West Bengal

করোনা আবহে ভোট তো হবেই কিন্তু তার প্রচার কিভাবে সম্ভব ? মত প্রকাশ নির্বাচন কমিশনের

ভোটের প্রচার কিভাবে সম্ভব, আঞ্চলিক রাজনৈতিক দলগুলির কাছ থেকে পরামর্শ চাইল জাতীয় নির্বাচন কমিশন।

পল্লবী কুন্ডু : আসছে ভোট, কিন্তু করোনা হু হু করে বেড়েই চলেছে। কিন্তু ভোটের আগে প্রচার যে এক প্রকার বৃহৎ কাজ।প্রতিবছর ভোটের প্রচারে যেরূপ পরিকল্পনা দেখা যায় এ বছর যে তার কোনো কিছুই সম্ভব নয় সে কথা আর নতুন করে কিছু বলার অবকাশ রাখেন। তাহলে উপায় ? এই বিষয়কে সামনে রেখেই সমস্ত জাতীয় ও আঞ্চলিক রাজনৈতিক দলগুলির কাছ থেকে পরামর্শ চাইল জাতীয় নির্বাচন কমিশন।চলতি বছরে কিভাবে, কি উপায়কে অবলম্বন করে ভোটের প্রচার চলবে এবং তার সম্পূর্ণ পরিকল্পনা কি হবে এই বিষয় নিয়েই জানতে চাইল জাতীয় নির্বাচন কমিশন।

কমিশনের তরফে বলা হয়েছে যে, রাজনৈতিক দলগুলিকে চিঠি পাঠিয়ে প্রচার নিয়ে তাদের যা পরিকল্পনা তা যেন সুর্নির্দিষ্ট পরামর্শ আকারে পাঠানো হয়। আগামী ৩১ জুলাইয়ের মধ্যে এই পরামর্শ পাঠানোর কথা বলেছেন নির্বাচন কমিশন। নির্বাচন সদনের তরফে বলা হয়েছে, রাজনৈতিক দলগুলির সেই পরামর্শ পাওয়ার পর বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে আলোচনা করে কমিশন প্রচার সংক্রান্ত একটি নির্দিষ্ট গাইডলাইন তৈরি করবে।

প্রার্থীদের প্রচার, রাজনৈতিক দলগুলির মিটিং, মিছিল, সমাবেশ ইত্যাদি নিয়ে পরামর্শ চাওয়া হয়েছে।তবে বর্তমান যে সময় চলছে তাতে বেশ কিছু নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে।জাতীয় নির্বাচন কমিশনের তরফে বলা হয়, বয়স্করা ছাড়াও অন্তঃসত্ত্বা মহিলা, ডায়াবেটিক রোগী, হাইপারটেনশনের রোগীরা চাইলে পোস্টাল ব্যালটের মাধ্যমে ভোট দিতে পারবেন।৬৫ বছরের বেশি বয়সী সবার জন্য পোস্টাল ব্যালটের বন্দোবস্তের কথা আগেই জানিয়েছিল কমিশন। এই কথার পরিপ্রেক্ষিতে, তথ্য দিয়ে তৃণমূল বলেছে, দেশের ৬ শতাংশ মানুষের বয়স ৬৫ বছর বা তার বেশি।তারা আরো বলছে যে, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ছাড়াও দেশের অন্তত ১৩ জন মুখ্যমন্ত্রীর বয়স ৬৫ বছরের বেশি। তাঁরা নির্বাচনে প্রচার করবেন অথচ বুথে গিয়ে ভোট দিতে পারবেন না এটা হাস্যকর ! বাংলার শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেস কমিশনকে চিঠি দিয়ে এই গোটা বিষয়ের তীব্র আপত্তি জানিয়েছে।

Show More

Related Articles

Back to top button
%d bloggers like this: