Nation

চক্রান্ত ! নাকি সত্যিই বাস্তবিক সংক্রমণ

২৩০ এর জায়গায় অবশিষ্ট মাত্র ১০০

পল্লবী : আমেরিকায় একটি বৃদ্ধাবাসে করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হল ৭০ জন বৃদ্ধের । ঘটনাটি ঘটেঠে ম্যাসাচুসেটসের একটি বৃদ্ধাবাসে । Holyoke Soldiers নামের বৃদ্ধাবাসে ক্রমেই লাফিয়ে লাফিয়ে বেড়েই চলেছে মৃতের সংখ্যা ।স্টেট ও ফেডারাল আধিকারিকরা এই মুহূর্তে এই বিষয়টি খুঁটিয়ে দেখছেন যে কেন হটাৎ করে এরূপ হরে সংক্রমণ ঘটলো ওই বৃদ্ধাবাসে। তারা দেখছে যে আবাসিক বৃদ্ধরা কী কেউই চিকিত্‍সা পরিষেবা নেওয়ার জন্য তৈরি হননি না হলে এখনকার পরিস্থিতি এরকম মর্মান্তিক হল কী করে । এটা খতিয়ে দেখে তবেই আইনি পদক্ষেপ নেওয়া হবে । ৬৬ জন ইতিমধ্যেই করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন , এরা কোনও সুযোগই পাননি । আরও একজনের মারা যাওয়ার কারণ খুঁজে পাওয়া যায়নি ।

এই বৃদ্ধাবাসের আরও ৮৩ জন আবাসিক ও ৮১ জন কর্মী সকলেই করোনা পজিটিভ । ‘ হোমের সুপারিনটেডেন্ট যে প্রশাসনিক ছুটিতে পাঠানো হয়েছে । তিনি অবশ্য জানিয়েছেন স্টেটের আধিকারিকরা মিথ্যা অভিযোগ তুলেছেন । সুপারিনটেন্ডেন্ট বেনেট ওয়ালশ জানিয়েছেন এই মাসের শুরুতে জানিয়েছেন হোমের অবস্থা সংকটজনক । সেখানে কর্মী কম ছিল আর সংক্রমণের প্রাথমিক লক্ষণ আছে বলে জানানো হয়েছিল ।
এই হোমে নার্সের দায়িত্ব পালনরত জোয়ান মিলার জানিয়েছেন কর্মী সংখ্যা কম থাকায় বিষয়টা আগুনের মতো গতিত ছড়িয়ে পড়েছে । এতটাই কর্মী সংকট ছিল যে এক ইউনিটের কর্মীরা অন্য ইউনিটে যেতে বাধ্য হচ্ছিলেন । ফলে ভাইরাসের সংক্রমণ ভয়ানক আকার নিয়ে নেয় । একটা সময় একটা ইউনিট বন্ধ করে দেওয়া হয়েছিল সেখানে কোনও কর্মী না থাকায় । প্রবীণদের সেখান থেকে সরিয়ে আরও কাছাকাছি করে বিল্ডিংয়ের অন্য প্রান্তে রাখা হয়েছিল ।

এক জন বৃদ্ধ আরেকজনের ওপরে থাকতেন । তাঁরা জানিয়েছেন কে পজিটিভ কে পজিটিভ নয় তা জানা ছিল না । তাঁরা এক গ্রুপে থাকতেন তার ফলে পরিস্থিতি আরও ভয়ানক হয়ে ওঠে । এরপরেই ঘটনা সর্বসমক্ষে আসে এবং শহর জুড়ে ছড়িয়ে পরে এক তাজ্যব চাঞ্চল্য। এই বৃদ্ধাবাসে ২৩০ জনের জায়গায় এখন মাত্র ১০০ জন এঁদের বেশিরভাগের শরীরেই করোনা ভাইরাস মৃদু ও মধ্যম মানের সংক্রমণ দেখাচ্ছিল । কারোর জ্বর ছিল কারোর কাশি যেটা অনেকের সারছিল বলে মনে হয় আবার অতি বৃদ্ধদের ক্ষেত্রে সেটা নিউমোনিয়ায় পরিণত হয়েছিল । বিভিন্ন বৃদ্ধদের অভিযোগ তাঁরা যখন তাঁদের আত্মীয়দের খবর নিতেন তখন এক একদিন এক একজন উত্তর দিত । আর হোমের প্রকৃত অবস্থাটা কেউই বলত না। এটা আমেরিকার অন্যতম প্রাচীন বৃদ্ধাবাস ছিল।

কেন ঘটলো এরূপ মর্মান্তিক এক ঘটনা। এটি কি সত্যিই কোনো সাধারণ সংক্রমণ নাকি কোনোরূপ আয় বিহীন এরূপ নাগরিকদের দায় মুক্ত হতেই ঘটানো হলো এই পৌশাচিক ঘটনা ? কারণ সাধারণভাবেই বৃদ্ধাবাসের বৃদ্ধরা খুব একটা কেউই বাইরে বেরোন না তাহলে কিভাবেই ছড়ালো সংক্রমণ। সেখানে কর্মরত কর্মীদের থেকে ছড়ালেও তার হার এরূপ গগনচুম্বী কিভাবে হয় ? উঠে আসছে নানান প্রশ্ন।

Show More

Related Articles

Back to top button
%d bloggers like this: