Big Story

লালঝাণ্ডার আন্দোলনেই গ্রেফতার নিজামউদ্দিনের খুনি , তৃণমূল ওদের কোথায় লোকাবে :শমিক লাহিড়ী সিপিআইএম নেতা

লাগাতার আন্দোলনই একমাত্র পথ , মানুষ আমাদের বিশ্বাস করে। তৃণমূল আমাদের খুন করে দমিয়ে রাখতে পারবে না। বামেদের এই ভাবে আটকানো যাবে না , নিজামউদ্দিন মন্ডলের হত্যাকারী কে দৃষ্টান্ত মূলক সাজা দিতে হবে বললেন শমিক লাহিড়ী

রাস্তার আন্দোলনের চাপেই সিপিআইএমের কর্মী নিজামউদ্দিন মন্ডলের খুনে অভিযুক্তরা ধরাপড়লো রাজস্থান থেকে : আলতাব বৈদ্যসহ ৩ দুস্কৃতীকে । নিজামুদ্দিনের খুনিদের ধরতে যে পরিমান সিপিআইএম সংঘটিত ভাবে চাপ দিয়েছিলো তাতে আর কোন উপায় ছিল না পুলিশের। অবশেষে পাতা জালে ধরা দিল তিন অভিযুক্ত।

মানুষের ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনের জয় বললেন জেলা সিপিআইএম নেতৃত্ব। মল্লিকপুরে সিপিআই (এম) কর্মী কমরেড নিজামউদ্দিন মন্ডলের হত্যাকারী সেই আলতাব বৈদ্যসহ ৩ তৃণমূলী দুস্কৃতীকে পুলিশ রাজস্থানের আজমীর থেকে গ্রেপ্তার করেছে। শুক্রবার বারুইপুরে পুলিশ সুপার প্রেস কনফারেন্স করেন।
ঘটনাটি ঘটে ছিল দক্ষিণ ২৪ পরগনায় ।গত শনিবার রাতে দক্ষিণ ২৪ পরগনার বারুইপুরে নিজামুদ্দিন মণ্ডল নামে এক সিপিআইএম কর্মীকে পয়েন্ট ব্ল্যাঙ্ক রেঞ্জ থেকে গুলি করে খুন করেছিল দুষ্কৃতীরা।অঞ্চলের এক জন কে প্রাথমিক ভাবে জিজ্ঞাসা করে সূত্র পাবার চেষ্টা করে পুলিশ। সিপিআইএমের পক্ষে দ্রুত গ্রেফতারের দাবিতে গত রবিবার সকালে বারুইপুর থানায় বিক্ষোভ দেখান নিহতের আত্মীয় পরিজনরা ও পাড়া প্রতিবেশিরা । প্রতিদিনের মত গত শনিবার রাতেও মল্লিকপুর স্টেশন এলাকায় কয়েকজন বন্ধুবান্ধব মিলে আড্ডা মারছিলেন নিজামুদ্দিন।

বচসা হয় সাব্বির ও আলতাফ এর , তার পর গড়ায় হাতাহাতিতে। এই গণ্ডগোল দেখে নিজামুদ্দিন তা মেটাতে উদ্যোগী হয়।তারপর আলতাফ বন্দুক দিয়ে প্রথমে নিজামের মাথায় বন্দুকের বাঁট দিয়ে মারে ও তারপর তাঁর বুকে গুলি করে। রক্তাক্ত অবস্থায় ঘটনাস্থলে লুটিয়ে পড়ে নিজাম। এর পর পালিয়ে যায় পালিয়ে যায় আলতাফ। নিজামের অন্য দুই বন্ধু তাঁকে উদ্ধার করে বারুইপুর মহকুমা হাসপাতালে চিকিত্‍সার জন্য নিয়ে আসেন। পরিবারের লোকেরাও হাসপাতালে গেলে সেখানে চিকিত্‍সকরা তাকে মৃত বলে ঘোষণা করেন। উত্তেজনা রয়েছে পুরো এলাকা জুরে।

এর পরই জেলা সিপিআইএম নেতৃত্ব যায় থানায় ,দাবি জানায় অপরাধীদের কঠোরতর শাস্তির। এই দিন অন্য চেহারায় সিপিআইএমকে দেখা যায়। রাস্তায় যখন বিক্ষোভ হয় অপরাধীদের গ্রেফতারের দাবিতে তখন অঞ্চলের সাধারণ মানুষও সামিল হন, ভালো ছেলে নিজামুদ্দিনের হত্যাকারীদের গ্রেফতারের জন্য। এই সময় সিপিআইএমের শ্রমীক লাহিড়ী , সুজন চক্রবর্তী , পলিট বুড়ো নেতা মহম্মদ সেলিম সহ একাধিক নেত্রীর সামনে পুলিশ মেনে নেন যে এই অপরাধীদের ছাড়া হবে না।

জেলা পুলিশ খোঁজ শুরু করে অপরাধীদের ,এরা গা ঢাকা দিয়েছিল রাজস্থানে। অবশেষে ধরা পড়লো। দক্ষিণ ২৪ পরগনা পুলিশ সুপার সাংবাদিক সম্মেলন করে জানান অভিযুক্তদের গ্রেফতার করা হয়েছে।

Show More

OpinionTimes

Bangla news online portal.

Related Articles

Back to top button
%d bloggers like this: