Big Story

করোনাকে নিয়েই বাঁচতে হবে, লকডাউন তোলার পক্ষে সওয়াল কেজরিওয়ালের

কেজরিওয়াল বলেন, কোথাও একটিও করোনাভাইরাস সংক্রমণ ঘটবে না, এ অসম্ভব।

প্রেরনা দত্তঃ করোনার থাবা বিশ্ব জুড়ে। ভারতে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৪০ হাজার পেরিয়ে গিয়েছে। রাজধানী দিল্লিতে আক্রান্তের সংখ্যা ৪১২২। মৃত্যু হয়েছে ৬৪ জনের। এতদিন লকডাউন তোলার বিরোধিতা করে এলেও এবার নিজেই লকডাউন তোলার পক্ষে সওয়াল করলেন দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল। দিল্লিকে ফের খুলে দিয়ে স্বাভাবিক করে তোলার প্রক্রিয়া চালুর সময় এসেছে। বললেন অরবিন্দ কেজরিওয়াল। কেন্দ্রের সুপারিশক্রমে জাতীয় রাজধানীতে ‘রেড জোন’-এর ক্ষেত্রে যাবতীয় লকডাউনের বিধিনিষেধ প্রত্যাহার কার্যকর করার কথা ঘোষণা করেন তিনি। দিল্লির জনতাকে নোভেল করোনাভাইরাসকে সঙ্গে নিয়েই বেঁচে থাকার জন্য তৈরি হতে হবে বলেও অভিমত জানান দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী।

ধাপে ধাপে স্বাভাবিক হবে জনজীবন এই ইঙ্গিত দিয়ে দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী বলেছেন, “প্রশাসন কনটেইনমেন্ট জোন ছাড়া অন্য এলাকায় বিধি শিথিল করতে প্রস্তুত।” এদিকে, দিল্লিতে সিআরপিএফের সদর দফতর সিল করে দেওয়া হল সেখানকার একজন গাড়ির চালকের শরীরে কোভিড-১৯ সংক্রমণ ধরা পড়ার পর। পরবর্তী নির্দেশ না পাওয়া পর্যন্ত লোধি রোডের ওই বিল্ডিংয়ে আর কেউ প্রবেশ করতে পারবেন না বলে জানানো হয়েছে।

কেজরিওয়াল বলেন, “হাসপাতাল ও টেস্টিং কিটের হিসেবে আমরা তৈরি আছি। আমরা কেন্দ্রীয় সরকারের কাছে আবেদন জানাচ্ছি সব কন্টেইনমেন্ট এলাকাগুলি সিল করা থাক। বাকি এলাকাগুলিকে গ্রিন জোন হিসেবে চিহ্নিত করা হোক। জোড়-বিজোড় নীতিতে দোকান খোলা যেতে পারে। এমনকি লকডাউন পুরো তুলে নেওয়ার পরেও যদি কিছু সংক্রমণ হয়, তা ভালভাবে সামলাতে আমরা তৈরি।”
কেজরিওয়াল বলেন, কোথাও একটিও করোনাভাইরাস সংক্রমণ ঘটবে না, এ অসম্ভব। কেননা এটা দেশব্যাপী হয়নি। আমাদের করোনাভাইরাসের সঙ্গে ঘর করার জন্য তৈরি হতে হবে। এর সঙ্গে অভ্যস্ত হতে হবে।

করোনাভাইরাস সংক্রমণ ঠেকানোর জন্য ২৩ মার্চ থেকে লকডাউন চলছে দিল্লিতে। এর ফলে সরকারের আয় বিরাট মার খেয়েছে, অর্থনীতির ব্য়াপক ক্ষতি হয়েছে বলে জানিয়ে কেজরিবাল জানান, তিনি লকডাউন তুলতে প্রস্তুত। তাঁর দেওয়া পরিসংখ্যান অনুযায়ী, ২০১৯ এর এপ্রিলে সরকারের আয় হয়েছিল ৩৫০০ কোটি টাকা, অথচ এই এপ্রিলে তা কমে হয়েছে মাত্র ৩০০ কোটি টাকা।

Show More

Related Articles

Back to top button
%d bloggers like this: