West Bengal

লক্ষ্য ২১শের নির্বাচন, আজ দলীয় বৈঠকের ডাক তৃণমূল সুপ্রিমোর

আবারও বাংলায় ক্ষমতায় আসতে চায় তৃণমূল কংগ্রেস, তাই চাঙ্গা করছে সংগঠন

দেবশ্রী কয়াল : করোনা পরিস্থিতিতে রাজনীতি কিন্তু অব্যাহত। প্রতিটি ক্ষেত্রেই হচ্ছে রাজনৈতিক খেলা। আর এরই মধ্যে গত ২১শে জুলাই, ২১শের নির্বাচনের দামামা বাজিয়ে দিয়েছেন মমতা বন্দোপাধ্যায়। আগামী বিধানসভার নির্বাচন যে বেশ চমকদার ও কঠিন লড়াই হতে চলেছে তা বলা বাহুল্য। চলছে সবার মধ্যে লড়াই। এর মধ্যে ভার্চুয়াল সভাতে মমতা বন্দোপাধ্যায় বলেছেন, বাংলায় কেবল তাঁরাই রাজত্ব করবেন আর কাউকে প্রবেশ করতে দেবেন না। তাই নির্বাচনের জন্য কোমর বেঁধে প্রস্তুত হচ্ছে তৃণমূল কংগ্রেস। তাই বিধানসভা ভোটের রণকৌশল ঠিক করতে আজ বৃহস্পতিবার দলের নেতাদের নিয়ে গুরুত্বপূর্ণ বৈঠকে বসছেন মমতা বন্দোপাধ্যায়।

জানা যাচ্ছে, আজকের এই ভার্চুয়াল বৈঠকে সংগঠনকে নতুন করে ঢেলে সাজানোর ঘোষণা করতে পারেন তিনি। বেশ কয়েকজন জেলা সভাপতিকে সরিয়ে দিয়ে সংগঠনকে চাঙ্গা করতে কিছু নতুন মুখ আনতে পারেন মমতা বন্দোপাধ্যায়। তাই কিছুটা হলেও শঙ্কায় রয়েছেন তৃণমূলের অধিকাংশ নেতা। তাই সংগঠনে কারা থাকছে আর কারা থাকছে না সেই নিয়ে কিন্তু রয়ে যাচ্ছে সংশয়।

গত ২১শে জুলাই শহিদ দিবসের দিনেই দলীয় নেতাদের নিয়ে বৈঠকে বসার ঘোষণা করেছিলেন তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। করোনা ও আম্ফানের মতো জোড়া বিপর্যয় মোকাবিলার জন্য দলের জেলা নেতৃত্বের যতটা সক্রিয় হওয়া উচিত ছিল, ততটা সক্রিয়তা দেখা যায়নি বলে অভিযোগ উঠেছে। তাই সেই বিষয়ে তিনি বলেছেন, আমাদেরকেই কিন্তু মানুষের দুর্দিনে দাঁড়াতে হবে। হাত গুটিয়ে বসে থাকলে চলবে না। মানুষের জন্য কাজ করতে হবে।

তবে আজকের এই বৈঠকে যে তার প্রভাব পড়তে চলেছে তার আন্দাজ করে যাচ্ছে। সূত্রের খবর, কোচবিহার, দক্ষিণ দিনাজপুর, মালদহর মতো জেলায় সভাপতি বদলের সম্ভাবনা কিন্তু রয়েছে। পাশাপাশি জঙ্গলমহল তথা পুরুলিয়া, বাঁকুড়া, ঝাড়গ্রামেও লোকসভা ভোটে বিপর্যয় হয়েছে তৃণমূলের। ওই তিন জেলার সভাপতি বদলের সম্ভাবনা রয়েছে। বেশ কয়েকজন জেলা পর্যবেক্ষককেও সরিয়ে দেওয়া হতে পারে। পাশাপাশি রাজ্য সংগঠনেও বেশ কিছু পরিবর্তন আনার কথা ঘোষণা করতে পারেন তৃণমূল সুপ্রিমো। এই মুহূর্তে তৃণমূল কংগ্রেসের একটাই উদ্দেশ্য এবং একটাই লক্ষ্য ২১শের বিধানসভা নির্বাচনে জয়লাভ করে এবং পুনরায় ক্ষমতায় আসা। আর সেই দিকে নজর রেখেই সকল পদক্ষেপ নিচ্ছেন মমতা বন্দোপাধ্যায়।

Tags
Show More

Related Articles

Back to top button
Close
Close
%d bloggers like this: