Health

শীত পড়ার সাথে সাথে কি আবারো লোকডাউন হবে রাজ্যে

করোনা আক্রান্তের হাত থেকে রেহাই পেতে কি আবারো বদলাতে হবে সাধারণ জীবনযাপন

চৈতালি বর্মন : শহরে এসে পড়েছে শীত, শহরবাসী শীত-এর আমেজ অনুভব করতে শুরুও করে দিয়েছেন বেশ দু একদিন আগে থেকেই। এই সময়টা এই নতুন ঋতুকে সবাই নানারকম অনুষ্ঠানেয় মাধ্যমে আহবান জানান এবং উপভোগ করেন। বিভিন্ন জায়গায় ঘুরতে যাওয়া, পিকনিক, দুপুরের মিষ্টি, রোদে ময়দানের মাঠে ঘুরে বেড়ানো। কিন্তু এই বছরে ঠিক প্রতি বছরের মতো সবকিছু করা সম্ভব হচ্ছে না, কিন্তু তাই বলে যে মানুষজন সব কিছু থেকে পিছিয়ে তা কিন্তু নয়।

প্রত্যেকবারের মতো এই বছর কিন্তু সেইভাবে নতুন ঋতুকে অনুভব করতে পাচ্ছেন না কেউই। কোরোনার (Corona Vairus) কারণে নষ্ট হয়ে গেছে মানুষের জীবনের স্বাভাবিক ছন্দ,তাই বছর ঋতু পরিবর্তন হওয়া মানে করোনা আরো মাথানাড়া দিয়ে উঠবে বলে জানিয়েছেন চিকিসকরা। যেহেতু এই সময় সবারই খুব তাড়াতাড়ি ঠান্ডা লেগে যায়,তাই সবাই খুব করোনা আক্ৰান্ত হয়ে পড়া নিয়ে ভীষণ ভাবে চিন্তিত।

অন্যদিকে যে ভাবে করোনা আক্রন্তের সংখ্যা বেড়ে চলেছে তাতে আবারো লোকডাউন (Lockdown) হবে কি না তা নিয়ে আবারো সমালোচনা শুরু হয়েছে জনসাধারণের মধ্যে। কদিন আগে দিল্লি (Delhi) তে করোনা সংখ্যা বেড়ে যাওয়াতে দিল্লি সরকার লকডাউন ঘোষণা করেছিল। কিন্তু লোকডাউন শেষ হওয়ার পর মানুষ স্বাভাবিক জীবনে ফেরার পর আবারো কি লোকডাউন হতে পারে তা নিয়ে মানুষের মধ্যে এক বিভ্রান্তি সৃষ্টি হয়েছে।

রবিবার রাজ্য স্বাস্থ্যভবনে প্রকাশিত হলো বুলেটিন অনুযায়ী, একদিনে কলকাতায় (Kolkata) করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৮৭৯ জন। ফলে কোলকাতাতে প্রায় ১লক্ষ দাঁড়িয়েছে। এরপর উঠে এসেছে উত্তর ২৪ পরগনার নাম। যেখানে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৯৮হাজার এ এসে দাঁড়িয়েছে। কলকাতা ও উত্তর ২৪পরগনা মিলে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ১লক্ষ ৯৮ হাজার ১৮৪জন মানুষ। সেখানে রাজ্যে বাকি ২১ জেলায় আক্রান্তের সংখ্যা ২লক্ষ ৬২হাজার ১৭৭জন।

শুধু একদিনে কলকাতায় ৯০০জন করোনা আক্রান্ত হয়েছে। ২৪ ঘন্টায় ১৫ জন আক্রান্তের মৃত্যু হয়েছে। এর থেকেই বোঝা যাচ্ছে শীত আসার সাথে সাথেই করোনা বৃদ্ধি পেয়েছে এবং দিন বাড়ার সাথে সাথে এর প্রকোপ আরো বাড়বে বলে ধারণা চিকিৎসকদের এবং এর জেরে কি আবারো লোকডাউন হতে পারে ? তা নিয়ে জনগণের মধ্যে জল্পনা তুঙ্গে।

Show More

Related Articles

Leave a Reply

Back to top button
%d bloggers like this: