Big Story

স্বস্তির সুখবর, একসঙ্গে ৩৬ জন করোনা জয়ীর ছুটি

করোনা মানেই তাই শুধু আশঙ্কা নয়। করোনা মুক্তির ঘটনা কিন্তু এরাজ্যে বেড়েই চলেছে।

প্রেরনা দত্তঃ শুক্রবার দুপুর থেকে বিকেল পর্যন্ত দফায় দফায় ৩৬ জনকে ছেড়ে দেওয়া হল। সুস্থ করে বাড়ি পাঠানো হল হাওড়ার ফুলেশ্বর সঞ্জীবনী হাসপাতাল থেকে। এই হাসপাতালটি কোভিড হাসপাতাল হিসেবে চিহ্নিত। কলকাতার বাঙ্গুরের পর এবার ফুলেশ্বরের সঞ্জীবন হাসপাতাল একসঙ্গে এত জন করোনা আক্রান্তকে সুস্থ করে দৃষ্টান্ত স্থাপন করল। পাশাপাশি পুষ্পবৃষ্টি, শঙ্খধ্বনি, রবীন্দ্র সংগীতের মাধ্যমে বিদায়ী সংবর্ধনা দেওয়া হয় করোনা জয়ীদের এবং চিকিৎসক, নার্স ও স্বাস্থ্যকর্মীদের করোনার বিরুদ্ধে লড়াইকেও কুর্নিশ জানানো হয়।

পরপর দুদফায় রিপোর্ট নেগেটিভ আসার পর তাঁদের এদিন একযোগে ছাড়া হল। সুস্থ হওয়া ৩৬ জনের মধ্যে রয়েছে দেড় বছরের শিশুও। রয়েছেন ৭০ বছরের এক ব্যক্তিও। জেলাশাসক, পুলিশ সুপার, মহকুমাশাসক ও বিধায়ক-সকলেই এসেছিলেন এই করোনা-জয়ীদের ছাড়ার অনুষ্ঠানে। হাসপাতাল সূত্রে জানা গিয়েছে, ৩৬ জনের মধ্যে ১৮ জন পুরুষ ও ১৮ জন মহিলা রয়েছেন। এদিন বিকেলে অ্যাম্বুল্যান্সে চেপে করোনা জয়ীরা বাড়ির পথে রওনা হন। একের পর এক ১৪টা অ্যাম্বুলান্স হাসপাতাল থেকে ছেড়ে যায়। তার আগে স্বাস্থ্যকর্মীরা করোনা জয়ীদের অভিবাদন জানাতে উদ্যোগী হন।

তারা হাসপাতাল থেকে বেরোনোর রাস্তার দু’ধারে দাঁড়িয়ে যান। একের পর এক অ্যাম্বুলান্স ছাড়লে স্বাস্থ্যকর্মীরা তাদের উপর পুষ্পবৃষ্টি করেন, কেউ কেউ শঙ্খধ্বনি দিতে শুরু করেন। অপরদিকে, কলকাতার আমরি হাসপাতাল থেকে ছাড়া পেলেন করোনা এক আরেক বৃদ্ধও। প্রায় ৩০ দিন তাঁকে ভেন্টিলেশনে রাখতে হয়েছিল। কঠিন যুদ্ধের পর জয়ী হলেন তিনি। হাসপাতাল থেকে ছাড়া পাওয়ার সময় তাঁর জন্যেও হাততালি দেন হাসপাতালের চিকিৎসক-স্বাস্থ্যকর্মীরা।

করোনার সংক্রমণের আশঙ্কা এবং আতঙ্ক যেমন রয়েছে, তেমন একইভাবে সংক্রামিত হওয়ার পর চিকিৎসায় সুস্থ হয়ে বাড়ি ফেরার সংখ্যাটাও কিন্তু ক্রমশ বাড়ছে। তাই অযথা আতঙ্ক নয়। সাবধানে থাকুন। সুস্থ থাকুন। বিধিনিষেধ মেনে চলুন। সোশ্যাল ডিস্ট্যান্সিং বজায় রাখুন। বাইরে বেরলে মাস্ক পরুন।

Show More

Related Articles

Back to top button
%d bloggers like this: