Analysis

যুদ্ধের কৌশলই শরদ পওয়ার সুপার CM মহারাষ্ট্রে : বুড়ো হাড়ে ভেলকি !

বাম ও বিজেপি দল গুলোতে বেশ কয়েক বছর ধরেই একটা চাপা অভিযোগ যে বয়স বাড়ছে চেয়ার ছাড়ছে। দলে আনতে হবে যৌবন , তারাই আগামী। এই সূত্রের বিপরীতে শরদ পওয়ার নতুন বার্তা দিলেন দেশের রাজনীতিতে।

নগর কীর্তন : এনসিপি প্রধান শরদ পওয়ার বেশ কয়েকবার বিজেপির শীর্ষ্য নেতৃত্বের সাথে বৈঠক করেছেন , অনেকেই ভেবে ছিলেন হিসেবে অন্য দিকে যাচ্ছে। কিন্তু ৩৬০ ডিগ্রি ঘুরে তিনি নিজেই সুপার CM .বয়সের ভার হলেও রাজ্য বা দেশের চূড়ান্ত সিদ্ধান্তের ক্ষেত্রে প্রবীণ মানুষের অভিজ্ঞতা ও দীর্ঘ্য দিনের সম্পর্ক হারানো তালার চাবি খুঁজে দিতে পারে। জেক এক কোথায় বলা যায় ওস্তাদের মার্ শেষ রাতে।

মহারাষ্ট্র নির্বাচনের ফলাফল বেড়ানোর পর , বেলা গড়াবার সাথে ইটা স্পষ্ট হয়ে হয় যে এনসিপি ও কংগ্রেস এবারের মত বিরোধী আসনে বসবে। তবে বেশ চ্যালেঞ্জের মুখে পড়বে এই ধরণের একটা ধারণা সকলের মধ্যেই ছিল। কিন্তু শিবসেনার ইচ্ছা ও CM পদের মোহো আর তোলে তোলে এনসিপি শিবসেনার সাথে যোগাযোগ বাড়িয়ে তোলার উদ্যোগ নতুন পথের সৃষ্ট করে। সাধারণত কংগ্রেসের সাথে শেষের বেশ কয়েক বছর আদায় কাঁচকলা সম্পর্ক থাকলেই মৌখিক সম্পর্কহ ছিল এই প্রবীণ রাজনৈতিক বেক্তির সাথে। তার ফলে কংগ্রেসের বরফ গলাতে বেশি সময় লাগে নি।

এরপরে, বিশেষত গত তিন দিনে যা ঘটেছিল তা আরও মজাদার এবং মারাত্মক তাত্পর্যপূর্ণ, যাতে মারাঠা শক্তিশালী ব্যক্তির ব্যক্তিত্ব সম্পর্কে দৃষ্টিভঙ্গি পাওয়া যায়। শরদ পওয়ার গত কয়েকদিন ধরে বেশ কয়েকটি সাক্ষাত্কার দিয়েছেন। এবিপি এবং এনডিটিভির সাথে তাঁর সাক্ষাৎকার বিশেষভাবে প্রকাশ পেয়েছে। শরদ পওয়ার বলেছেন তারা প্রধান মন্ত্রীর কাজ ও বিজেপি পার্টির অবস্থান নিয়ে বেশ বিব্রত ছিলেন। তাই শুধু মহারাষ্ট্র ক্ষত্রেই নয় সারা দেশে একটা নতুন বার্তা যা বিজেপির বিকল্প হতে পারে।

সর্বোপরি শরদ পওয়ার দীর্ঘদিন রাজনীতিতে রয়েছেন। তিনি একাধিকবার মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী এবং কেন্দ্রীয় মন্ত্রী ছিলেন। তিনি তার নিজস্ব দল পরিচালনা করেন এবং একটি শক্তিশালী আঞ্চলিক রাজনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ অবস্থান তৈরি করলেন জাতীয় রাজনীতিতে। তবে এই উপলক্ষে তিনি প্রকাশ্যেই বলেছেন যে মহারাষ্ট্রের দীর্ঘস্থায়ী নাটকটি হবার কয়েক দিন আগে সংসদ ভবনের উত্তরসূরীর সরকারি কক্ষে তাঁর দীর্ঘ বৈঠকের সময় তাঁর ও মোদীর মধ্যে কী ঘটেছিল। এবিপি মাঝার সাথে একটি সাক্ষাত্কারে শারদ বলেছিলেন, “আমি যখন কৃষি সংকট নিয়ে আলোচনা করার পরে চলে যাচ্ছিলাম”। বাস্তবে সত্য কি সত্য না তা জানা যাচ্ছে না যতক্ষণ না পর্যন্ত বিপক্ষের কোন মত পাওয়া যাচ্ছে না।

এটি লক্ষ করা উচিত যে ২০১৪ সালের মহারাষ্ট্র বিধানসভা নির্বাচনের ঘোষণার পরে শরদের এনসিপি বিজেপিকে সমর্থন করার জন্য একটি শর্তহীন প্রস্তাব করেছিল । এর ফলে রাজনীতির সদ্য শিক্ষার্থীরা যেমন বুঝতে পারেন নি , শরদ দিল্লি সফরের সময় মোদীর প্রস্তাব গ্রহণ করে আরও কিছু অর্জন করতে পারতেন । তাঁর কন্যা কেন্দ্রীয় মন্ত্রীর পদে এবং মর্যাদাপূর্ণ অভিজ্ঞতা অর্জন করতে পারতেন। মহারাষ্ট্রের বিজেপি নেতৃত্বাধীন সরকারের অংশীদার হিসাবে, তিনি তার মনোনীত প্রার্থীর জন্য উপ-মুখ্যমন্ত্রী পদ এবং প্রায় একই সংখ্যক পোর্টফোলিও অর্জন করতেন পারতেন।

শরদ পওয়ার এর মঙ্গলবার এনডিটিভির সাথে সাক্ষাৎকারটি খুব আকর্ষণীয় যেখানে তিনি প্রকাশ্যে স্বীকার করেছেন যে শিবসেনা, কংগ্রেস এবং এনসিপি-র মধ্যে যে আলোচনা চলছে, ততই তিনি জানতেন যে তাঁর ভাগ্নী অজিত পওয়ার দেবেন্দ্র ফাদনাভিসের সাথে আলোচনায় করছেন দল কে আড়াল করে । শরদের নিজস্ব কথায় অজিত শক্তি ভাগাভাগির আলোচনা যেভাবে এগিয়ে চলেছে তাতে তিনি অসন্তুষ্ট এবং কংগ্রেসকে দোষ দিয়েছেন, বিশেষত কংগ্রেস এবং এনসিপি-র মধ্যে ২২ শে নভেম্বর “উত্তপ্ত আলোচনার”কথা উল্লেখ করেছেন।

শারদ দাবি করেছেন যে তাঁর ভাগ্নী অজিতের ফরনভিসের সাথে তার আলোচনায় ২৪ ঘন্টার মধ্যে বিজেপির কায়দায় দলের প্রবীণ বেক্তিদের যে ভাবে বাগানে বসিয়ে নিজেরা দেশের রাজনীতি চালাচ্ছেন সেই ভাবেই এনসিপিতে অজিত পওয়ার দল থেকে প্রবীণ শরদ পওয়ার কে সেই অবস্থায় নিয়ে যেতে চাইছিলেন। এই ধারণা যে কতটা সত্য তা প্রকাশ পেতে বেশি সময় লাগেনি। তাই এই রুদ্ধদ্বার খোলার চাবি খাঁটি একমাত্র আছে উদ্ভব ঠাকরের কাছে । তিনি আলোচনাটি নিয়ন্ত্রণ করেছিলেন – শিবসেনা এবং কংগ্রেসের সাথে জোট বদ্ধ সরকার ঘঠনের । উদ্ধব এবং শিবসেনা মধ্যে অনেক বড় বেশি সম্পর্ক আছে সঞ্জয় রাউত এরসাথে , কারণ একাধিক অনুষ্ঠানে পওয়ারের প্রতি তাদের শ্রদ্ধা জানিয়েছেন। শিবসেনার কংগ্রেসের রাজ্য বা কেন্দ্রে তাঁর বিরুদ্ধে লড়াইয়ের কোনও অবস্থান নেই। সৌজন্যে, কংগ্রেস আজ মহারাষ্ট্রে শক্তি ভাগাভাগি করছে।শারদ বলেছেন যে বিজেপির চেয়ে শিবসেনার সঙ্গে কাজ করা তাঁর পক্ষে সহজ ছিল। এটি সত্য হতে পারে, কারণ আরও তিনি রাজ্যের বিজেপির সাথে জুনিয়র অংশীদার এবং বিজেপি নেতৃত্বাধীন এনডিএ-তে কেন্দ্রে চার লোকসভা সাংসদের সাথে একজন নাবালক অংশীদার হয়ে থাকতেন।

Show More

Related Articles

Back to top button
%d bloggers like this: