Environment

বছর শুরুতে খেচর শূন্য আকাশ, কারণ অজানা

হিমাচল প্রদেশের বিখ্যাত পং দাম লেকে পাওয়া গিয়েছে পাখিগুলোর মৃতদেহ

পৃথা কাঞ্জিলাল : পাঁচমিশেলি বছর। কোথাও ভালো কোথাও আরো ভালো কোথায় একেবারেই খারাপ। এবারের নজর হিমাচল প্রদেশ। রহস্যজনকভাবে মৃত্যু শতাধিক পরিযায়ী পাখির। হিমাচল প্রদেশের পোং ড্যাম স্যাংচুয়ারিতে ( Pong Dam Sanctuary) ১৭০০-র বেশি পরিযায়ী পাখি মারা পড়েছে। এরমধ্যে ধামেটা ও নাগরোটা ফরেস্ট বিটের জাগমোলি ও গুগলাডা অঞ্চলে সব চেয়ে বেশি পাখির মৃত্যু হয়েছে।

হামিপুর ডিভিশনের ডেপুটি কনসারভেটর অফ ফরেস্ট রাহুল রোহানে জানান, ১৫টি বিভিন্ন জায়গা থেকে নমুনা সংগ্রহ করে উত্তরপ্রদেশের বেরিলিতে ইন্ডিয়ান রিসার্চ ইনস্টিটিউট (Bareily indian research institute) , জলন্ধরের Northern Regional Disease Diagnostic Laboratory (NRDDL) ও ভোপালের High-Security Animal Disease Laboratory (HSADL)-এ পাঠানো হয়েছে মৃত্যুর কারণ নির্ণয় করতে। তিনি আরও জানান, ” কিছুদিনের মধ্যেই নমুনার ভাইরাল ব্যাকটেরিয়াল ও প্যাথোজেনিক টেস্ট রিপোর্ট চলে আসবে। এভিয়ান ফ্লু -তে পাখিরা মারা পড়ছে কি না এখনই বলা যাচ্ছে না, তবে ফ্লু হয়েছে এটা নিশ্চিত।” এইসব পাখিদের মধ্যে বেশির ভাগই সাইবেরিয়া ও মঙ্গোলিয়া থেকে এসেছিল। এগুলি আসলে ‘বার হেডেড গিজ’। প্রত্যেক বছর শীতে ১.১৫ থেকে ১.২০ লক্ষ পরিযায়ী পাখি আসে এই পং দাম লেকে।

যদিও ইতিমধ্যেই ফ্লু নিয়ে বিশে নজরদারি চালানো হচ্ছে। গত বছর মার্চেও পরীক্ষা হয়েছিল। তখন কোনও পাখির মধ্যে অ্যাভিয়ান ফ্লু পাওয়া যায়নি। তবে তও কেন এই অবস্থা হলো তা নিয়ে চিন্তিত সকলে। পং দাম লেকের আশেপাশে কোনও পর্যটককে যেতে নিষেধ করা হয়েছে। এদিকে, রাজস্থান ও মধ্যপ্রদেশের বেশ কিছু জায়গায় কাকের মৃত্যু হয়েছে। তাদের শরীরে বার্ড ফ্লু-র ভাইরাস পাওয়া গিয়েছে। কোটাতে মৃত্যু হয়েছে ৪৭টি কাকের, ঝালওয়ারে মৃত্যু শতাধিক কাক, বারানে ৭২। এই মুহূর্তে গোটা বিশ্ব লড়ছে করোনা ভাইরাসের বিরুদ্ধে সেই কারণে এই মুহূর্তে যথেষ্ট গুরুত্ব দিয়ে দেখা হচ্ছে বিষয়টি।

Show More

Related Articles

Leave a Reply

Back to top button
%d bloggers like this: