Life Style

রমজান মাসে হালিম খান

রোজা ভেঙে হালিম খান ,পুষ্টিকর ও সুস্বাদুও বটে

শুরু হয়ে গেছে মুসলিম সম্প্রদায়ের  পবিত্র রমজান মাস।আর এই রমজান মাসে রোজার উপোস ভেঙে ফল ,সরবত এগুলো তো খাবেনই  তার পাশাপাশি খেতে পারেন হালিম। হালিম তৈরি করতে লাগে রকমারি ডাল ,গম ,মাংস ,দুধ ,জিরা, তালের গুড় ইত্যাদি আর এইগুলো যেহেতু উচ্চ ক্যালোরি যুক্ত খাবার তাই দ্রুত হজম হয়। এছাড়া এতে থাকা শুকনো ফলে রয়েছে প্রচুর  অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট। এছাড়া মাংস থাকার ফলে হালিম উচ্চ প্রোটিন সমৃদ্ধ খাবারে পরিণত হয়েছে আর হালিমে কার্বোহাইড্রেট সাহায্যে দেহ চনমনে রাখতেও সাহায্য করে। তাই উপোসের শেষে হালিম খেলে সারাদিন উপোসে শরীরের যে ঘাটতি সৃষ্টি হয় তার অনেকটাই পূরণ হয়। এমনটাই মনে করছেন পুষ্টিবিদরা। হালিম মূলত নিজাম সম্প্রদায়ের খাবার। আরবি খাবার ‘হারিসা’ থেকে এই হালিম শব্দটা এসেছে। হায়দ্রাবাদি হালিম ২০১০সালে জিআই ট্যাগ পায়। জানা গেছে রমজান মাসে হায়দ্রাবাদে ৬০০টি হালিমের দোকানে প্রায় ১০০কোটি টাকার বিক্রি হয়েছে। শুধু মুসলিম সম্প্রদায়ভুক্ত মানুষজন নন হালিমের স্বাদ আর পুষ্টিগুণে হালিমে মজেছেন হিন্দুরাও। তাই বিফ হালিমের পাশাপাশি চিকেন ও মটন হালিমের বিক্রিও বাড়ছে সমান তালে। হায়দ্রাবাদের পাশাপাশি কলকাতার পার্কস্ট্রিট ,ধর্মতলা ,জাকারিয়া স্ট্রিট ছাড়াও কলকাতার অলিতে গলিতে হালিমের বিক্রি বাড়ছে। সব মিলিয়ে স্বাদ আর পুষ্টিগুণ দিয়ে চাউমিন ,এগরোলে মজে থাকা নতুন প্রজন্মকেও কিন্তু টানছে হালিম।

Show More

Related Articles

Back to top button
%d bloggers like this: