Big Story

সোমবার থেকেই বন্ধ হয়েছে টালিগঞ্জের করুণাময়ী সেতু ,এবার বৃহস্পতিবার থেকে বন্ধ রাখা হবে চেতলা ব্রিজ ও বিজন সেতু

দুটি সেতু ভার বহনে কতটা সক্ষম, তা পরীক্ষা করে দেখবে কেএমডিএ।

প্রেরনা দত্তঃ লকডাউনের মধ্যে চলবে সেতুর স্বাস্থ্য পরীক্ষার কাজ। এই কারণে বৃহস্পতিবার থেকে দক্ষিণ কলকাতার চেতলা আরসিসি ব্রিজ ও বালিগঞ্জের বিজন সেতু বন্ধ রাখা হচ্ছে। পুলিশ জানিয়েছে, আগামী ১৪ই মে থেকে সকাল ন’টা থেকে ১৮ই মে ভোর পাঁচটা পর্যন্ত চেতলা আরসিসি সেতু বন্ধ করে দেওয়া হবে। দুটি সেতু ভার বহনে কতটা সক্ষম, তা পরীক্ষা করে দেখবে কেএমডিএ।

ইতিমধ্যে টালিগঞ্জের করুণাময়ী সেতু বন্ধ করে পরীক্ষা চালানো হচ্ছে। কলকাতা ট্রাফিক পুলিশ সূত্রে খবর, ১১ মে সোমবার সকাল ৯ টা থেকে ১৪ মে অর্থাৎ বৃহস্পতিবার ভোর ৫টা পর্যন্ত বন্ধ থাকবে দক্ষিণ কলকাতার ব্যস্ততম ওই সেতু।এই চার দিন উত্তর এবং পূর্বমুখী এমজি রোড, মতিলাল গুপ্ত রোড হয়ে বড় গাড়িগুলি ডায়মন্ড হারবার রোড ধরে গন্তব্যে যেতে পারবে। ছোট গাড়ির ক্ষেত্রে বিএল সাহা রোড থেকে নিয়ন্ত্রিত করা হবে।

চেতলা আরসিসি ব্রিজ বন্ধ থাকবে ফলে রাসবিহারী অ্যাভিনিউ থেকে সোজা চেতলার দিকে যাওয়ার বদলে শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জী রোড, দেশপ্রাণ শাসমল রোড, বালিগঞ্জ সার্কুলার রোড অথবা শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জী রোড থেকে হাজরা মোড় হয়ে জাজেস কোর্ট রোড, আলিপুর রোড হয়ে চেতলায় পৌঁছানো যাবে। চেতলার দিক থেকে পূর্বদিকে আসার জন্য আলিপুর রোড থেকে দুর্গাপুর ব্রিজ অথবা আলিপুর রোড থেকে রাজা সন্তোষ রোড ও বর্ধমান রোড হয়ে গাড়ি ঘুরিয়ে দেয়া হবে।

এদিকে, ১৪ মে সকাল ৬টা থেকে ১৮ মে ভোর পাঁচটা পর্যন্ত বন্ধ থাকবে গড়িয়াহাটের বিজন সেতুও। রাসবিহারী থেকে গড়িয়াহাটে আসার জন্য পথে গাড়ি ঘুরিয়ে দেওয়া হবে। গড়িয়াহাট থেকে রাসবিহারী কানেক্টরের দিকে যাওয়ার জন্য ঘুরিয়ে দেওয়া হবে যানবাহন। সাধারণ দিনে এই দুটি সেতু সবসময় ব্যস্ত থাকে কিন্তু লকডাউনের জেরে এই সেতুগুলো বন্ধ থাকলেও কোনো অসুবিধা হবে না বলে মনে করছেন পুলিশ প্রশাসন।

মাঝেরহাট ব্রিজ ভেঙে পড়ার পর, কলকাতার বিভিন্ন সেতুর স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা হবে বলে জানানো হয়েছিল রাজ্যের তরফে। তা শুরুও হয়েছিল। লকডাউনের মধ্যে ফের তা শুরু করা হচ্ছে।

Show More

Related Articles

Back to top button
%d bloggers like this: