Analysis

করোনা নিয়ন্ত্রণে ৪-৫ বছর লাগবে: বললেন হু-এর প্রধান বিজ্ঞানী সৌম্যা স্বামীনাথন

কোভিড-১৯ হবে এইডসের মতো, যা কখনোই শেষ হওয়ার নয়। তাই এই ভাইরাসকে নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আসাই এখন সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ।

প্রেরনা দত্তঃ করোনা প্যানডেমিক সারা বিশ্বজুড়ে ক্রমশই মানুষকে অবসাদগ্রস্ত করে তুলছে। দিন পার হয়ে যাচ্ছে। কিন্তু এ ভাইরাসের করাল গ্রাস থেকে মুক্তির কোনও তল খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। দিনের পর দিন মানুষ গৃহবন্দি। লকডাউনে জীবন স্তব্ধ হয়ে গেছে। আর্থিক ক্ষতির ধাক্কা কীভাবে সামাল দেওয়া সম্ভব তা সরকারও বুঝে উঠতে পারছে না।

কয়েক মাস নয়, বরং বছর পাঁচেক লেগে যেতে পারে করোনার প্রকোপকে নিয়ন্ত্রণে আনতে, এমনই আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন হু এর প্রধান বিজ্ঞানী সৌম্যা স্বামীনাথন। এর আগে বিজ্ঞানীদের একাংশ দাবি করেন, করোনা কতদিন স্থায়ী হবে, নির্দিষ্ট করে কোনও সময় বলা যায় না। সবটাই নির্ভর করছে কত তাড়াতাড়ি সংক্রমণ আটকানো যায় ও প্রতিষেধক আবিষ্কার হয়, তার উপর।

তিনি বলেন, সবটাই নির্ভর করছে ভাইরাস সময়ের সঙ্গে সঙ্গে পরিণত হচ্ছে কি না, কনটেনমেন্ট ঠিকভাবে করা যাচ্ছে কি না, এবং সর্বোপরি ভ্যাকসিন আবিষ্কার করা গেল কিনা।প্রতিষেধক আবিষ্কারের উপর জোর দিয়েও তিনি বলেন, যদিও তার সাফল্য ব্যাপারটি নির্ভর করে আছে অনেক যদি, কিন্তুর উপর। তার উপর প্রতিষেধক সকলের কাছে পৌঁছানের বিষয়টিও গুরুত্বপূর্ণ বিষয়।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বুধবার এমন কথা জানিয়ে বলেছে, কোভিড-১৯ হবে এইডসের মতো, যা কখনোই শেষ হওয়ার নয়। তাই এই ভাইরাসকে নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আসাই এখন সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ। দীর্ঘদিন ভাইরাসটির সংক্রমণ এভাবে ছড়াতে থাকলে তার ফল মারাত্মক হবে বলে সতর্ক করেছে সংস্থাটি।
হু জানাচ্ছে, এ থেকে মুক্তির উপায় টিকা আবিষ্কার। যদিও বা টিকা আবিষ্কার হয় তাহলেও সেটাকে ভীষণভাবে কার্যকরী হতে হবে এবং তার উৎপাদন এত হতে হবে যে তা মানুষের কাছে সহজলভ্য হতে পারে। তাই এমন এক পরিস্থিতিতে সব দেশকে, সব মানুষকে একসঙ্গে হাতে হাত মিলিয়ে, একে অপরের প্রতি বিশ্বাস রেখে এর থেকে মুক্তির উপায় খুঁজে বার করতে হবে। তবেই রক্ষা পাবে মানবসভ্যতা।

Show More

Related Articles

Back to top button
%d bloggers like this: