Big Story

হাতে গোনা কিছু সময়, আক্রান্তের সংখ্যা ছাড়ালো ১,৫১,৭৬৭

স্বাস্থমন্ত্ৰক বলছে, এই লকডাউন হওয়ার ফলে অনেকটাই উপকৃত হয়েছে দেশ

পল্লবী : পরিসংখ্যানের দিকে তাকালেই রীতিমতো গাঁয়ে কাটা দেওয়ার জোগাড়। আক্রান্তের সংখ্যা ছুঁয়েছে ১,৫১,৭৬৭। গতকাল নতুন করে আক্রান্ত হয়েছে ৬৩৮৭ জন। এখনও মৃত্যু হয়েছে ৪৩৩৭ জনের। এদিকে গত ২৪ ঘন্টায় দিল্লি, মহারাষ্ট্রে করোনা পরিস্থিতি আরো জটিল হয়েছে। এই দুই রাজ্যেই গত ২৪ ঘন্টায় রেকর্ড সংখ্যক আক্রান্ত হয়েছে। বুধবার দিল্লিতে এক দিনে আক্রান্ত হয়েছে ৭৯২ জন। মোট আক্রান্তের সংখ্যা ১৫,২৫৭। তবে এর মধ্যে সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৭,২৬৪ জন, মৃত্যু সংখ্যা ৩০৩। আর অন্যদিকে, মহারাষ্ট্রে বুধবার একদিনে মৃত্যু হয়েছে ১০৫ জনের। যা এখনও পর্যন্ত রেকর্ড। মোট মৃত্যু হয়েছে ১৮৯৭ জনের। একদিনে সেনা-রাজ্যে আক্রান্ত হয়েছে ২১৯০ জন।

করোনা খাবার যে চিত্র বাংলায় তা হলো, পশ্চিমবঙ্গে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃতের সংখ্যা বেড়ে হল ২১৭। গত ২৪ ঘণ্টায় রাজ্যে ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে আরও ৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। নতুন করে ১৮৩ জনের শরীরে কোভিড ১৯ মিলেছে। সবমিলিয়ে বাংলায় মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৪ হাজার ১৯২।

বুধবার স্বাস্থ্যমন্ত্রকের তরফে যে বিবৃতি প্রকাশ করা হয়েছে তাতে বলা হয়েছে , এই লকডাউন হওয়ার ফলে অনেকটাই উপকৃত হয়েছে দেশ, করোনা সংক্রমণ অনেকটা কম ছড়িয়েছে, তাদের সমীক্ষা বলছে তাত্‍পর্যপূর্ণভাবে গত একসপ্তাহ ধরে প্রতিদিনই দেশে নতুন করে আক্রান্ত হচ্ছেন ৬ হাজারেরও বেশি মানুষ। অন্যদিকে, চতুর্থ পর্যায়ের লকডাউন ৩১ মে শেষ হচ্ছে। রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী রেলের কাছে আর্জি জানিয়েছিলেন যে, এই মুহূর্তে যেন শ্রমিকদের না ফেরানো হয়। গোটা প্রশাসন আমপানের পরিস্থিতি নিয়ে ব্যাস্ত তাই শ্রমিকদের ঠিকমতো পরীক্ষা সম্ভব হবেনা। কিন্তু রাজ্যে ফিরছে শ্রমিক এবং এর ফলেই হু হু বাড়ছে সংক্রমণের সংখ্যা। পরিসংখ্যান বলছে, আশঙ্কা অমূলক নয়। স্বাস্থ্য দফতর সূত্রে খবর, মঙ্গলবার পর্যন্ত ঘরে ফেরা অন্তত সাড়ে চারশো পরিযায়ী শ্রমিকের দেহে করোনাভাইরাসের অস্তিত্ব মিলেছে। বুধবারের পরে তা পাঁচশোর কাছাকাছি পৌঁছে গিয়েছে বলে খবর। আক্রান্ত পরিযায়ী শ্রমিকের নিরিখে শীর্ষে রয়েছে মালদহ।

Show More

Related Articles

Back to top button
%d bloggers like this: