Big Story

আবারও নিজের জমি ফিরে পেতে সুশান্ত ঘোষের হাত ধরে লড়াইয়ে সিপিআইএম

কঙ্কাল কান্ড থেকে জামিন পেয়েই গড়বেতাতে পা দিলেন সুশান্ত ঘোষ

দেবশ্রী কয়াল : ২০০১১ সালে ৭টি খুনের দায়ে জেলে গেছিলেন পশ্চিম মেদিনীপুরের (West Mednipur) গড়বেতার জননেতা, প্রাক্তন সিপিআইএম (Cpim)মন্ত্রী সুশান্ত ঘোষ (Susanta Ghosh)। এরর টানা ৬ মাস তিনি জেলে থাকেন। তারপর হাইকোর্টে অনেকবার জামিনের জন্যে চেষ্টা করেন। তারপর শেষ পর্যন্ত ২০১২ সালে তিনি সুপ্রিম কোর্ট (Supreme Court)থেকে বেলে বাইরে বের হন। কঙ্কাল কান্ডে জেলায় ফেরার ক্ষেত্রে সুপ্রিম কোর্টের অনুমতি পাওয়ার পর সুশান্ত ঘোষকে দেখা যায় আলিমুদ্দিনে। আর তার পরেই আজ তিনি গড়বেতায় প্রবেশ করেন। যদিও তাতে দলের অনেকেই খুশি নন বলেই সমালোচনা উঠে আসছে। দেখা দিচ্ছে তার ফিরে আসা নিয়ে দ্বিধা। তবে দলের মধ্যে অনেকের প্রশ্ন, এদিন সুশান্ত ঘোষের গড়বেতাতে (Garbeta)আসার আগে তাদের কেন জানানো হয়নি। শুধুই তাই না দলের তাঁর ফেরা নিয়েও পার্টির অনেক সদস্যেরাই জানিয়েছেন প্রবল আপত্তি। একসময় সিপিএম এর অন্যতম নেতা ছিলেন এই সুশান্ত ঘোষ। কিন্তু এই মুহূর্তে তার দলে ফেরা নিয়ে আলিমুদ্দিনের অন্দরমহলে চলছে তর্ক-বিতর্ক।

পার্টির বেশ কিছু সদস্যদের আশঙ্কা, সুশান্ত ঘোষ গড়বেতায় ফিরলে ফের গড়বেতা আরও অশান্ত হয়ে উঠতে পারে। যে কারনে তাদের অভিযোগ, এই বিষয়ে আগে থেকেই জেলার নেতাদের সঙ্গে আলোচনা করে তবেই সিদ্ধান্ত নেওয়া উচিত ছিলো। একটা সময় সুশান্ত ঘোষের আঙ্গুল হেলনে গড়বেতার বাঘে গরুতে এক ঘাটে জল খেতো। তবে বেনচাপাড়া কঙ্কাল কান্ডের পর থেকে সেই দাপট ধুলোয় মিশে গিয়েছিলো। মানুষের মধ্যে সুশান্ত ঘোষের গ্রহনযোগ্যতা তলানীতে নেমে গিয়েছে বলে জেলার নেতাদের একাংশের দাবি। এখন আর মানুষ তাকে গ্রহণ করবেন না।

দলের একাংশ যখন মানুষের কাছে তাদের গ্রহণযোগ্যতা নিয়ে প্রশ্ন তুলছেন, দলে তার ফিরে আসাকে প্রশ্ন করছেন তখন অপরদিকে সিপিএমের একাংশ মনে করে, সুশান্ত ঘোষের তেজ এখনো কমেনি। ফলে সেই তেজেই ভর করে পশ্চিম মেদিনীপুর জেলায় সিপিএমের পায়ের তলার মাটি আবারও কিন্তু ফিরে পাওয়া সম্ভব। যে কারনে, ২০২১ সালের বিধানসভা ভোটকে টার্গেট করে দ্বিগুন উদ্দামের সাথে গড়বেতায় আবারও একবার ফিরছেন একসময়কার দাপুটে সিপিএম নেতা সুশান্ত ঘোষ। জানা যাচ্ছে সুশান্ত ঘোষের সঙ্গে থাকবেন সিপিএম নেতা সুজন চক্রবর্তীও।

এখন উত্তেজনায় ফুটছে পশ্চিম মেদিনীপুরের গড়বেতা। এদিন গড়বেতায় প্রবেশ করার আগে চন্দ্রকোনা থেকে ১১ কিলোমিটার দূরে থেকেই শুরু তাকে সম্বর্ধনা জানানো। এতদিন পর নিজের ঘরে সুশান্ত ফিরছে বলে কথা। তার উপর বর্ষণ হল ফুলের। এক মহিলা কমরেড তাকে দেখে বলে উঠলেন, “আমরা হারবনি। আমরা মরবনি।” কেউ বললেন ” কমরেড আর কিন্তু কোথাও যাবেন না।” আবার কেউ বা বললেন সুশান্ত ঘোষ মানে সিপিএম। আর সিপিএম মানে সুশান্ত ঘোষ।” ঠিক কবে বাম নেতার কপালে এমন সম্বর্ধনা জুটেছে, তা কিন্তু মনে করা বেশ কঠিন।

সামনেই ২১শের বিধানসভার ভোট। আর ভোটের আগে সুশান্ত ঘোষকে সামনে রেখে জেলার জমি নতুন করে ফিরে পেতে লড়াইয়ের ময়দানে নামতে চলেছে সিপিএম। উল্লেখ্য, এর আগে দলের শৃঙ্খলা ভঙ্গের অপরাধে সুশান্ত ঘোষকে সাসপেন্ড করেছিলো সিপিএম। এরপর সুর্যকান্ত মিশ্রের সঙ্গে বৈঠক করেন সুশান্ত ঘোষ। যদিও সেই সময় সুশান্ত ঘোষের দলে ফেরা নিয়ে দলের একাংশ থেকেই আপত্তি উঠেছিলো। কিন্ত সেই আপত্তিতে কর্নপাত না করে সিপিএম নেতৃত্ব সুশান্ত ঘোষের হাত ধরেই ফের গড়বেতার মাটিতে দলের পায়ের তলার জমি শক্ত করতে চাইছে। অর্থাৎ আরও একবার নিজের দাপট দেখতে ফিরে আসছেন সিপিএম নেতা সুশান্ত ঘোষ।

Show More

Related Articles

Leave a Reply

Back to top button
%d bloggers like this: