Analysis

বিমান পরিষেবা চালু আদৌ কি বুদ্ধিমানের কাজ হলো, হিসেবে তো তা বলছে না !

বিমান চালু হতেই গত চারদিনে প্রায় ২৩জন যাত্রী আক্রান্ত হয়েছেন করোনা ভাইরাসে

পল্লবী : ইতিমধ্যেই চালু হয়েছে বিমান পরিষেবা। অর্থনীতিকে সচল রাখতে সাবধানতা অবলম্বন করেই সামান্য শিথিলতার পথে হাটছে দেশ। কিন্তু এতে বিপদ বাড়লো বই কমলো না। বিমান চালু হওয়ার পর থেকেই বেড়েছে সংক্রমণের হার, বলছে পরিসংখ্যান। সূত্রের নিরিখে জানা যাচ্ছে, গত চারদিনে প্রায় ২৩জন যাত্রী আক্রান্ত হয়েছেন করোনা ভাইরাসে। গন্তব্যে পৌঁছে বিমানবন্দরে নামার পরে পরীক্ষা করে তাঁদের সংক্রমণ ধরা পড়েছে বলে খবর। তাদের সঙ্গে আর কোন কোন যাত্রী ছিলেন খোঁজ চালানো হচ্ছে। সেই সব বিমান সংস্থার বিমানসেবিকাদের কোয়ারেন্টাইনে পাঠানো হয়েছে। আক্রান্তদের সঙ্গে থাকা বেশ কয়েকজন যাত্রীর খোঁজ মিলেছে। তাঁদের স্ক্রিনিং হয়েছে, কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে।

প্রথম দিনে ইন্ডিগো বিমানে এক যাত্রীর শরীরে করোনা ধরা পড়ে। ২৩ বছর বয়সী ওই ব্যক্তিকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। জানা গিয়েছে, ওই বিমানের ৯০ জন যাত্রীর করোনা পরীক্ষা হয়েছে, প্রত্যেকেরই রিপোর্ট নেগেটিভ হয়েছে। প্রত্যেককে হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে। ওই বিমানটিকে ১৪ দিন পরে ওড়ানো হবে। এয়ারক্রাফট ডিস-ইনফেক্ট করে তবেই ওড়ানো হবে। এয়ারলাইনসের তরফ থেকে জানানো হয়েছে আক্রান্ত ওই যাত্রীর ফেস মাস্ক, গ্লাভস ও ফেস শিল্ড সবই ছিল। তাছাড়া ওই ব্যক্তির পাশে কেউ বসেননি। ফলে সংক্রমণের আশঙ্কা কমই রয়েছে। বৃহস্পতিবার সকালে ইন্ডিগো বিমান সংস্থায়এক যাত্রীর করোনা ভাইরাস ধরা পড়ে। বেঙ্গালুরু থেকে মাদুরাই সফর করেছিলেন তিনি। ওই যাত্রী অ্যাসিম্পট্যোম্যাটিক ছিলেন বলে খবর।

চতুর্থ দফার শেষেই কি ইতি হবে ? দেশের পরিসংখ্যান তো তাই বলছেনা মোটেই। দুমাস পর বিমান চালুর সিদ্ধান্ত কি আদৌ বুদ্ধিমানের কাজ হলো এবার সেটাই ভাবাচ্ছে। সোমবার পরিষেবা চালু হওয়ার পরই ৩৯০০০ জন যাত্রী সফর করেছেন। অন্যদিকে, দেশে ফিরছে পরিযায়ী শ্রমিকেরা তাদের ফেরাতেও বাড়ছে সংক্রমণ। এই অবস্থায় কি করণীয় ? এবার সকলের মাথাতেই চিন্তার ছাপ স্পষ্ট।

Show More

Related Articles

Back to top button
%d bloggers like this: