Weather

সাল ২৩০০, নয়া আশঙ্কা উপকূলবর্তী এলাকায়

তলিয়ে যেতে পারে সমুদ্র গহ্বরে,চরম আশঙ্কা প্রকাশ বিশেষজ্ঞদের

পল্লবী : সারা বিশ্ব গৃহবন্দী এর ফলে কমছে দূষণ। ওজন স্তরের ক্ষতিও পূরণ হচ্ছে দ্রুত হরে। তার সাথেই বাড়ছে সমুদ্রে জলস্তর। আর এবার আশঙ্কা যে তাতেই। একদল গবেষক বলছেন, সমুদ্রে যে ধীরগতিতে জল বাড়ত তার সেই রূপ বদলেছে। ইতিমধ্যেই বেশ কয়েকগুন বেশি জলস্তর বৃদ্ধি হয়েছে বলে জানিয়েছেন সিঙ্গাপুরের নানিয়াং টেকনোলজিকাল ইউনিভার্সিটি-র বিজ্ঞানীরা। তাঁদের আশঙ্কা এমন চলতে থাকলে সমুদ্র উপকূলবর্তী শহরগুলি তলিয়ে যেতে পারে সমুদ্রের গর্ভে। ২১০০ সালের মধ্যেই ৩৯.৩৭ ইঞ্চি বেড়ে যাবে সমুদ্রের জলস্তর এবং ২৩০০ সালের মধ্যে ১৯৭ ইঞ্চি বৃদ্ধি পানে জলস্তর। কাজেই উপকুলবর্তী শহরগুলির কথা ভাবাচ্ছে বিশেষজ্ঞদের।

বড়সড় আশঙ্কার বার্তা শোনালেন বিশেষজ্ঞরা। তলিয়ে যেতে পারে মুম্বই,কলকাতা সহ উপকূলবর্তী অন্য শহরগুলি। তালিকায় রয়েছে নিউইয়র্কের নামও।কোন কোন শহরগুলির এই সম্ভাবনা আছে, সে প্রসঙ্গে এখন পর্যন্ত ৩ টি শহরের নাম জানা গিয়েছে। সেই তালিকায় রয়েছে মুম্বই। এছাড়াও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্ক, চিনের সাংহাই এই শহরগুলিও রয়েছে বিপদসঙ্কুল এলাকায়। সিঙ্গাপুরের একদল বিজ্ঞানীরা এই বিষয়ে রীতিমতো রিসার্চ করে এই তথ্য সামনে এনেছেন। যা দেখে চোখ কপালে উঠেছে সাধারণ মানুষের। বিরাট চিন্তায় পড়েছেন পরিবেশবিদরাও।

স্পেশাল রিপোর্ট অন দ্য ওশন অ্যান্ড ক্রায়োস্ফিয়ার ইন এ চেঞ্জিং ক্লাইমেট অনুযায়ী বিশ্বজুড়ে উষ্ণায়ণ এবং জলবায়ু পরিবর্তন যে হারে বেড়ে চলেছে সেই হার আটকানো বা ঠিক করা এখন আর সম্ভব নয়। কলকাতায় যে তার অন্তর্ভুক্ত এমনটাই জানান তারা। অন্যদিকে, রিপোর্ট অনুযায়ী, কলকাতা-চেন্নাইয়ে যা ঘটবে তার একেবারে বিপরীত ছবি দেখা যাবে উত্তর ভারতের কিছু শহরে। তীব্র জলসঙ্কটে ভুগবে সেসব জায়গা। অঞ্জল প্রকাশ-কো-অর্ডিনেটিং লিড অথর এর কথা অনুযায়ী হিন্দুকুশ-হিমালয় পর্বতমালা অঞ্চলে এই প্রভাব সবচেয়ে বেশী দেখা যেতে পারে। গঙ্গা, সিন্ধু এবং ব্রহ্মপুত্রের অববাহিকায় অবশ্যই দেখা যাবে বন্যা। তবে এই অবস্থার জন্য কি কি করণীয় তা এখনো কিছু জানান নি গবেষকরা।

Show More

Related Articles

Back to top button
%d bloggers like this: