Health

করোনা আবহেই আবারো বিপত্তি কলকাতা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে

মেডিক্যাল কলেজের ঘটনায় শনিবার রাতেই হাসপাতালের বিরুদ্ধে বৌবাজার থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছে মৃতের পরিবার

পল্লবী : ফের বিপত্তি কলকাতা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। হাসপাতালে রোগী আসা সত্ত্বেও তাকে ভর্তি নেওয়া হয়নি বলা হয় ডেঙ্গি, ম্যালেরিয়া, টাইফয়েডের পরীক্ষা করিয়ে আনতে সঙ্গে মূত্রের রুটিন কালচারও। রোগীর পরিবারের দাবি, ১৫ দিন ধরে হন্যে হয়ে ঘুরে সব পরীক্ষা করার পরে দেখা যায় রিপোর্ট স্বাভাবিক। তবুও জ্বর না কমায় শেষে রোগীকে ভর্তি নেয় ওই হাসপাতাল। রোগীর পরিবারের আরও অভিযোগ, ভর্তির এক দিন পরেই শনিবার দুপুরে হাসপাতাল থেকে ফোনে জানানো হয় রোগী নিখোঁজ। পালিয়ে গিয়েছেন। রোগী বাড়িতে ফিরেছেন কি না দেখতে তাঁর পাড়ায় পৌঁছয় পুলিশও। তবে হাসপাতালে পৌঁছে রোগীর পরিজনেরা জানতে পারেন, রোগীকে পাওয়া গিয়েছে। তিনি হাসপাতালেই ছিলেন।

পরিবার সূত্রে আবারো অভিযোগ, সন্ধ্যায় ওই পরিবারকেই আবার হাসপাতাল থেকে জানানো হয়, রোগী ভোরেই মারা গিয়েছেন। তাঁর করোনা হয়েছিল, তাই মৃতদেহ দেওয়া যাবে না। কলকাতা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের বিরুদ্ধে এমন অভিযোগ ঘিরে তোলপাড় শুরু হয়েছে।মেডিক্যাল কলেজের ঘটনায় শনিবার রাতেই হাসপাতালের বিরুদ্ধে বৌবাজার থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছে মৃতের পরিবার। সেখান থেকেই তাঁদের হোম কোয়রান্টিনে পাঠানো হয়েছে।

এই বিষয় নিয়ে চাঞ্চল্য ছড়াতেই মেডিক্যালের সুপার ইন্দ্রনীল বিশ্বাসের দাবি, ‘রোগীর পরিজনেরা হোম কোয়রান্টিনে থাকেন। তাই হয়তো ভুল ফোন চলে গিয়েছে। তা ছাড়া রেফার রোগীর ক্ষেত্রে ফোন নম্বরে গন্ডগোল হচ্ছে। তবু কী হয়েছে খোঁজ করে দেখছি।’ কিন্তু আগে কেন করোনার পরীক্ষা না করিয়ে রোগীকে ছেড়ে দেওয়া হল? ইন্দ্রনীলবাবু এ ব্যাপারে মন্তব্য করতে না চাইলেও রাজ্যের স্বাস্থ্যসচিব নারায়ণস্বরূপ নিগম বললেন, ‘দুঃখজনক ঘটনা। এই সমস্যা মেটাতেই শনিবার মেডিক্যাল কলেজে নিজে গিয়ে বৈঠক করেছি। কোয়রান্টিনে থাকা রোগীর পরিবারের সঙ্গে রোগীর সুষ্ঠু ভাবে যোগাযোগের ব্যবস্থা করা হবে। এই দু’টি বিষয়েরও দ্রুত তদন্তের ব্যবস্থা করতে বলছি।’

এ ঘটনা নতুন নয় এর আগেও এমন ঘটনার শরিক থেকেছে দেশ। কিন্তু এতটা অসাবধানতা কিসের জন্য ? যতই বর্তমান পরিস্থিতির জন্য কতৃপক্ষের ওপর অনেক দায়-ভার , চাপ থাকুক তবুও এরূপ দ্বিচারিতা কেন ? ভুল হলেও এই ভুলের বারংবার পুনরাবৃত্তির কারণ কি ? গত কয়েক দিনে শহরের স্বাস্থ্য পরিষেবা ঘিরে এমনই একাধিক অভিযোগ উঠছিল নানা মহল থেকে।

Show More

Related Articles

Back to top button
%d bloggers like this: