Big Story

নজর রাখছে পুলিশের অদৃশ্য চোখ ড্রোন , সাথেই বিভিন্ন জায়গা ঘুরে দেখল কেন্দ্রীয় প্রতিনিধি দল

এ রাজ্যে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরে এসেছেন ১০৫ জন। হোম কোয়ারেন্টাইনে আছেন ২৩ হাজার ৬১৮ জন।

প্রেরনা দত্তঃ লকডাউনের মধ্যেই অনেকে বিধি নিষেধ মানছে না।আর তাঁর মধ্যেই করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ক্রমশই বেড়ে ছলেছে।তাই কলকাতায় কেউ লকডাউন অমান্য করছে কিনা সেদিকে নজর রাখতে এতদিন ঘনঘন টহল দিয়েছে পুলিশের গাড়ি। কিন্তু এখন রাস্তায় পুলিশ গাড়ির টহলদারি কখনও কম দেখলে ভাববেন না পুলিশি নজরদারি কমে গিয়েছে। কারণ এখন থেকে আকাশ পথে ড্রোন উড়িয়ে মানুষের গতিবিধির ওপর নজর রাখবে লালবাজার। ইতিমধ্যেই শুরু হয়ে গিয়েছে ড্রোনে নজরদারির প্রক্রিয়া।

রাজ্যে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হল ৫২৪। ২৪ ঘণ্টায় করোনা আক্রান্ত ৩৮ জন। এখনও পর্যন্ত করোনায় রাজ্যে মৃত্যু হয়েছে ৩৮ জনের। তবে তার মধ্যে আশার আলো, সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরে এসেছেন ১০৫ জন। হোম কোয়ারেন্টাইনে আছেন ২৩ হাজার ৬১৮ জন। পরিসংখ্যান দিয়ে জানাল প্রশাসন।
রবিবার সকাল থেকেই সংক্রামিত এলাকাগুলিতে রয়েছে কড়া নজরদারি। এদিন সকালে বারাসতে সংক্রমিত এলাকায় কড়া নজর রাখতে ওড়ানো হল ড্রোন। এইসময় উপস্থিত ছিলেন বারাসাত পুলিশ জেলার এসপি অভিজিৎ বন্দ্যোপাধ্যায়। লকডাউন উপেক্ষা করায় ১৭৬ জনকে গ্রেফতার করে পুলিশ। মধ্যমগ্রামে চলে নাকা চেকিং। নজরদারিতে ছিল র্যাফ, পুলিস ফোর্স।

লকডাউন চলাকালীন কারা রাস্তায় বেরচ্ছেন, কোন কোন এলাকায় মানুষ লকডাউন উপেক্ষা করে রাস্তায় বের হচ্ছেন, কোথায় পুলিশি নজরদারি এড়িয়ে বিভিন্ন দোকান খোলা হচ্ছে বা জটলা তৈরি হচ্ছে সেদিকে নজর রাখতে এবার ড্রোনের উপর ভরসা রাখল লালবাজার। মূলত যে সমস্ত এলাকায় বারবার মানুষকে সতর্ক করার পরেও রাস্তায় বেরনো রোখা যাচ্ছে না, সেই এলাকাতেই ওড়ানো হচ্ছে ড্রোন।
এদিকে, লকডাউনের পরিস্থিতি খতিয়ে দেখতে এদিন সকাল থেকেই কলকাতার বিভিন্ন এলাকা পরিদর্শন করল কেন্দ্রীয় প্রতিনিধি দল। খিদিরপুর ও বেহালা ট্রাম ডিপো এলাকা পরিদর্শন করেন। সেখানে গাড়ি থেকে নেমে এলাকার ছবিও তোলেন তাঁরা। হাওড়া এলাকাও পরিদর্শন করে কেন্দ্রীয় প্রতিনিধি দল। সালকিয়া, পিলখানা, গোলাবাড়ি এলাকা ঘুরে হাওড়া ব্রিজ হয়ে কলকাতায় চলে যান তাঁরা।

Show More

OpinionTimes

Bangla news online portal.

Related Articles

Back to top button
%d bloggers like this: