Nation

নয়া সংঘাতের সূত্রপাত এবার মাউন্টএভারেস্ট

ব্যবসায়িক লাভের জন্যই চিন সম্পূর্ণ দখল চায়

পল্লবী : তবে কি এবার মাউন্ট এভারেস্ট নিয়েই বিরোধ আরো বাড়বে ? চিনের সরকারি খবরের চ্যানেল সিজিটিএন মাউন্ট এভারেস্টের একটি ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করে এদিন। তিব্বতের দিকের মাউন্ট এভারেস্টের মাথায় সূর্যরশ্মির অপূর্ব বলয় দেখা গিয়েছে সে ছবিতে। সেই ছবির দৃশ্য মন ভোলানো হলেও তার ক্যাপশান যে বেজায় জটিল। চিন ওই ছবির ক্যাপশনে লিখেছে, ‘সূর্যের এক অদ্ভুত বলয় দেখা গিয়েছে মাউন্ট কোমোলাংগমার মাথায়, যা মাউন্ট এভারেস্ট নামেও পরিচিত। তার ওপরের আকাশে এ দৃশ্য দেখা যায়। এটা চিন-তিব্বত স্বশাসিত অঞ্চলে অবস্থিত বিশ্বের সর্বোচ্চ শৃঙ্গ।’

এর আগেও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মানচিত্রে চিনের অংশে রয়েছে ভারতের লাদাখের একাংশ। জানা গেছিল, চিনের ম্যাপে তেমনটাই রয়েছে। অর্থাত্‍ ওই অংশটিকে, যা আকসাই চিন নামে পরিচিত, তাকে নিজের অংশ হিসেবে দেখিয়েই মানচিত্র তৈরি করেছে তারা। তখনি একটা বিতর্কের সৃষ্টি হয়েছিল। ফের একই কাণ্ড ঘটাল চিন। কূটনৈতিক বিশেষজ্ঞদের মতে, ১৯৬০ সালে নেপাল ও চিনের মধ্যে যে চুক্তি সাক্ষরিত হয়, তাতে মাউন্ট এভারেস্টকে দুই দেশের মধ্যে ভাগ করা হয়েছিল। ঠিক হয়েছিল, শৃঙ্গের দক্ষিণ অংশটি থাকবে নেপালের অধিকারে, আর উত্তর দিক থাকবে চিন-তিব্বত স্বশাসিত অঞ্চলের আওতায়। যদিও সেই অংশকেও বরাবরই নিজেদের বলে দাবি করে এসেছে চিন।

বিশেষজ্ঞরাও বলছেন, এটা নতুন কিছু নয়। চিন বরাবরই তিব্বত ও এভারেস্টের দখল পেতে মরিয়া। চিনের দিকের এভারেস্টের অংশ অর্থাত্‍ নর্থ কল আরোহণের জন্য বেশ কঠিন। তাই নেপালের দিকের অংশ অর্থাত্‍ সাউথ কল বেশি ব্যবহৃত হয় অভিযাত্রীদের আরোহণের জন্য। পর্যটন ব্যবসাও হয় মূলত ওই রুটটি থেকেই। সেই ব্যবসাও নিজেদের দিকে আনতে চাইছে চিন। প্রমাণ করতে চাইছে, মাউন্ট এভারেস্ট তাদেরই দেশের শৃঙ্গ। পাশাপাশি সম্প্রতি এভারেস্টে ৫জি নেটওয়ার্ক পরিষেবা চালু করেছে চিন। পর্বতারোহীদের বাকি বিশ্বের সঙ্গে যোগাযোগ রক্ষার উদ্দেশ্যে এই উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে তারা। ফলে এভারেস্ট জয় পর্বতারোহীদের জন্য আগের থেকে অনেক সুরক্ষিত হবে বলে দাবি চিনের।

এভারেস্ট জয়ের উদ্দেশ্য ছাড়াও অনেক পর্যটকরাও গিয়ে থাকেন। আর এই যাত্রা তুলনামূলক বেশি হয় নেপালের দিকের অংশ থেকেই। তাই চীনের সম্পূর্ণ এভারেস্ট দাবির পেছনে একটা ব্যবসায়িক স্বার্থ যে রয়েছেই তা স্পষ্টভাবেই বোঝা যাচ্ছে। করোনা আবহে নয়া বিতর্ক এবার এভারেস্ট নিয়ে।

Show More

Related Articles

Back to top button
%d bloggers like this: