Weather

ঠাণ্ডা- গরম- বৃষ্টি, আর সাথেই করোনা,এই সময়ে এসির আদর্শ তাপমাত্রা কত ডিগ্রিতে চালানো উচিত?কেন্দ্রের নির্দেশিকা

এসি থেকেও ছড়ায় সংক্রমণ, রুখতে কী কী করবেন জেনে নিন…

প্রেরনা দত্তঃ করোনার সময়ে এসির আদর্শ তাপমাত্রা ২৪ থেকে ৩০ ডিগ্রির ভেতরে, আপেক্ষিক আর্দ্রতা যেন থাকে ৪০-৭০ শতাংশ। নির্দেশিকায় বলা হয়েছে, এসি চলার সময় দেখতে হবে বাইরের হাওয়া অবশ্যই যেন অল্প হলেও ঢোকে, জানালা বা ঘুলঘুলি সামান্য ফাঁক রাখুন। আর্দ্রতা যেন ৪০ শতাংশের নীচে নেমে না যায় দেখবেন। দরকার পড়লে ঘরে একটা পাত্রে গরম জল রাখুন, জল বাষ্প হয়ে আর্দ্রতা ঠিক রাখতে সাহায্য করবে।

অন্যদিকে করোনা ড্রপলেটের মাধ্যমে ছড়ায়। কথা বলা, হাঁচি,কাশির ফলে যে ড্রপলেট তৈরি হয় তা আয়তনে প্রায় ৫ মাইক্রোমিটারের বেশি । এত বড় কণার পক্ষে এক মিটারের বেশি দূর পর্যন্ত যাওয়া খুব মুস্কিল। তাই সেটা এক মিটারের মধ্যেই থিতিয়ে পড়ে। বিজ্ঞানীদের মত, যে ড্রপলেটের এক মিটারের মধ্যে লুটিয়ে পড়ার কথা, এয়ার কন্ডিশনের বায়ুর প্রবাহ সেগুলোকে অনেকটা বেশি দূর পর্যন্ত টেনে নিয়ে

যেতে পারে। হলে কী করণীয়-
• এসি-র ব্যবহার বন্ধ করুন।
• সেন্ট্রাল এসি আছে, এমন জায়গা থেকে কোভিড-১৯-এর রোগীদের একটু দূরে রাখাই ভাল।
• সেন্ট্রাল এসি আছে এমন হাসপাতালে প্রতি দু’জন রোগীর মধ্যে দূরত্ব আরও একটু বাড়ানোর কথা ভাবা উচিৎ।
• এসি ডিপার্টমেন্টাল স্টোরগুলোতে নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিস কেনার সময় এসি-র ব্লোয়ার থেকে দূরে থাকার চেষ্টা করুন।

• একান্তই এসি চালাতে হলে অবশ্যই সার্ভিসিং করে তবেই এসি চালান। লকডাউনের বাজারে এসি সার্ভিসিংয়ের লোক পাওয়া একটু মুশকিলের। তাই যতটা নিজে পারা যায়, ততটা সেরে রাখুন। তার পর এসি চালান। দীর্ঘ দিন বন্ধ থাকার কারণে এর মধ্যে তৈরি হয়ে যায় অনেক ব্যাক্টিরিয়া, ছত্রাক। হঠাৎ করে চালিয়ে দিলে সেইগুলি ঘরের মধ্যে ছড়িয়ে পড়ে আর তার থেকে হতে পারে নিউমোনিয়া, সাইনোসাইটিসের মতো সমস্যা। যা এই সময় আরও বাড়িয়ে দিতে পারে আতঙ্ক।

• এসি চালালেও দিনের কোনও একটা সময় অন্তত জানালা দরজা খুলে দিন। সরিয়ে দিন পর্দা। ঘরে সূর্যের আলো আসতে দিন। ক্রস ভেন্টিলেশন হোক ঘরের মধ্যে।

Show More

OpinionTimes

Bangla news online portal.

Related Articles

Back to top button
%d bloggers like this: