Health

করোনাভাইরাস নিয়েই বাঁচতে শিখতে হবে, সেটাই বড় চ্যালেঞ্জ: কেন্দ্র

ধাপে ধাপে লকডাউন তোলা নিয়ে ভাবনা চিন্তা করছে কেন্দ্র। তবে একেবারেই লকডাউন উঠবে না, সেটা পরিস্কার।

প্রেরনা দত্তঃ কয়েক দিন ধরেই দেশে ফি দিন প্রায় তিন হাজার ব্যক্তি সংক্রমিত হয়েছেন। যার ফলে দেশে সংক্রমিতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৫৯,৭৬৫। সংখ্যাটা আরও বাড়বে বলে সতর্ক করেছেন এমসের ডিরেক্টর রণদীপ গুলেরিয়া। আগামী দিনে দেশে করোনা সংক্রমণ আরও বৃদ্ধি পেতে পারে এটাই আশঙ্কা করছে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রক। এই পরিস্থিতিতে শুক্রবার স্বাস্থ্য মন্ত্রকের যুগ্মসচিব লব আগরওয়াল বলেন, ‘কী করে করোনাভাইরাসকে সঙ্গে নিয়েই বাঁচতে হবে, তা আমাদের শিখতে হবে। এটাই বড় চ্যালেঞ্জ’।

স্বাস্থ্যমন্ত্রক জানিয়েছে, এযাবৎ মৃতদের মধ্যে ৭০ শতাংশের মধ্যে অন্য গুরুতর অসুখ (কো–মর্বিডিটি) সমস্যা ছিল। এই মুহূর্তে করোনায় আক্রান্ত ৯১ শতাংশ রোগীর শরীরে তেমন কোনও জটিলতা নেই।‌ লকডাউনের ৪৫ দিন পার হতে চলল, কিন্তু সংক্রমণ কমার লক্ষণ নেই। ইতিমধ্যেই বেশ কিছু ক্ষেত্রে নিয়ম-কানুন শিথিল করা হয়েছে দেশের অর্থনীতি বাঁচাতে। এরমধ্যেই বিভিন্ন রাজ্য থেকে পরিযায়ী শ্রমিককে নিজের রাজ্যে ফেরানোর কাজ শুরু হয়েছে। পাশাপাশি বিদেশে আটকে পড়া ভরতীয়দের ফেরাতেও বিমান পরিষেবা দিচ্ছে এয়ার ইন্ডিয়া।

লব আগরওয়াল আরও জানিয়েছেন, ‘করোনা চিকিৎসায় পরীক্ষামূলক প্লাজমা থেরাপি শুরুর অনুমতি দেওয়া হয়েছে ইন্ডিয়ান কাউন্সিল অফ মেডিক্যাল রিসার্চ বা আইসিএমআর–কে। দেশের ১০টি রাজ্যের ২১টি হাসপাতালে পরীক্ষামূলক চিকিৎসা শুরু হবে।’ তার মধ্যে রয়েছে মহারাষ্ট্রের ৫টি, গুজরাটের ৪টি, রাজস্থান, তামিলনাড়ু, মধ্যপ্রদেশ ও উত্তরপ্রদেশের ২টি, পাঞ্জাব, কর্ণাটক, তেলেঙ্গানা ও ছত্তিশগড়ের ১টি করে হাসপাতাল। লকডাউনের নিয়ম শিথিল করায় ও পরিযায়ী শ্রমিকেরা ঘরে ফিরতে শুরু করায় সংক্রমণ বাড়ার যে আশঙ্কা রয়েছে, তা স্বীকার করে নিয়েছেন লব। তিনি বলেন, ‘‘পারস্পরিক দূরত্বের যে নিয়ম বেঁধে দেওয়া হয়েছে তা পালন করতে হবে।’’

স্বাস্থ্য মন্ত্রকের যুগ্মসচিবের দাবি, ‘সংক্রমণের হার দ্বিগুণ আগের থেকে সময় লাগছে বেশি। অর্থাত্‍, পরিস্থিতি ক্রমশই উন্নতি হচ্ছে’। এই প্রসঙ্গে বলতে গিয়ে তিনি বিস্তারিত পরিসংখ্যানও দিয়েছেন। বিশেষজ্ঞদের মতে, আজ না-হোক কাল, গোষ্ঠী সংক্রমণ হবেই। তখন মানুষের মধ্যে গোষ্ঠী প্রতিরোধ ক্ষমতা তৈরি হবে। পরবর্তী ধাপে করোনা সংক্রমণ স্থানীয় রোগে পরিণত হবে। তখন আর চিন্তার কিছু থাকবে না।

Show More

Related Articles

Back to top button
%d bloggers like this: