Big Story

বিজেপি সমর্থকদের বিরুদ্ধে শ্লীলতাহানির অভিযোগে রাজনৈতিক রং লাগতেই উত্তপ্ত মানিকতলা; গ্রেপ্তার ৫

তৃণমূল মিথ্যে অভিযোগ দিয়ে বিজেপি কর্মীদের জেলে ঢোকাতে চাইছেন বিজেপির

শর্মিষ্ঠা বিশ্বাস: ভোট প্রস্তুতি পর্বে প্রায় মাস দুয়েক আগে মানিকতলা বিধানসভা এলাকাতে শুভেন্দু অধিকারীর সভার পর ইটবৃষ্টির অভিযোগ উঠেছিল তৃণমূলের বিরুদ্ধে। বেশ কয়েকজন বিজেপি কর্মীর মাথাও ফেটেছিল ওই হামলায়। এবার সপ্তম দফার ভোটের আগেই ফের উত্তপ্ত হয়ে উঠলো মানিকতলা। মানিকতলা থানায় ফল ব্যবসায়ী ও তার আত্মীয়দের বিরুদ্ধে শ্লীলতাহানির অভিযোগ দায়ের করেন দুই মহিলা। অভিযোগ, শনিবার রাতে মানিকতলার মুরারিপুকুর বাজারে বাজার করতে গেলে এক ফল বিক্রেতা ও তার আত্মীয়রা ওই মহিলাকে জড়িয়ে ধরেন, শ্লীলতাহানির চেষ্টা করেন, অপরজন বাধা দিতে গেলে তার ওপরের আঁচ আসে। অভিযুক্তরা বিজেপি সমর্থক বলেই অভিযোগ করেছেন ওই দুই তৃণমূল মহিলা কর্মী।

একেই মানিকতলার ১৪ নং ওয়ার্ডে একই এলাকায় দুই দলের সভা হওয়া নিয়ে তেতে ছিল এলাকা। এরপর শ্লীলতাহানির ঘটনা নিয়ে থানায় অভযোগ দায়ের করতে গেলে তৃণমূল সমর্থকদের সাথে বিজেপির সমর্থকরাও থানার সামনে জড়ো হয়। কথায় কথায় শুরু হয় মারপিট। বিজেপির তৃণমূলের হাত থেকে বাঁচতে থানার ভেতরেই আশ্রয় নেয়। বিজেপি কর্মীরা পুলিশের গাড়িও ভাঙচুর করে। ঘটনায় প্রায় ৫ জন কে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

তৃণমূলের তরফ থেকে ওঠা অভিযোগের সাথে বিজেপি কোনোভাবেই জড়িত নয় বলে দাবি করে, বিজেপি তৃণমূলের ওপর পাল্টা অভিযোগ ছুড়ে দেয়। বিজেপি প্রার্থী কল্যাণ চৌবে বলেন, ” ‘কোভিড বিধি মেনে ২০০টি চেয়ার রেখে আমাদের সভা হচ্ছিল। পৌঁছে দেখি সেখানে আমাদের ঝান্ডা সরিয়ে তৃণমূল তাদের ঝান্ডা লাগিয়ে দিয়েছে। আমাদের সভাস্থলে ওদের মাইকও লাগিয়ে দেয়। পুলিশকে বলি তৃণমূলের মাইকটা বন্ধ রাখার জন্য।’ তৃণমূল মিথ্যে অভিযোগ দিয়ে বিজেপি কর্মীদের জেলে ঢোকাতে চাইছেন। তবে তৃণমূল কর্মীরা এ দাবিও খারিজ করে।তৃণমূল প্রার্থী কুনাল ঘোষের বক্তব্য, ‘আমাদের চার হাজার লোক ছিল। আর ওদের লোক ছিল ৩৫জ ন। আমাদের ছেলেরা সংযত ছিল। কোনও গণ্ডগোল করেনি।’

Show More

Related Articles

Leave a Reply

Back to top button
%d bloggers like this: