Health

ত্রূটির কারণে রাপিড টেস্ট সম্ভব হয়নি এবার ভারতের প্রচেষ্টায় তা কি সফল হবে ?

এবার ভারতেই প্রথম তৈরী হলো রাপিড টেস্ট কিট

পল্লবী : কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী রবিবার ট্যুইট করে জানান যে, পুণের ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অফ ভাইরোলজি তৈরি করে ফেলেছে প্রথম নিজস্ব করোনা সংক্রমণ ডিটেকশন কিট। সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য বিষয়, এটির সাহায্যে একবারে ৯০ জনের এলাইজা স্যাম্পেল টেস্টিং করা যাবে, সময় লাগবে ২.‌৫ ঘণ্টা। স্বাভাবিক কারণে এই কিটের সাহায্যে অনেক দ্রুত বিপুল সংখ্যক মানুষের পরীক্ষা করা সম্ভব হবে বলে মনে করা হচ্ছে।

কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন, ‘‌এই ধরনের টেস্ট কিট প্রথমবারের জন্য ভারতে তৈরি করা হল, এর সাহায্যে একটা বড় অংশের নাগরিকদের পরীক্ষা করা যাবে, যাঁদের এই ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভবনা রয়েছে।’ এই গবেষণার ফলে আইসিএমআর সহজে দেশের ৭৫টি জেলায় আরও বেশি সংখ্যায় টেস্ট করা শুরু করতে পারবেন। ফলে দেখা যাবে, এই জেলাগুলিতে কত বেশি সংখ্যায় মানুষ করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে, যাঁদের সামান্যতম লক্ষণ দেখা গিয়েছে বা একেবারেই লক্ষণ দেখা যায়নি। দেশে গোষ্ঠী সংক্রমণ শুরু হয়েছে কি না, এই পরীক্ষা শুরু হলে সেটাও একেবারে স্পষ্ট হয়ে যাবে।

এলাইজা পদ্ধতিতে নিয়মিত HIV সংক্রমণ পরীক্ষা করা হয়, সেই একই পদ্ধতিতে দেখা হবে যে শরীরে করোনা ভাইরাসের অ্যান্টিবডি তৈরি হয়েছে কি না, যদি হয়ে থাকে তাহলে বোঝা যাবে যে সেই ব্যক্তিটি করোনা আক্রান্ত। যে সংস্থা এই টেস্টিং কিটটি তৈরি করবেন, তাঁদের হাতে একমাস সময় রয়েছে জিনিসটি তৈরি করে বাজারে আনার জন্য।

তবে প্রশ্ন উঠছে এর আগেও রাপিড কীটের ব্যবস্থা করা হয়েছিল কিন্তু সফল হয়নি। ত্রূটিপূর্ণ হওয়ায় টেস্ট থমকে যায়। কিন্তু এবার ভারতী কিট কি পারবে ? সফল হবে কি ? সফল হলেও তা কত শতাংশ। এর সাথে সাথে কবের মধ্যে এই কিট কার্যকরী হবে এবং এটি বায়সাপেক্ষও কিনা সেটাও প্রশ্ন কারণ যে হরে সংক্রমণ ছড়াচ্ছে তাতে স্বাস্থমন্ত্রকের হাতে সময় অনেক কম।

Show More

OpinionTimes

Bangla news online portal.

Related Articles

Back to top button
%d bloggers like this: