Analysis

দেশে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৮৫ হাজার ছাড়িয়েছে, ৭৯% করোনা সংক্রমণই ৩০ পুর এলাকায়

সর্বাধিক ক্ষতিগ্রস্থ রাজ্য মহারাষ্ট্রে ১,৫৭৬ টি নতুন আক্রান্তের ঘটনা মিলেছে যাতে মোট আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে এখন ২৯,১০০

প্রেরনা দত্তঃ করোনা (COVID-19) আক্রান্তের সংখ্যার বিচারে সরকারিভাবে চিনকে টপকে গেল ভারত। শনিবার স্বাস্থ্যমন্ত্রকের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, দেশে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৮৫ হাজারের গণ্ডি পেরিয়েছে। যা চিনের থেকে অনেকটাই বেশি। চিনের থেকে অনেক দ্রুতহারে বাড়ছে ভারতের সংক্রমণও। যা রীতিমতো উদ্বেগের। কিন্তু এসবের মধ্যেও স্বস্তির খবর হল সংক্রমণ বাড়লেও, চিনের তুলনায় ভারতে মৃত্যুর হার অনেকটা কম এদেশে। মোট আক্রান্তের ৭৯ শতাংশই কিন্তু মাত্র ৩০ পুর অঞ্চলে সীমাবদ্ধ। সংক্রমণের পাশাপাশি মৃত্যুর নিরিখেও এগিয়ে এই পুর এলাকাগুলিতে। যার ফলে, কন্টেনমেন্ট জোন বাড়িয়ে, সংক্রমণ প্রশমিত করার চেষ্টা হচ্ছে।

রাজ্যে করোনা আক্রান্ত কেউ নেই তো কী হল! স্রেফ ঝুঁকি এড়াইতেই করোনা লকডাউনের মেয়াদ ৩১ মে পর্যন্ত বাড়িয়ে দিল মিজোরাম সরকার। রাজ্যের এক পদস্থ আধিকারিক জানিয়েছেন, সংক্রমণ যাতে কোনও ভাবেই না ছড়ায়, তার জন্য এই সিদ্ধান্ত।

ভারতে করোনায় মৃত্যুর হার অবশ্য চিনের চেয়ে কম। চিনে মারা গিয়েছেন ৫.৫ শতাংশ করোনা আক্রান্ত। ভারতে মৃত্যু হয়েছে ৩.২ শতাংশের। এদেশে সেরে উঠেছেন ২৭ হাজার মানুষ।বিশ্ব জুড়ে ৪৪ লক্ষ মানুষ করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। তাঁদের এক তৃতীয়াংশ আমেরিকার বাসিন্দা। বিশ্ব জুড়ে করোনায় মারা গিয়েছেন ৩ লক্ষ মানুষ। প্রতিদিন ২ লক্ষ মানুষ ওই রোগে আক্রান্ত হচ্ছেন।

সর্বাধিক ক্ষতিগ্রস্থ রাজ্য মহারাষ্ট্রে ১,৫৭৬ টি নতুন আক্রান্তের ঘটনা মিলেছে যাতে মোট আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে এখন ২৯,১০০, যার মধ্যে ১,০৬৮ জন মারা গেছেন। তামিলনাড়ু ৪৩৪ টি নতুন আক্রান্তের ঘটনা সামনে এসেছে এবং মোট আক্রান্তের সংখ্যা ১০,০০০ অতিক্রম করেছে, এবং গুজরাটে আরও ৩৪০ জন কোভিড-১৯ পজিটিভ, যার ফলে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে ৯,৯৩২।

চিনের শহর উহান, অর্থাৎ মারাত্মক এই ভাইরাসের কেন্দ্রস্থনে নতুন করে আক্রান্ত হওয়ার কিছু ঘটনা প্রকাশিত হওয়া সত্ত্বেও, এই মুহূর্তে সেদেশে ১০০ জনেরও কম মানুষ কোভিড-১৯-এর চিকিত্সাধীন। COVID-19 এর কারণে চিনে ৪,৬৩৩ জন মারা গেছেন, তবে সেরে উঠেছেন ৭৮,০০০ এরও বেশি মানুষ।

Show More

Related Articles

Back to top button
%d bloggers like this: