Nation

টুইট্যারেই একে অপরকে শানান রাজ্যপাল ও মহুয়া মৈত্র

প্রবাসী চিকিৎসককে নিয়ে মহুয়া মৈত্রের মন্তব্যকে অবাস্তব বলে দাবি রাজ্যপাল জগদীপের

@ দেবশ্রী : করোনার সঙ্কটময় পরিস্থিতিতেও চারিদিকে চলছ রাজনীতির খেলা। চলছে আক্রমন এর পর্যায়। কিছুদিন আগে, প্রবাসী বাঙালি চিকিত্‍সকদের আক্রমণ করায় তৃণমূল সাংসদ মহুয়া মৈত্রর পাল্টা সমালোচনা করলেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনকড়। এনআরআই চিকিত্‍সকদের নিয়ে কৃষ্ণনগরের তৃণমূল সাংসদের মন্তব্যকে ‘অদ্ভুত এবং অযৌক্তিক’ বলে মন্তব্য করেছেন রাজ্যপাল।

পশ্চিমবঙ্গের করোনা পরিস্থিতি ‘চূড়ান্ত বিরক্তিকর’ বলে দাবি করে সম্প্রতি মুখ্যমন্ত্রীকে খোলা চিঠি দিয়েছেন প্রবাসী বাঙালি চিকিত্‍সকদের একটা বড় অংশ। তাঁদের অভিযোগ ছিল, প্রথমত, পশ্চিমবঙ্গে চিকিত্‍সক ও স্বাস্থ্য কর্মীরা চূড়ান্ত সংকটে রয়েছে, তাঁদের ঠিকমত পিপিই দেওয়া হচ্ছে না। দ্বিতীয়ত, করোনার নমুনা কম পরীক্ষা হচ্ছে। তৃতীয়ত, করোনা আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা কম করে দেখানো হচ্ছে।

এরপরই টুইট করে ওই চিকিত্‍সকদের একহাত নেন সাংসদ মহুয়া মৈত্র। তিনি টুইটে লিখেছেন, ‘ওই প্রবাসী বাঙালিদের প্রতি আমার প্রশ্ন, অর্থনৈতিক ভাবে উন্নত দেশ হয়ে ইংল্যান্ড ও আমেরিকা, যে দেশগুলিকে আপনারা নিজেরা সাগ্রহে সাদরে গ্রহণ করে নিয়েছেন— সেখানে খুব খারাপ ভাবে করোনা মোকাবিলা করা হচ্ছে। সরকারের সংযোগ ব্যবস্থা খুবই বিপন্ন। পিপিই সরবরাহ করা হচ্ছে না, স্বাস্থ্যকর্মীরা রয়েছেন চূড়ান্ত সঙ্কটে। সেই বাস্তবচিত্র তুলে ধরে কেন ইংল্যান্ডের স্বাস্থ্যসচিব বা মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বা স্টেট গভর্নরদের এমন চিঠি লেখেন না? উত্তরটা আমি জানি। এখানে হিরো হওয়া অনেক সোজা। ঠিক তো?

কৃষ্ণনগরের তৃণমূল সাংসদের এই অবস্থান নিয়েই প্রশ্ন তুলেছেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়। মহুয়া মৈত্রের টুইট উদ্ধৃত করে তাঁর দাবি, এনআরআই চিকিত্‍সকদের নিয়ে তৃণমূল সাংসদের অবস্থান অদ্ভুত। রাজ্যপাল লিখেছেন, ‘স্তম্ভিত! অযৌক্তিক ! অনাবাসী ভারতীয় চিকিত্‍সকরা, কোভিড ১৯ মোকাবিলার জন্য এবং বাংলাকে সাহায্য করতে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সামনে কেবল উদ্বেগজনক কয়েকটি বিষয় তুলে ধরে চোখ খুলে দিতে চেয়েছিলেন।’

এই ট্যুইটের পরে, শুক্রবারই টুইটারে রাজ্যপাল জগদীপ ধনকড়কে কটাক্ষ ছুড়ে দিয়েছিলেন তৃণমূল সাংসদ মহুয়া মৈত্র। রাজ্যপালকে দিল্লি ফিরিয়ে নিয়ে লকডাউনে রাখার জন্য নরেন্দ্র মোদি এবং অমিত শাহকে অনুরোধ করেছিলেন তিনি। একদিকে চলছে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীর সাথে রাজ্যপালের চিঠির দেওয়া নেওয়া এবার শুরু হল টুইট্যার আক্রমনের খেলা।

Show More

Related Articles

Back to top button
%d bloggers like this: