Women

আনন্দপুর শ্লীলতাহানির ঘটনায় ফাঁস হল সকল রহস্য, প্রকাশ হল চমকে দেওয়ার মত তথ্য

গ্রেফতার হয়েছে অভিযুক্ত, একাধিক অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে

দেবশ্রী কয়াল : আনন্দপুরের শ্লীলতাহানি কাণ্ডের ঘটনার পর থেকে একের পর এক তথ্য যেই প্রকাশ্যে আসছে তখনই চমকে দিচ্ছে সকলকে। তবে এবারে যে তথ্য উঠে এল তা সম্পূর্ণ ঘুরিয়ে দিচ্ছে ঘটনার সম্পূর্ণ বিষয়বস্তুকেই। জানা যাচ্ছে, অভিযুক্ত কিন্তু নির্যাতিতার প্রেমিক তথা হবু স্বামী। আর হবু স্বামীর সঙ্গে ঝগড়ার জেরেই এত বড় কাণ্ড রহস্য ফাঁস নির্যাতিতার।

এই ঘটনার সূত্রপাত গত শনিবার রাত ১২ টা নাগাদ ইএম বাইপাসের ধরে। সেই সময় রাস্তা দিয়ে একটি অভিজাত পরিবার গাড়ি করে বাড়ি ফিরছিলেন। আর তখনই তারা দেখতে পান অন্য এক গাড়িতে এক মহিলা চিত্‍কার করছেন। তাই তরুণীর আর্তনাদ শুনে গাড়ি থেকে বেরিয়ে এগিয়ে যান এক মহিলা। তখন ওই অভিযুক্ত গাড়ি থেকে ধাক্কা দিয়ে তরুণীকে ফেলে দেয়। সেই মুহূর্তে গাড়িটিকে ধরতে গেলে যে মহিলা তরুণীকে বাঁচাতে এসেছিল তার পায়ের উপর দিয়ে গাড়ি চালিয়ে দেয় পলাতক অভিযুক্ত।

এরপর গুরুতর জখম অবস্থায় হাসপাতালে চিকিত্‍সারত হন ওই মহিলা। কিন্তু ঘটনার এতদিন পর এখন জানা যাচ্ছে নির্যাতিতা অভিযুক্তের হবু স্ত্রী। সেদিন রাতে তাঁদের দুজনেরই প্রবল ঝগড়া শুরু হয়েছিল বাইপাসের ধারে গাড়ির ভিতরেই। এরপর ঝগড়া গড়ায় মারামারিতে।তখন তরুণী জোর করে গাড়ি থেকে নেমে যেতে গিয়ে পড়ে যান এবং ছিঁড়ে যায় তাঁর পোশাকও। ওই সময় প্রতিবাদ কারিনী মহিলা পৌঁছে যান ঘটনাস্থলে, সেই সময় অভিযুক্ত পালতে গিয়ে অনিচ্ছাকৃত ভাবে ধাক্কা লাগে প্রতিবাদকারীনীর সঙ্গে। তখন নীলাঞ্জনাকে আহত অবস্থায় দেখে ওই তরুণী বুঝতে পারেন, বিপদ বাড়তে পারে। ওপর দিকে অভিযুক্ত ব্যক্তি চম্পট দেওয়ায় কী করবেন বুঝতে না পেরে প্রথম থেকেই ক্রমশ পুলিশের কাছে মিথ্যে বলে যাচ্ছিলেন তরুণী, এমনটাই জানান খোদ তরুণী।

প্রথমে ওই নির্যাতিতা তরুণী অভিষেকের নামটাও সত্যি বলেননি পুলিশকে। উল্টে তিনিই অভিযুক্ত অভিষেককে আগাম খবর দিয়ে গা ঢাকা দিয়ে থাকতে বলেছিলেন। ইতিমধ্যেই অভিযুক্তকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এরই মাঝে জানা গিয়েছে ওই অভিযুক্তর বেশ কয়েক বছর আগে বিহারের এক তরুণীর সঙ্গে বিয়ে হয়। আর তার উপরেও শারীরিক অত্যাচার চলত বলে ওঠে অভিযোগ। বিয়ের কয়েক মাসেই মধ্যেই তাঁদের সম্পর্কের মধ্যে অবনতি ঘটে। বছর কয়েক আগেই ওই মহিলা বাপের বাড়ি ফিরে যান। এরই মাঝে পুলিশ জানতে পারে নির্যাতিতা ও অভিযুক্ত একসময় সহকর্মী ছিল। নির্যাতিতার আবাসনের নিরাপত্তারক্ষী জানিয়েছেন, অভিযুক্ত মাঝেমধ্যেই এই ফ্ল্যাটে আসতেন। লকডাউনের কারণেই নাকি তাঁদের বিবাহ পিছিয়ে গেছিল, আর এরই মাঝে শনিবার রাতে ঘটে যায় এই কান্ড।

Tags
Show More

Related Articles

Leave a Reply

Back to top button
Close
Close
%d bloggers like this: