Health

হাতে গোনা মাত্র ১৫ টা দিন, নিশ্চিহ্ন হয়ে গেলো একটা গোটা পরিবার

ঝাড়খণ্ডের ধানবাদের কাতরাসে বৃদ্ধা মায়ের মৃত্যুর পর একে একে করোনা কেড়ে নিলো আরো পাঁচটি প্রাণ।

পল্লবী কুন্ডু : ‘২০২০’ সালটা সকলের মনেই আগামী দিন গুলোতে সর্বদাই স্মরণে থাকবে। কেউ নিজের সন্তানকে, কেউবা মা কখনো বাবাকে হারাচ্ছে প্রতি দিন। একটা মর্মান্তিক অসহনীয় পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে, যেখান থেকে বেড়িয়ে আসা খুব একটা সহজ কাজ যে নয় তা এতদিনে টের পেয়েছে বিশ্বের তাবড় তাবড় গবেষকেরা। কখনো কখনো তো থৈ হারিয়ে ফেলছেন চিকিৎসক মহলও। এই মুহূর্তে দেশে আক্রান্তের সংখ্যা পার করেছে ১২ লক্ষেরও বেশি। আর মৃতের সংখ্যা পেরিয়েছে ২৮ হাজার। আর এসবের মধ্যেই আরো এক মর্মান্তিক ঘটনা আবারো জ্বল জ্বল করে উঠলো সকলের সামনে।

ঝাড়খণ্ডের ধানবাদের কাতরাসের ঘটনা। গত জুন মাসে একটি পারিবারিক অনুষ্ঠানে যোগ দিয়েছিলেন এই পরিবারের সকলে। এরপর থেকেই ধীরে ধীরে বৃদ্ধার শারীরিক অবস্থার অবনতি হতে থাকে। বয়স টাও খানিক কম যায় না, ৮৮ বছরের ওই বৃদ্ধাকে ভর্তি করা হয় হাসপাতালে। তবে উন্নতি কিছুই হয়না, দিন পনেরো আগে মৃত্যু হয় তাঁর। বৃদ্ধার মৃত্যুর পর সমস্ত নিয়ম পালন করে মায়ের সত্‍কার করেন পাঁচ ছেলে। এই পর্যন্ত পরিস্থিতি হয়তো স্বাভাবিকই ছিল। কিন্তু তার পরেই সামনে আসে আসল ঘটনা। সত্‍কার কার্য করার পরেই হাসপাতাল থেকে রিপোর্ট আসে তিনি কোভিড পজিটিভ ছিলেন।

নিজেদের অজান্তেই আক্রান্ত হয় বৃদ্ধার পাঁচ ছেলে। এবং ধীরে ধীরে মারণ ভাইরাসের কবলে চলে যান তারা। শারীরিক স্থিতিও হারাতে থাকেন।
তড়িঘড়ি তাঁদেরও হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ওই পাঁচ ছেলের মধ্যে একজনের আগে থেকেই ক্যান্সার ছিল । কিন্তু বাকিরা সুস্থই ছিলেন । কিন্তু শেষ পর্যন্ত শেষ রক্ষা আর সম্ভব হলোনা, রাঁচির রাজেন্দ্র ইনস্টিটিউট অফ মেডিক্যাল সায়েন্সে চিকি‍ত্‍সাধীন অবস্থায় এক ছেলের মৃত্যু হয়। মাত্র কয়েক দিনের মধ্যে বাকি দুই ছেলে মারা যান ধানবাদের করোনা হাসপাতালে। সোমবার রাতে রাজেন্দ্র ইনস্টিটিউট অফ মেডিক্যাল সায়েন্সে মারা গিয়েছেন বৃদ্ধার আরও এক ছেলে।

ঠিক যেন হারাধনের ১০ টি ছেলের গল্প তাই না ! হাতে গোনা মাত্র ১৫টা দিন, নিঃশেষ হয়ে গেলো একটা গোটা পরিবার।

Tags
Show More

Related Articles

Back to top button
Close
Close
%d bloggers like this: