Culture

বাদামতলার পুজোয় এবার সত্যজিৎ রায়

"অপু -দূর্গা"-কে নিয়ে এবার পুজোয় মাতবে বাংলার মানুষ, সত্যজিৎ রায়ের এই অভূতপূর্ব সৃষ্টির ঝলক এবারে বাদামতলা আষাঢ় সংঘের পুজোয়

অঙ্কনা চক্রবর্তী : বাংলার ঐতিহ্য “পথের পাঁচালী “-কে পুনরায় জীবিত করে তোলার পদক্ষেপ নিয়েছে বাদামতলা আষাঢ় সংঘ। পথের পাঁচালী -এর সকল চরিত্রের স্মৃতিকে আবার আমাদের চোখের সামনে তুলে ধরতে বাদামতলার এই প্রচেষ্টায় রয়েছে বেশ নতুনত্ব এবং পার্থক্য। শুধুমাত্র বাদামতলা নয়, বাদামতলার সাথে ৬৬-পল্লী এবং নেপাল ভট্টাচার্য স্ট্রিট মিলিতভাবে কিংবদন্তি সত্যজিত রায়-এর এই বিশেষ সৃষ্টিকে তুলে ধরার যে প্রচেষ্টা করেছে তা বেশ প্রশংসনীয়। বাদামতলার “পথের পাঁচালী “-এর সাথে, ৬৬-পল্লীর “অপরাজিত” এবং নেপাল ভট্টাচার্য স্ট্রিটের “অপুর সংসার” দর্শকদের করে তুলবে নস্টালজিক।

মে মাসের শুরু থেকেই তাদের আয়োজনে নেমে পড়েছে বাদামতলা। এবছরের এরূপ পরিস্থিতিতেও সরকারি অনুদানে বেশ সন্তুষ্ট তারা। সরকারি অনুদান হিসাবে তারা এবছর পেয়েছে মোট ৫০,০০০ টাকা। বর্তমান করোনা আবহেও পুজো উপলক্ষে মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রীর দেওয়া অনুদান তাদের কাছে সন্তোষজনক।

করোনার দাপট সামলাতে সরকারি সকল নির্দেশাবলীও নিয়ম মেনে পালন করছে বাদামতলা। শুধুমাত্র পথচারী দর্শকদেরই মণ্ডপে প্রবেশের অনুমতি দেবে তারা। মণ্ডপের ভিতরে তাদের প্রবেশের জন্য রয়েছে পৃথক রাস্তা। প্রবেশ করতে মাস্ক, স্যানিটাইজার এবং থার্মাল স্ক্যানিং -এর ব্যবহার বাধ্যতামূলক। গাড়ি করে আসা দর্শনার্থীদের জন্য ব্যবস্থা রয়েছে ‘ড্রাইভিং দর্শন’-এর। অর্থাৎ, তিন দিক খোলা মণ্ডপে অবস্থিত মা কে দেখার জন্য গাড়ি থেকে নামার প্রয়োজনীয়তা নেই। গাড়িতে বসেই মায়ের দর্শন করতে পারবে তারা। মণ্ডপের সামনে ও ভিতরে ভিড়কে এড়িয়ে চলার জন্যই তাদের এই অভিনব ব্যবস্থা। সকল ব্যবস্থা মেনেই দূর্গা মায়ের আরাধনার আনন্দ সকলের সাথে ভাগ করে নিতে পুরোদমে কিন্তু প্রস্তুত বাদামতলা আষাঢ় সংঘ।

Show More

Related Articles

Leave a Reply

Back to top button
%d bloggers like this: