Big Story

বিহারে বাজিমাত এনডিএ-এর, তবে উজ্জ্বল আরজেডি

কে হবে বিহারের মুখ্যমন্ত্রী, যে কোনো মুহূর্তেই বিজেপি পাল্টাতে পারে ছবি

দেবশ্রী কয়াল : গতকাল থেকেই উত্তেজনা ছিল চরমে, কে জিতবে বিহারে (Bihar) সেই নিয়েই উদ্বেগ সবার মনে। অতিমারী পরিস্থিতির কারনে ধীর গতিতে হয় ভোট গণনা, চলে মধ্যরাত অবধি। গতাকল সকাল সাড়ে ৮ টায় শুরু হওয়া ভোট গণনা চলে মধ্যরাত পর্যন্ত। ভোটের চূড়ান্ত ফলাফল জানা যায় ভোর রাত ৩টের সময়। ভোট চলাকালীন সকল সমীক্ষাকে ভুল প্রমান করে বিহারে বাজিমাত করে এনডিএ (National Democratic Alliance)। তারা এগিয়ে রয়েছে ১২৫ সিটে। ফলে ত্রিশঙ্কু নয়, ১২২ টি সিটের ম্যাজিক ফিগার ছুঁয়ে, সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে সরকার গড়তে চলেছে এনডিএ। এবার বিজেপি (Bjp) যদি জোট প্রতিশ্রুতি রাখে তাহলে কিন্তু জনসমর্থন না পেয়েও চতুর্থবারের জন্য মুখ্যমন্ত্রীত্ব পেতে চলেছেন নীতীশ কুমার (Nitish Kumar)। অর্থাৎ আবারও একবার বিহারে ক্ষমতার গদিতে বসবেন নীতিশ কুমার। অপরদিকে কিন্তু ভোটে হেরে জয়লাভ আরজেডির (Rashtriya Janata Dal)। লালু প্রসাদকে ছাড়াই তার পুত্র তেজস্বী যাদব (Tejaswi Yadav) নিজেদের দলকে বৃহত্তম দল হিসাবে তুলে ধরেছে। এখনও পর্যন্ত তাঁদের আসন সংখ্যা ৭৫, আর বিজেপির আসন সংখ্যা ৭৪।

ভোটের ফলাফল ঘোষণা হয়ে গেল রাজনীতিবিদদের মতে এখনও পাল্টাতে পারে দৃশ্য। এনডিএ সরকার গড়ার সুযোগ পেতে চলেছে বিজেপিরই বাহুবলে। ভোটের পরিসংখ্যান বলে দিচ্ছে তেজস্বী-তেজপ্রতাপরা ফাঁকা আওয়াজ করেননি, নীতীশ এবারে বিহারে সত্যিই জনসমর্থন হারিয়েছে। যদি জোটের হিসেব থেকে বেরিয়ে দেখা যায় তাহলে কিন্তু বিহারে তৃতীয় দল জেডিইউ। এই অবস্থায় প্রশ্ন উঠছে নীতীশকে কি মুখ্যমন্ত্রীত্ব দেবে বিজেপি ? ক্ষমতাহীন সম্রাট হতে কি নীতীশও আদৌ চাইবেন? বিহারে ফলাফল প্রকাশের পর হয়েছে নানা তর্ক-বিতর্ক, যা চলছে এখনও। কারন আরজেডির দাবি তাদের জোট অন্তত ১১৯ টি সিটে জিতেছে কিন্তু শংসাপত্র দেয়নি কমিশন। এই নিয়ে অবশ্য শাসকশিবির নীরব। উঠছে রাতের অন্ধকারে বাহুবল প্রদর্শনের অভিযোগ।

হিসাব মতো কিন্তু এবারে বিহারে ব্যাপক সাড়া ফেলতে সফল হয়েছে আরজেডি। তরুণ তেজস্বী মানুষের মনে ফেলেছে প্রভাব, কুড়িয়েছে জনসামর্থ্য। নিজেদের সিটে তো জিতেছেন সাথেই নীতিশ কুমারের জনসমর্থনে ফেলেছে প্রকোপ। জোট ছাড়া নীতীশের দল কিছুই না এবারে। আরজেডি জয়লাভ করেছে বহু অঞ্চলে। অপরদিকে বিজেপির ভোটপ্রাপ্তির মধ্যে নিঃশব্দ ভোটার, মহিলা, বয়স্কদের ছায়া দেখতে পারছেন রাজনীতির পর্যবেক্ষকরা।

তবে এবারে আরও একদল নজর কেড়েছে উল্লেখযোগ্য ভাবে। বিহারে অপ্রত্যাশিত ফলাফল করেছে সিপিআইএমের (CPIM) ৩ দল। মাত্র ২৯ টি সিটে লড়েছিল তাঁরা। এখনও চূড়ান্ত ফল না পাওয়া গেলেও অন্তত ১৮ টি আসনে এগিয়ে বামেরা। এর মধ্যে সিপিআইএমএল-এর আসন সংখ্যা ১২, সিপিএম, সিপিআই এগিয়ে তিনটি করে আসনে। ২০০৫ সালের পরে বিহারে খাতাই খুলতে পারেনি সিপিআই। সিপিআইএম ২০১০ সালে একটি সিট পেয়েছিল। কাজেই দেশজুড়ে বামেদের ভরাডুবির মধ্যে বিহারে তাদের এই জয় অত্যন্ত তাত্‍পর্যপূর্ণ বলেই মনে করা হচ্ছে। তবে আসলে ডুবিয়েছে এদিন কংগ্রেস। ৭০ টি আসনে ল়ড়ে মাত্র ২০টিতে তারা এগিয়ে। কংগ্রেস যদি আরও একটু ভালো ফল করতে পারত তাহলে আজ চিত্র হয়ত একদম অন্য দেখা দিতে। অনায়াসে বিহার দখল করতে পারত মহাগঠবন্ধন (Great Alliance)।

তবে এখনও প্রশ্ন ঝুলছে মুখ্যমন্ত্রীর পদ নিয়ে। এই ভোটের জয়ে আসল বাহুবলী কিন্তু বিজেপি। নীতিশ কোনো খেল দেখাতে পারেনি এবার। তাই বিজেপি এবার কী করবে সেটাই প্রশ্ন। নীতিশ এর মুখ্যমন্ত্রী পদে আসা এখন অনেকটাই নির্ভর করছে বিজেপির হাতে। তাই শেষ পর্যন্ত বিহারে মুখ্যমন্ত্রী কে হতে চলেছে তা কিন্তু জানতে আরও একটু অপেক্ষা করতে হবে।

Show More

Related Articles

Leave a Reply

Back to top button
%d bloggers like this: