমনই। খিদের মাঝে অন্যের হাতে খাবার দেখে নিজেদের সামলে রাখতে পারেননি তাঁরা। ট্রেনের ভিতরে খাবার নিয়ে শুরু হয় কাড়াকাড়ি, মারামারি। করোনা সংক্রমণের আশঙ্কায় গন্ডগোল থামাতে এগিয়ে আসেনি রেলপুলিশও।

হাতে নেই টাকা। ভালভাবে জুটছে না খাবার। বাড়ি ফেরার পথে ট্রেনে যায় মিলছিলো তাও তাতে পণ্যের থেকে ভাগিদারীর সংখ্যা অনেক। কাজেই পেটের তাগিদে বেঁধে গেলো লড়াই। মঙ্গলবার মহারাষ্ট্রের কল্যাণ থেকে ১২০০ পরিযায়ী শ্রমিককে নিয়ে ট্রেনটি বিহারের উদ্দেশ্যে রওনা দিয়েছিল। শ্রমিকদের দাবি ট্রেনে খাবারের উপযুক্ত ব্যবস্থা ছিল না। ওই বিশেষ ট্রেনের কয়েকটি কোচের যাত্রীদের খাবার দেওয়া হয় ঠিকই। তবে সবাই তা পাননি। খিদের জেরে নিজেদের শান্ত রাখতে পারেননি শ্রমিকরা। মধ্যপ্রদেশের সাতনার কাছে ট্রেন আসতেই খাবারের জন্য কাড়াকাড়ি শুরু হয়ে যায়। মুহূর্তের মধ্যে তা হাতাহাতির রূপ নেয়।

ট্রেনের মধ্যে হইচই শুরু হয়ে যায়। একে, অপরকে লাথি, ঘুষি মারতে শুরু করেন শ্রমিকরা। এক পরিযায়ী শ্রমিক বলেছেন, ‘‌কামরার অনেকেই খাবার পান। কিন্তু আমরা পাইনি। প্রচন্ড খিদে পেয়েছিল।’‌ এদিকে, বারবার রেলপুলিশকে অশান্তি মেটানোর দাবি জানান প্রত্যক্ষদর্শীরা। তবে তাঁদের অভিযোগ, করোনা সংক্রমণের আশঙ্কায় গন্ডগোল থামাতে এগিয়ে আসেনি রেলপুলিশ। পরিবর্তে প্ল্যাটফর্মে দাঁড়িয়ে অশান্তি মেটানোর চেষ্টা করেন তাঁরা। এরপর রেলপুলিশ বোঝানোর পর শ্রমিকরা শান্ত হন। ট্রেন গন্তব্যের দিকে এগিয়ে যায়।

এই দৃশ্য আজ ট্রেনের কামরায় শ্রমিকদের মধ্যে কিন্তু এই ছবি যে সারা দেশের হবেনা এমন কথা কেউ কি দিতে পারবে ? এই মুহূর্তে বহু সংসার চলছে ত্রান সামগ্রীর দানে। ভবিষৎ অনিশ্চিত, কাজে বন্ধ এদিকে সমীক্ষায় জানা যাচ্ছে করোনার জেরে নাকি বহু মানুষ হবেন কর্মহীন। তাহলে খাবার জুটবে কোথা দিয়ে ? তৈরী থাকুন হয়তো দু-মুঠো অন্নের জন্য লড়াইয়ে সামিল হতে হতেপারে আপনাকে আমাকে।

Show More

Related Articles

Back to top button
%d bloggers like this: