Big Story

এলএ সি-র অত্যন্ত কাছে ঢুকে পড়ে চিনা কপ্টার, যুদ্ধবিমান মোতায়েন ভারতের !

দু’টি চিনা কপ্টার এলএসি-র অত্যন্ত কাছে এলেও ভারতের আকাশসীমায় ঢুকতে পারেনি

প্রেরনা দত্তঃ লাদাখে সীমান্তের প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখার (এলএসি) খুব কাছে চীনা সামরিক হেলিকপ্টার চলে আসায় যুদ্ধ বিমান মোতায়েন করেছে ভারত। উত্তর সিকিমে চীন ও ভারত সেনাদের মধ্যে চলা উত্তেজনার মধ্যেই এ খবর এলো। সীমান্তের (LAC) খুব কাছে চিনা সেনাবাহিনী অর্থাৎ পিপলস লিবারেশন আর্মির একটা হেলিকপ্টারকে উড়তে দেখা গিয়েছে। মাটির খুব নীচে এই হেলিকপ্টারের উপস্থিতি প্রতিরক্ষা মন্ত্রকের উদ্বেগ বাড়িয়েছে।

ভারতের তরফে দাবি করা হয়েছে, দু’টি চিনা কপ্টার এলএসি-র অত্যন্ত কাছে এলেও ভারতের আকাশসীমায় ঢুকতে পারেনি। সেই সময় ভারতীয় বায়ুসেনার একটি বিমানও ওই এলাকায় নজরদারি চালাচ্ছিল। চিনা কপ্টারের খবর পেয়েই তৎক্ষণাৎ সেখানে উড়ে যায় বায়ুসেনার সুখোই ৩০এমকেআই যুদ্ধবিমান। এমনকী সে সময় কোনো রকমের অশান্তি না ঘটলেও সন্ধ্যাবেলায় দু’দেশের সেনা সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন।

বায়ুসেনা সূত্রে খবর, দুই দেশের বায়ুসেনার ওই বিমান সীমা লঙ্ঘন করেনি। দু’টি কপ্টারই নিজেদের ভূপৃষ্টের ওপর ছিল। এ প্রসঙ্গে উল্লেখ্য, লাদাখের এলএসি বরাবর এই অঞ্চলে গত সপ্তাহে দুই দেশের পদাতিক বাহিনীর সক্রিয়তা ঘিরে উত্তেজনা বেড়েছিল। সীমান্তের দু’পাশ থেকেই উড়ে এসেছিল পাথর। একইভাবে সিকিমের নাথু লা এলাকায় মুখোমুখী চলে এসেছিল দুই দেশের পদাতিক বাহিনী।

বলা হচ্ছে, এ ঘটনার পরপরই ভারতের লেহ বিমান ঘাঁটি থেকে সুখোই৩০এমকেআই যুদ্ধবিমানসহ অন্যান্য বিমান টহলে অংশ নেয়। এ বিষয়ে চিনা বিদেশ মন্ত্রক সূত্রে দাবি, এলএসিতে পিএলএ শান্তি-স্থিতি বজায়ে কাজ করে। দুই দেশের উচিত দ্বিপাক্ষিক আলোচনার মাধ্যমে সীমান্ত সমস্যা সমাধান করা। আমরা সবসময় ভারতীয় সেনার সঙ্গে সমন্বয় রেখেই সীমান্ত ব্যবস্থা মজবুত রাখি। প্রতিরক্ষা মন্ত্রক সূত্রে খবর, দুই দেশের সীমান্ত বাহিনীর মধ্যে এই ধরনের ঘটনা ঘটেই থাকে। পরে ফ্ল্যাগ বৈঠক করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনা হয়। এক্ষেত্রেও সেটা হয়েছে।

Show More

Related Articles

Back to top button
%d bloggers like this: