Industry & Tread

ডাহা ফেল ,ভোডাফোন, এয়ারটেল , বিএসএনএল কিছুটা আছে জিও

সাধারণ মানুষ অতিষ্ঠ ,প্রতি দিনের ব্যবসায়ী মতলবে ক্ষতিগ্রস্থ উপভোক্তারা। সরকার চোখবুখে রয়েছে !

পল্লবী : বিধ্বংসী আমপানের জেরে বিপর্যস্ত হয়েছে একাধিক নেটওয়ার্ক। যোগাযোগ স্থাপন সম্ভব হচ্ছেনা কোনোভাবেই। চারদিন কেটে যাওয়ার পরেও কোনোরকম সুষ্ঠ কানেকশান না পাওয়ায় ক্ষিপ্ত জনতার বিক্ষোভ চোখে পড়েছে শহরের একাধিক জায়গায়। তবে, টেলি সংস্থাগুলির সংগঠন আশ্বাস দিয়েছিলো যে, বিধ্বস্ত এলাকায় রবিবারের মধ্যে পরিষেবা ৯০% ঠিক হয়ে যাবে। কিন্তু সেই প্রতিশ্রুতি পূরণ হয়নি তার সাধারণ মানুষের কথা থেকেই স্পষ্ট। এই দুর্যোগে এমন অনেক পরিবার আছে যাদের বয়স্ক মা বাবা অন্য জায়গায় এবং কাজের সূত্রে ছেলে মেয়েরা অন্য জায়গায় থাকে এক্ষেত্রে কোনো রকম যোগাযোগ স্থাপন না হওয়ায় নেটওয়ার্ক সংস্থা গুলির ওপর অসন্তুষ্ট হচ্ছে অনেকেই।

আবার একাংশের দাবি, ফোনে সব সময় সিগন্যাল না-থাকায় কথা বলা বা নেট দেখা যাচ্ছে না। তেমনই আবার এ দিন দোকানে কেনাকাটার আগে শুনতে হয়েছে, কার্ড বা অ্যাপ নির্ভর লেনদেন নয়, নগদেই মেটাতে হবে পণ্যের দাম। একই অবস্থা অনেক পেট্রল পাম্পেও। কাজেই বিপদে পড়েছে আমজনতা। যদিও বা এসেছে, অনেক সময়ে তা একটানা থাকেনি। কোথাও সিগন্যাল থাকলেও, হয় সংযোগ করা যায়নি বা কথার মাঝে লাইন কেটেছে।

সংস্থাগুলির দাবি, কিছু জায়গায় বিদ্যুত্‍ সংযোগ ফেরায় পরিষেবা চালু হচ্ছে। রাত পর্যন্ত প্রতিক্রিয়া মেলেনি সিওএআইয়ের। আর ক্যালকাটা টেলিফোন্স সূত্রের খবর, বিপর্যস্ত পরিকাঠামো সারাতে ইস্টার্ন টেলিকম প্রজেক্টসের বিশেষজ্ঞদেরও সংস্থার দলের সঙ্গে যুক্ত করা হয়েছে। মেরামতি শেষ করতে কর্মীদের রবি ও সোমবারের ছুটি বাতিল করা হয়েছে। বিএসএনএলের এক কর্তা জানান, বিদ্যুত্‍ ও জলের দাবিতে মানুষ বিক্ষোভ দেখানোয় কোথাও কোথাও ব্যাহত হয়েছে পরিষেবা চালুর কাজ। ভোডাফোন আইডিয়া জানিয়েছে, ঝড় কবলিত এলাকায় যাঁদের মোবাইলে পর্যাপ্ত টাকা নেই, টেলিকম দফতরের সিদ্ধান্ত মেনে সাত দিনের জন্য তাঁদের ফোন চালু রাখা হবে। তবে এই পরিস্থিতি থেকে এটাই স্পষ্ট যে এখন মানব সম্প্রদায় কতটা টেলফোনিক হয়ে উঠেছেন, কতটা প্রযুক্তি নির্ভর হয়ে উঠেছেন। মাত্র ৪ দিনের সংযোগ ব্যাহত থাকায় যেন বাঁচার অক্সিজেন টুকু পাচ্ছে না গোটা সম্প্রদায় !

Show More

Related Articles

Back to top button
%d bloggers like this: