Big Story

রাজ্যে করোনার বলি আরও এক চিকিৎসক

সারা বিশ্বে ২০০ র বেশি চিকিৎসক এই করোনা যুদ্ধে প্রাণ হারিয়েছেন।রাজ্যে ৩৫ জন চিকিৎসক এবং প্রায় ৫০ জন নার্স স্বাস্থ্যকর্মী করোনা আক্রান্ত।

প্রেরনা দত্তঃ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে গতকালই রাজ্যের অতিরিক্ত স্বাস্থ্য অধিকর্তা তথা চিকিৎসক বিপ্লব দাশগুপ্তের মৃত্যু হয়েছে।রাজ্যের প্রথম চিকিৎসকের মৃত্যুর ২৪ ঘণ্টা কাটতে না কাটতেই আরও এক সামনের সারির যোদ্ধা চিকিৎসকের মৃত্যু। সোমবার কোভিড আক্রান্ত আরও এক চিকিৎসকের মৃত্যু হল রাজ্যে। শিশির মন্ডল নামে ওই চিকিৎসক কলকাতার একটি বেসরকারি হাসপাতালে অর্থোপেডিক বিশেষজ্ঞ ছিলেন।

৬৯ বছর বয়সী ওই অর্থপেডিক সার্জন গত ১৪ এপ্রিল থেকে ভরতি ছিলেন সল্টলেক আমরি’তে। কিন্তু ১৭ তারিখ থেকেই তাঁর পরিস্থিতির অবনতি হয়। তাঁকে রাখা হয়েছিল ভেন্টিলেশনে।

হাসপাতাল সূত্রের খবর, আপ্রাণ চেষ্টা করা হলেও গতকাল থেকে তাঁর অবস্থা সংকটজনক হয়ে উঠেছিল। সোমবার রাত ৯টা নাগাদ মৃত্যু হয় তাঁর। কলকাতার স্বনামধন্য অর্থোপেডিক সার্জন ছিলেন তিনি। দীর্ঘদিন ধরে তাঁর সুগার ও প্রেশারের সমস্যা ছিল।

রাজ্যে গত বেশ কয়েকদিন ধরেই একের পর এক চিকিৎসক, নার্স,স্বাস্থ্যকর্মীরা করোনা আক্রান্ত হচ্ছিলেন। রাজ্যে প্রথম করোনা আক্রান্ত হন আলিপুর কমান্ড হাসপাতালের এক লেফটেন্যান্ট পদমর্যাদার চিকিৎসক। পরবর্তীতে তার স্ত্রী, পুত্র এবং কন্যাও করোনা আক্রান্ত হন। এরপর হাওড়া জেলা হাসপাতালের সুপার স্বয়ং করোনা আক্রান্ত হয়েছিলেন। যদিও বর্তমানে তিনি হাসপাতাল থেকে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন। রবিবার সল্টলেক আমরি হাসপাতালে রাজ্য স্বাস্থ্য দফতরের সহঅধিকর্তা তথা স্বাস্থ্য দফতরের সেন্ট্রাল মেডিকেল স্টুডেন্ট দায়িত্বে থাকা চিকিৎসক বিপ্লব কান্তি দাশগুপ্তর মৃত্যু হয় করোনা আক্রান্ত হয়ে। গোটা রাজ্যের চিকিৎসক মহল শোকে ভেঙে পড়ে।

বিশ্বে শ’দুয়েক চিকিৎসক ইতিমধ্যেই মারা গিয়েছেন করোনার ছোবলে। তামিলনাড়ু, মহারাষ্ট্র, মধ্যপ্রদেশ, উত্তরপ্রদেশ ও দিল্লি মিলিয়ে অন্তত ছ’জন চিকিৎসকের মৃত্যুর সাক্ষী থেকেছে দেশও। আক্রান্ত হয়েছেন আরও বেশ কিছু। প্রায় ৩০ জন চিকিৎসক কোভিড-১৯ সংক্রমণে আক্রান্ত হয়েছেন এ রাজ্যেও। এ নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও। এ বার ডাক্তার-মৃত্যুর তালিকাতেও নাম জুড়ল বাংলার, যা প্রবল প্রভাব ফেলেছে রাজ্যের চিকিৎসক সমাজে।

Show More

Related Articles

Back to top button
%d bloggers like this: