Nation

রাফেলের পর , ‘এক লক্ষ তিন হাজার কোটি টাকায় ১১৪টি যুদ্ধবিমান’ : প্রতিরক্ষা চুক্তি প্রায় চূড়ান্ত

এই মুহূর্তে বিশ্বের সবচেয়ে বড় টাকার প্রতিরক্ষা চুক্তি ভারতের , রাফেল বিতর্কের মাঝে আবারো দেশ জুড়ে বিতর্ক !

প্রায় চূড়ান্ত ১১৪টি যুদ্ধবিমান কিনতে চলেছে ভারত। প্রতিরক্ষা মন্ত্রক বিশ্বের সবচেয়ে বড় চুক্তির প্রায় ফাইনাল ছিল ভোটের আগেই , ভোটের জেতার সাথে সাথেই প্রায়োডিটি অনুযায়ী এই চুক্তির পথে । ভোটের আগে যুদ্ধ যুদ্ধ রবে বেশ কিছু মিগ্ বিমান ভেঙে পরে অস্বত্বিতে পরে যায় প্রতিরক্ষা দফতর , আসলে যে বিমান আছে তার ফিজিবিলিটি স্টাডি নিয়ে অনেক বির্তক হয়। এক্ষেত্রে সেনার ক্ষমতা বাড়াতে ও পুরনো যুদ্ধবিমান গুলি বাতিল করার লক্ষ্যে এই প্রক্রিয়া দ্রুত কার্যকরী করার জন্য প্রতিরক্ষা মন্ত্রকের উদ্যোগ।কেন্দ্রীয় প্রতিরক্ষা মন্ত্রকের প্রতিমন্ত্রী শ্রীপদ নায়েক যুদ্ধ বিমানের কথা না বললেও বায়ুসেনার চাহিদা পূরণে কার্যকরী পদক্ষেপ করা হচ্ছে বলে সংসদে জানিয়েছেন।

প্রায় ১৫ বিলিয়ন ডলার চুক্তির মূল্য । এক লক্ষ তিন হাজার কোটি টাকা যা প্রায় ভারতীয় মুদ্রায় । ২০১৮ এর শুরুর দিকে প্রকাশ্যে আসা একটি সরকারি নথি, তাতে বলা হয়েছিল যুদ্ধবিমানের চুক্তিতে প্রতিরক্ষা সরঞ্জাম তৈরি করে এমন কিছু সন্থাৰ সাথে প্রথিমিক কথা হয়েছে। জানা যাচ্ছে বোয়িং, লকহিড মার্টিন কর্পোরেশন, সাব এবি-র মতো সংস্থা। সূত্রে খবর, নথিপত্র প্রায় তৈরি। শীঘ্রই আন্তর্জাতিক দরপত্র আহ্বান করা হবে শেষ মুহূর্তে চূড়ান্ত খুঁটিনাটি খতিয়ে দেখে নিচে দফতর।

৮৫ শতাংশ যুদ্ধবিমানই ভারতে তৈরি করতে হবে কিন্তু চুক্তির শর্ত অনুযায়ী তারা কি মানবেন।বোয়িং এর আগেথেকেই চুক্তি রয়েছে হিন্দুস্থান অ্যারোনটিক্যাল লিমিটেড এবং মহিন্দ্রা ডিফেন্স-এর সঙ্গে কেন্দ্রের একটি সূত্রের খবর, । টাটা গ্রুপের সঙ্গে চুক্তি রয়েছে এফ-২১ এর জন্য লকহিডের । সাব এবির সাথে অন্য দিকে আদানি গ্রুপের সঙ্গে চুক্তি রয়েছে । বরাত কে পাবে এই উত্তর এখন পাওয়া যাবে না , যুদ্ধবিমান এই যৌথ উদ্যোগেই তৈরি হবে । চুক্তির পর প্রথম ধাপের যুদ্ধবিমান ভারতের হাতে তুলে দিতে হবে তিন বছরের মধ্যে।

সংসদে শ্রীপদ নায়েক সম্প্রতি বলেছেন , বায়ুসেনার চাহিদা পূরণের তৎপর হয়েছে কেন্দ্র। এক্ষেত্রে যুদ্ধজাহাজ, ট্যাঙ্কার-সহ অন্যান্য বেশ কিছু যুদ্ধাস্ত্র কেনার জন্য প্রাথমিক নথিপত্র তৈরির কাজ। সাবমেরিন কেনার ব্যাপারেও কথা চলছে।

এই বছরের ফেব্রুয়ারিতে পুলওয়ামা হামলার পাকিস্তানের অত্যাধুনিক এফ-১৬ যুদ্ধবিমানের সঙ্গে ডগ ফাইটে নামাতে হয়েছিল পুরনো মিগ ২১-কে। এই ক্ষেত্রে মজা করে বলে উড়ন্ত কফিন। আধুনিক যুদ্ধবিমান যুক্ত করার প্রয়োজনীয়তার কথা মাথায় রেখেই দ্রুত চুক্তির দিকে এগোচ্ছে প্রতিরক্ষা মন্ত্রক।

Show More

OpinionTimes

Bangla news online portal.

Related Articles

Back to top button
%d bloggers like this: