Big Story

প্রবল গরম, খিদে ও জলশূন্যতার কষ্টে মৃত্যু হচ্ছে পরিযায়ী শ্রমিকদের, কিন্তু তাদের মৃত্যুর ঘটনাকে “ছোট এবং বিক্ষিপ্ত’’ বললেন দিলীপ ঘোষ

এহেন মন্তব্যকে ‘অসংবেদনশীল' বলে কটাক্ষ করল বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলি।

প্রেরনা দত্তঃ শ্রমিক স্পেশাল ট্রেনে পরিযায়ী শ্রমিকদের মৃত্যুর ঘটনা ‘ছোট এবং বিক্ষিপ্ত’। এর জন্য ভারতীয় রেলকে দায়ী করা যায় না। বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ বৃহস্পতিবার এমনই দাবি করলেন। তাঁর এহেন মন্তব্যকে ‘অসংবেদনশীল’ বলে কটাক্ষ করল বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলি। রেলের উদাসীনতায় বহু পরিযায়ী শ্রমিক ও তাঁর পরিজন শ্রমিক স্পেশ্যাল ট্রেনে ঘরে ফেরার সময় মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ছেন। যা চোখে জল এনে দিচ্ছে দেশবাসীর। কিন্তু এমন স্পর্শকাতর ইস্যুকে ছোট-বিক্ষিপ্ত ঘটনা তকমা দিয়ে সমালোচনার মুখে বিজেপি নেতা দিলীপ ঘোষ।

স্টেশনে পড়ে থাকা মায়ের মৃতদেহ। গায়ের চাদর ধরে জাগানোর চেষ্টা করছে শিশু। বিহারের মুজফ্ফরপুর স্টেশনের এই মর্মান্তিক ছবি বহুকাল ভারতবাসীকে নাড়া দেবে। এ মৃত্যু উপত্যকাই আমার দেশ, মর্মান্তিক ভিডিও শেয়ার করে এই বার্তাই দিচ্ছে নাগরিক সমাজ।

প্রবল গরম, খিদে ও জলশূন্যতার কষ্ট বাড়ি ফিরতে মরিয়া পরিযায়ী শ্রমিকদের জীবন আরও দুর্বিষহ করে তুলেছে। সোমবার থেকে ন’জন পরিযায়ী শ্রমিকের মৃত্যুর খবর মিলেছে। তার মধ্যে একটি শিশুও রয়েছে। এই পরিস্থিতিতে সাংবাদিকদের দিলীপ ঘোষ বলেন, ‘‘কিছু দুর্ভাগ্যজনক ঘটনা ঘটেছে। কিন্তু এর জন্য আপনারা রেলকে দায়ী করতে পারেন না। পরিযায়ী শ্রমিকদের গন্তব্যে পৌঁছে দিতে তারা তাদের সেরাটা দিচ্ছে। কিছু মৃত্যু হয়েছে। কিন্তু এগুলি বিক্ষিপ্ত ঘটনা।”

তিনি আরও বলেন, ‘‘যাত্রী পরিষেবায় কীভাবে নিজেদের সেরাটা দিচ্ছে রেল, সেই উদাহরণ আমাদের কাছে রয়েছে। কিছু ছোট ঘটনা ঘটেছে। কিন্তু তার অর্থ এই নয় যে আপনি রেল বন্ধ করে দেবেন।”

দিলীপ ঘোষের এই মন্তব্যের সমালোচনা করেছে তৃণমূল থেকে সিপিএম সবাই। তারা বিজেপি নেতাকে মন্তব্যের ব্যাপারে আরও সংবেদনশীল হওয়ার পরামর্শ দিয়েছে। তাদের অভিযোগ, পরিযায়ী ইস্যু তৈরি হয়েছে কেন্দ্রের ভুল পদক্ষেপের জন্য। মন্তব্য করার আগে দিলীপ ঘোষের আরও সতর্ক হওয়া উচিত বলে মন্তব্য করেছে তৃণমূল সাংসদ সৌগত রায়।

নিজের গ্যাঁটের কড়ি খরচ করে টিকিট কাটতে হচ্ছে। তার ফলে রেল না দিচ্ছে খাবার না জল। যার ফলে দীর্ঘ পথ ট্রেনে যাওয়ার সময় মৃত্যু হচ্ছে পরিযায়ী শ্রমিকদের। তেমনই হয়েছে বিহারের মুজাফ্ফরপুর স্টেশনে। এর জন্য রেলের উদাসীনতাকেই কাঠগড়ায় তুলেছে সবাই। এই মন্তব্যের পরই নিন্দার ঝড় উঠেছে সবমহলে। অনেকেই প্রশ্ন তুলেছেন, কেন্দ্রে বিজেপির সরকার না থাকলে রেলের এই উদাসীনতাকে তখনও ছোট-বিক্ষিপ্ত ঘটনা বলতে পারতেন তো দিলীপবাবুরা? তখন তো পথে নেমে অবরোধ-বিক্ষোভে শামিল হতেন বিজেপি নেতারা।

সিপিএমের পলিটব্যুরো নেতা মহম্মদ সেলিম তীব্র নিন্দা করে বলেছেন, ‘পরিযায়ীদের হাহাকার প্রমাণ করে দিচ্ছে মানুষের জীবনের কোনও মূল্য নেই মোদি সরকারের কাছে। দিলীপ ঘোষদের মতো নেতারা যাই হোক না কেন বারবার বলবেন, বিজেপির আমলে সব ঠিক হচ্ছে। এরা লজ্জা-শরম খেয়ে বসে আছে।’

ফের শ্রমিক স্পেশাল ট্রেন থেকে উদ্ধার পরিযায়ী শ্রমিকের দেহ। মাত্র কয়েকদিনের ব্যবধানে এবার উত্তরপ্রদেশের ঝাঁসি স্টেশনে ট্রেনের শৌচাগার থেকে উদ্ধার পরিযায়ী শ্রমিকের মরদেহ। সাফাইকর্মীরা ট্রেনে কাজ করতে গিয়ে শৌচালয়ে শ্রমিকের মরদেহ দেখতে পান। মরদেহটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানো হয়। মৃত পরিযায়ী শ্রমিক উত্তরপ্রদেশের বাসিন্দা।

Show More

Related Articles

Back to top button
%d bloggers like this: