Economy Finance

এত বড়ো অর্থনৈতিক কারচুপির পরেও চার বছর ধরে চুপ SBI

স্টেট ব্যাংক-সহ মোট ৬টি ব্যাংক থেকে ৪১৪ কোটি টাকা ধার নিয়ে পলাতক আরও এক সংস্থার মালিক

পল্লবী : স্টেট ব্যাংক-সহ মোট ৬টি ব্যাংক থেকে ৪১৪ কোটি টাকা ধার নিয়ে পলাতক আরও এক সংস্থার মালিক। আশ্চর্যজনকভাবে, এই ঘটনা সমানে আসার পর চার বছর সংস্থার কর্তাদের বিরুদ্ধে কোনও অভিযোগই দায়ের করেনি স্টেট ব্যাংক। এবছর ২৫ ফেব্রুয়ারি অভিযোগ দায়ের হওয়ার পর পুরো ঘটনা প্রকাশ্যে এসেছে। দিল্লির রামদেব ইন্টারন্যাশনাল লিমিটেড নামক এক চাল বিক্রেতা সংস্থাকে ২০১৬ সালেই ‘নন পারফরমিং অ্যাসেট’ হিসেবে ঘোষণা করে স্টেট ব্যাংক। তখনও সংস্থার উপর ৪১৪ কোটি টাকা ঋণের বোঝা ছিল।

সংস্থাটি স্টেট ব্যাংক থেকে ১৭৩.১১ কোটি, কানাড়া ব্যাংক থেকে ৭৬.৯ কোটি টাকা, ইউনিয়ন ব্যাংক থেকে ৬৪.৩১ কোটি টাকা, সেন্ট্রাল ব্যাংক থেকে ৫১.৩১ কোটি টাকা, কর্পোরেশন ব্যাংক থেকে ৩৬.৯১ কোটি টাকা এবং আইডিবিআই ব্যাংক থেকে ১২.২৭ কোটি টাকা ঋণ নিয়েছিল। তখনই জানা যায় সংস্থার মালিকরা পলাতক। দেউলিয়া ঘোষণার পর সংস্থাটির সম্পত্তি পরিদর্শনে গিয়েছিলেন SBI কর্তারা। তখনও সংস্থার মালিকরা উপস্থিত ছিলেন না। অথচ তা সত্বেও ২০১৬ সালে অভিযোগ করা হয়নি। এবছর ২৫ ফেব্রুয়ারি সংস্থার মালিকদের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেছে স্টেট ব্যাংক। অভিযোগপত্রেই উপরের ঘটনাক্রম বর্ণনা করেছে দেশের বৃহত্তম রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংক।

SBI-এর সেই অভিযোগের ভিত্তিতে সংস্থার তিন ডিরেক্টর নরেশ কুমার, সুরেশ কুমার, সংগীতা এবং একজন অজ্ঞাতপরিচয় সরকারি কর্মীর বিরুদ্ধে তদন্ত শুরু করেছে সিবিআই। তাঁদের বিরুদ্ধে আর্থিক দুর্নীতি, প্রতারণা-সহ একধিক মামলা ধারায় করা হয়েছে।সম্প্রতি একটি RTI-এর উত্তরে চাঞ্চল্যকর তথ্য দিয়েছে রিজার্ভ ব্যাংক। RBI জানায়, দেশের শীর্ষ ঋণখেলাপীদের প্রায় ৬৮ হাজার কোটি টাকার ঋণ অনাদায়ের তালিকায় ফেলা হয়েছে। ঋণখেলাপিদের তালিকায় এমন বেশ কয়েকজনের নাম আছে যাঁদের বিরুদ্ধে আর্থিক কেলেঙ্কারির অভিযোগে তদন্ত চলছে। সেই তথ্য সরকারের অস্বস্তি বাড়িয়েছে। এবার এই সংস্থার মালিকদের পলায়নের ঘটনা চাপ বাড়াবে কেন্দ্রের।

এই বিরাট অঙ্কের মূল্যের কারচুপি হওয়া সত্ত্বেও কেন কোনোরকম অভিযোগ করেনি SBI ? সরাসরি প্রশ্ন উঠছে কতৃপক্ষের দিকে।

Show More

Related Articles

Back to top button
%d bloggers like this: