Big Story

পায়েলের ভোট প্রচারে বাধা, গায়ে হাত তোলা হয়েছে বলেও অভিযোগ

এই ঘটনার জেরে বিজেপির মহিলা কর্মীসহ ১০ থেকে ১৫ জন আহত হয়েছেন বলে জানা গিয়েছে

মধুরিমা সেনগুপ্ত: সামনেই বিধানসভা নির্বাচন। ইতিমধ্যেই বিভিন্ন দলদল ভোটার প্রচারে ব্যস্ত। তার মধ্যেই এদিন অভিযোগ উঠলো বিজেপির হয়ে ভোট প্রচারের সময় পায়েল সরকারকে বাধা দেয়া হয়েছে এবং তার সাথে দলীয় কর্মীদের উপরে হাত তোলারও অভিযোগ করা হয়েছে। জানা যাচ্ছে, আজ সকালে বেহালা পূর্বের ভারতীয় জনতা পার্টির তারকা প্রার্থী পায়েল সরকার যখন প্রচার করছিলেন, সেই সময় ১৪৪ নম্বর ওয়ার্ডে ঠাকুরপুকুর থানার অন্তর্গত চেকপোস্টে তৃণমূল কংগ্রেসের কর্মী সমর্থকরা আচমকাই তাদের উপর হামলা চালায় বলে অভিযোগ ওঠে। তারপরে তারা চেকপোস্টের কাছে তারা রাস্তা অবরোধ করে বলেও সূত্র অনুযায়ী খবর। ঘটনাস্থলে ঠাকুরপুকুর থানার পুলিশ সত্বর যায়। ক্রমশ দুপক্ষের মধ্যে ঝামেলা শুরু হওয়ার পর দুপক্ষই ঠাকুরপুকুর থানার সামনে আসে এবং এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে এলাকায় উত্তেজনা ছড়িয়ে পরে। এই ঘটনার জেরে বিজেপির মহিলা কর্মীসহ ১০ থেকে ১৫ জন আহত হয়েছেন বলে জানা গিয়েছে।

বিজেপির অভিযোগ, গণতান্ত্রিক দেশে সংখ্যালঘু এলাকায় ভোট প্রচার করতে নামলে বাধা দিচ্ছে শাসক দল। তাদের বক্তব্য, ‘২৮০ নম্বর বুথ নির্বাচন কমিশনের কাছে জানানো আছে সুপার সেন্সিটিভ এলাকা। এবং সংখ্যালঘু ভোটার এলাকা এখানে ভোট হয় না। আমাদের গণতান্ত্রিক অধিকার আমরা প্রার্থীকে নিয়ে ভোট প্রচারে যাবো।’ প্রচার করার সময়েই তাদের দলীয় কর্মীদের ওপর এবং প্রার্থীর উপর আক্রমন করা হয়েছে বলে বিজেপির তরফে অভিযোগ। এই ঘটনার জেরে এদিন ঠাকুরপুকুর থানায় ধরনা দেন পায়েল সরকার ও বিজেপির বাকি কর্মীরা।

সূত্রের খবর, ইতিমধ্যেই ঠাকুরপুকুর থানায় এই বিষয়ে একটি অভিযোগও দায়ের করেছেন বেহালা পূর্বের ভারতীয় জনতা পার্টির তারকা প্রার্থী পায়েল সরকার। অন্যদিকে, এই অভিযোগ উড়িয়ে দিয়েছেন বিরোধীপক্ষের তৃণমূল কংগ্রেস প্রার্থী রত্না চট্টোপাধ্যায়। তৃণমূলের তরফে অভিযোগ যে বিজেপি প্রার্থীরাই তাদের উপরে চড়াও হয়। পাশাপাশি ও বলা হয় গত এক মাস ধরে প্রচারে কোনও সমস্যা হয়নি এলাকায়, কিন্তু ভোটের পাঁচ দিন আগে এলাকায় অশান্তি ছড়ানোর চেষ্টা চালানোর জন্যই বিজেপি এধরণের ঝামেলার সৃষ্তি করছে বলে অভিযোগ।

Show More

Related Articles

Leave a Reply

Back to top button
%d bloggers like this: