Big Story

৯৫০ কিলোমিটার পথ হেঁটে ছত্তীসগঢ় থেকে হেঁটে শহরে আসে সাত জন শ্রমিক

ছত্তীসগঢ় থেকে বেরিয়ে জাতীয় সড়ক ধরে ওড়িশা হয়ে পশ্চিমবঙ্গে ঢোকেন।

প্রেরনা দত্তঃ ভারতে লকডাউন! থাকতে হবে ‘গৃহবন্দি‘। এমন বার্তা এসেছে প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে। ২১ দিনের জন্য জরুরি প্রয়োজন ব্যতিত বাড়ি থেকে বের হওয়া নিষেধ। করোনা ভাইরাসের আক্রমণ থেকে বাঁচতেই এই পদক্ষেপ। করোনাভাইরাসের আঘাতে সমগ্র বিশ্ব নিস্তব্ধ হয়ে গেছে। লকডাউন হয়ে গেছে বড় বড় অনেক দেশ ও শহর। তারই ধারাবাহিকতায় ২১ দিনের লকডাউনে ভারতও।আর এর মধ্যেই ছত্তীসগঢ়ের রায়পুর থেকে হেঁটে আসা সাত জন শ্রমিক। টানা পাঁচ দিন ধরে প্রায় ৯৫০ কিলোমিটার পথ হেঁটে শহরে পৌঁছায়।

ওঁদের কারও জুতো ছিঁড়ে গিয়েছে। কারও আবার পায়ে ফোস্কা পড়েছে। ক্লান্ত শরীরে মেট্রো প্রকল্পের ভিতরে ঠাঁই পেলেও সফিকুল রহমান, রমজান আলি, মহম্মদ নিগার-সহ দলের সকলেই চাইছিলেন উত্তর দিনাজপুরে নিজেদের বাড়িতে ফিরতে। কিন্তু কামারহাটির স্থানীয় প্রশাসন তাতে সম্মতি দেয়নি।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রের খবর, সোমবার রাতে দক্ষিণেশ্বর আইল্যান্ডের কাছে ওই সাত জন রাজমিস্ত্রিকে পিঠে, মাথায় ব্যাগপত্তর নিয়ে হাঁটতে দেখেন একটি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার প্রতিনিধিরা। তাঁরা ওই শ্রমিকদের থেকে সব শুনে তাঁদের খাবারের ব্যবস্থা করেন। এর পরে মেট্রো প্রকল্পে ঠাঁই মেলে সফিকুলদের। অন্য দিকে, ওই স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার মাধ্যমে খবর পৌঁছয় পুলিশ ও বরাহনগর পুর কর্তৃপক্ষের কাছে।

গত বৃহস্পতিবার, অর্থাৎ ২৩ এপ্রিল ভোরে ওই সাত জন পায়ে হেঁটেই বাড়ির উদ্দেশে রওনা দেন। রমজান আলি জানান, তাঁরা ছত্তীসগঢ় থেকে বেরিয়ে জাতীয় সড়ক ধরে ওড়িশা হয়ে পশ্চিমবঙ্গে ঢোকেন। দিনের অধিকাংশ সময়ে তাঁরা রাস্তার ধারেই বসে কাটাতেন। সন্ধ্যা নামলেই শুরু করতেন হাঁটা। সারা রাত ধরে হাঁটতেন। দক্ষিণেশ্বরে আসার পরে ওই রাজমিস্ত্রিদের আটকে দিয়েছে প্রশাসন। নিয়মমাফিক পরীক্ষার পরে তাঁদের নিয়ে যাওয়া হয়েছে বেলঘরিয়ার রথতলার কোয়রান্টিন কেন্দ্রে।

Show More

Related Articles

Back to top button
%d bloggers like this: