Nation

পথ দুর্ঘটনায় আবারও পরিযায়ী শ্রমিকদের মৃত্যু, মারা যান ৫ জন !

প্রত্যহ দুর্ঘটনার খবর, বাড়ি ফেরার পথেই মারা যাচ্ছেন পরিযায়ী শ্রমিকেরা

@ দেবশ্রী : পরিযায়ী শ্রমিকদের জীবন কী এইভাবেই চলে যেতে থাকবে ? তাঁদের আর বাড়ি ফেরা হবে না ? আবারও দু-দু’টি পথ দুর্ঘটনায় মৃত্যু হল অন্তত ৫ জন অভিবাসী শ্রমিকের। তাঁদের মধ্যে তিন জন মহিলা রয়েছেন। দু’টি ঘটনাই সেই উত্তরপ্রদেশের। সোমবার রাতে ঝাঁসি-মির্জাপুর জাতীয় সড়কে ট্রাক উল্টে মর্মান্তিক দুর্ঘটনায় তিন জন মহিলা শ্রমিকের মৃত্যু হয়। এবং আর একটি দুর্ঘটনা ঘটে আগ্রা-লখনউ জাতীয় সড়কের উপর, উন্নাওয়ের। ট্রাকে করে আজমগড়ে ফেরার সময়ে মারা যান আরও দু’জন শ্রমিক। আহত হয়েছেন ২৩ জন। পুলিশ জানিয়েছে, প্রথম ঘটনায় প্রচণ্ড গতিতে ছুটে আসা ট্রাকটির টায়ার বার্স্ট করে হঠাত্‍ই। ট্রাকটিতেই ছিলেন শ্রমিকরা। প্রাথমিক তদন্তে জানা গেছে ১৭ জন ছিলেন তাঁরা। তিন জন মহিলা মারা গেছেন, ১২ জন গুরুতর আহত অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

জানা গেছে, উত্তরপ্রদেশের বাসিন্দা ১৭ জন শ্রমিকের ওই দলটি দিল্লিতে কাজ করতেন। কিন্তু আচমকা লকডাউনে বন্ধ হয়ে যায় তাঁদের রোজগার। থাকা-খাওয়া অনিশ্চিত হয়ে পড়ে। দেশের আরও হাজার হাজার পরিযায়ী শ্রমিকের মতোই বাড়ি ফেরার চেষ্টা করেন তাঁরা। কোনও উপায় না করতে পেরে, এত দিন অপেক্ষা করার পরে দিল্লি থেকে হাঁটা শুরু করেন তাঁরা। এরপর মাঝপথে তাঁরা একটি ট্রাক দেখতে পেয়ে উঠে পড়েন। ট্রাকের চালক তাঁদের গ্রামে পৌঁছে দেওয়ার আশ্বাস দেন। কিন্তু গ্রামে আর পৌঁছনো হল না তাঁদের। মাঝ পথেই ঘটে গেল দুর্ঘটনা। আচমকা সামনের একটি চাকা বার্স্ট করে যায় ট্রাকটির। নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে মারাত্মক দুর্ঘটনা ঘটায় সেটি। দুর্ঘটনায় ঘটনাস্থলেই মারা যান ৩ মহিলা।

উন্নাওয়ের ট্রাকটিতেও ছিলেন বহু শ্রমিক। সেখানে মারা যান দু’জন। আহত ২৩ জনকে ইতিমধ্যে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। পরিসংখ্যান বলছে, গত ১০ দিনে কমপক্ষে ৫০ জন পরিযায়ী শ্রমিকের কাজ হারিয়ে বাড়ি ফিরতে চেয়ে দুর্ঘটনার কারণে মৃত্যু হয়েছে। গত শনিবারই, উত্তরপ্রদেশের আউরাইয়া জেলায় দু’টি ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষে ২৬ জন শ্রমিক মারা যান এবং ৩০ জন আহত হন। তার পরে আরও তিনটি পৃথক পথ দুর্ঘটনায় মারা যান কম করে ১০ জন শ্রমিক। প্রশ্ন উঠছে এইভাবে আর কত শ্রমিকের প্রাণ যাবে ?

Show More

Related Articles

Back to top button
%d bloggers like this: