Nation

দেশের প্রশাসন এতটা অসচেতন হলে নাগরিকরা কি করবে !

আবারো রাসায়নিক স্প্রে শ্রমিকের ওপর, তবে তা নাকি ভুল বসত

পল্লবী : করোনার সাথে সাথে প্রতিনিয়ত যে বিষয়টি সরকারের চিন্তা বাড়াচ্ছে তা হলো পরিযায়ী শ্রমিক। পরিস্থিতির শুরু থেকেই শ্রমিকদের নিয়ে নানান বিভ্রান্তি চলছে রাজনৈতিক মহলে। তবে এতে শ্রমিকদের ভোগান্তিও কিছু ক্ষেত্রে কম নয় ,বাড়ি ফেরার পথে কাড়াকাড়ি-মারামারি করে খেতে হচ্ছে খাবার। আর এবার আবারো রাসায়নিকে স্নান করানো হলো সেই পরিযায়ী শ্রমিকদেরই।

লখনউ শহরের চারবাগ স্টেশনের বাইরে এক যুবকের উপর ফের জীবাণুনাশক স্প্রে করে দিলেন পুরকর্মীরা। ফের ঘটনার নিন্দায় সরব হয়েছে নানা মহল। ওই যুবকের পরিচয় জানা যায়নি। তবে পুলিশ-প্রশাসনের অনুমান, ভিন রাজ্য থেকে পরিযায়ী শ্রমিকদের যে ট্রেন গিয়েছে, তাতেই ফিরেছিলেন ওই যুবক ও তাঁর পরিবারের লোকজন।

মোবাইলে তোলা ছ’সেকেন্ডের ভিডিয়োতে দেখা যাচ্ছে, এক যুবকের উপর জীবাণুনাশক স্প্রে করে দিচ্ছেন পুরকর্মীরা। শোনা যাচ্ছে এক মহিলার কাকুতি-মিনতি। কিন্তু সে সবে কর্ণপাত না করে ওই যুবককে ভিজিয়ে দেওয়া হল। তবে লখনউ পুর কর্তৃপক্ষের দাবি, ওই ঘটনা ইচ্ছাকৃত নয়, অসাবধানতাবশত হয়ে গিয়েছে। গাফিলতির অভিযোগে দুই কর্মীকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে। একটা শিশুও দেখে বলে দিতে পারবে যে এই কাজ ইচ্ছে বসত কি অসাবধানতাবশত।

তবে জীবাণুমুক্ত করার দায়িত্বে থাকা লখনউ পুরসভার অফিসার ইন্দ্রমণি ত্রিপাঠী বলেন, ”বাস জীবাণুমুক্ত করার কাজ চলছিল। হোসপাইপ চালু ছিল। একটি বাস জীবাণুমুক্ত করার পর অন্য বাসের দিকে যাওয়ার সময় মাঝখানে পড়ে যান ওই ব্যক্তি। এটা অনিচ্ছাকৃত।” তিনি আরও বলেন, ”গত এক মাস ধরে পুরসভার পক্ষ থেকে বাস জীবাণুমুক্ত করার কাজ চলছে। কিন্তু কখনও এই রকম ঘটনা ঘটেনি। ওই দুই কর্মীকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে। কারণ, অনিচ্ছাকৃত ভাবে ঘটনা ঘটলেও তাঁরা ভুল করেছেন।”

এই বর্ষণ নতুন নয় এর আগেও শ্রমিকদের উপর জীবাণুনাশক স্প্রে করতে দেখা গিয়েছিল উত্তরপ্রদেশে।তখন মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ তার নিন্দা করে বলেছিলেন, এই ধরনের ঘটনার যেন পুনরাবৃত্তি না হয়। কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রকও জানিয়ে দিয়েছে, শরীরে কোনওপ্রকার জীবাণুনাশক স্প্রে করা স্বাস্থ্যের পক্ষে ক্ষতিকর। কিন্তু তার পরেও একই ঘটনা ঘটল কেন ? যখন প্রতিটি বিষয় নিয়ে অত্যন্ত সাবধান সকলে তখন প্রশাসন এবং পুরকর্মীদের এরূপ অসাবধানতা কিসের জন্য ? এর উত্তর কি আছে তাদের কাছে।

Show More

Related Articles

Back to top button
%d bloggers like this: