Health

প্রবল শ্বাসকষ্ট নিয়ে আর হয়তো প্রাণ হারাতে হবেনা করোনা রোগীদের, কাজে আসবে ড্রাগ ইটোলিজুমাব

ড্রাগ ইটোলিজুমাব এটির পরীক্ষামূলক ফল পাওয়ার পরেই ভারতের ড্রাগস কন্ট্রোলার জেনারেল ভিজি সোমানি ইটোলিজুমাব ব্যবহারে সায় দিয়েছেন।

পল্লবী কুন্ডু : প্রতিটা মুহূর্তেই দেশের পরিস্থিতি সঙ্কট থেকে সঙ্কটতর হয়ে পড়ছে। বর্তমানে এমনি সময় এসে দাঁড়িয়েছে তাতে রোগী যেন অচ্ছুত সামগ্রীতে পরিণত হয়েছে। সন্তানকে নিয়ে তার মা বাবা হাসপাতালের দ্বারে দ্বারে ছেলের প্রাণ ভিক্ষা করে বেড়াচ্ছে কিন্তু করোনা পরিস্থিতি চলায় হাসপাতাল কতৃপক্ষ রোগীকে ভর্তি নিতে নারাজ শেষ পর্যন্ত চোখের সামনেই সন্তানকে মৃত্যুর কোলে ঢোলে পড়তে দেখতে হচ্ছে মা বাবা কে, এমন ঘটনাই ঘটছে অহরহ। সত্যিই বর্তমান সময় শুধুমাত্র অমানবিকতার পরিচয় তুলে ধরছে গোটা সমাজের সামনে। আর অন্যদিকে করোনা রোগীদের কথা নয় ছাড়াই যাক। শ্বাসকষ্ট হচ্ছে কিন্তু তবুও রোগীর মুখ থেকে অক্সিজেনের মাস্ক গুলি দেওয়া হলো, এমন ঘটনাও ঘটেছে বারংবার। তবে সব কিছুর মধ্যেই এমনও কিছু চিকিৎসক আছেন যাদের একমাত্র লক্ষ করোনার সাথে লড়াই করা। সে কথা চিন্তা করেই এবার চর্মরোগ সোরিয়াসিসের চিকিত্‍সায় ব্যবহৃত ড্রাগ ইটোলিজুমাব ব্যবহারের অনুমতি দিল ড্রাগস কন্ট্রোলার জেনারেল অফ ইন্ডিয়া

ড্রাগ কন্ট্রোলার জেনারেল অফ ইন্ডিয়া এই ড্রাগ নিয়ে জানিয়েছেন যে, কোনো রোগীর অবস্থা যদি খুব সংকটজনক হয়, সে যদি খুব শ্বাসকষ্ট সমস্যায় ভোগেন তবে এই ড্রাগ তার শরীরে দেওয়া যেতে পারে এবং এর জেরে তৎক্ষণাৎ কিছু কার্যকরী ফল পাওয়া যেতে পারে।ড্রাগ কন্ট্রোলার জেনারেল অফ ইন্ডিয়ার এক আধিকারিক পিটিআই-কে বলেছেন, “করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগীর ওপর এটির পরীক্ষামূলক ব্যবহারে সাফল্য মেলার পরই এই অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। সাইটোকিন রিলিজ সিন্ড্রোমের চিকিত্‍সার জন্য এই ওষুধের ব্যবহার করে সন্তোজনক ফল দিয়েছে বলে জানিয়েছে এইমসের পালমনোলোজিস্ট, ফার্মাকোলজিস্ট এবং চিকিত্‍সা বিশেষজ্ঞদের নিয়ে গঠিত বিশেষজ্ঞ কমিটি।”

এই ড্রাগ ইটোলিজুমাব এটির পরীক্ষামূলক ফল পাওয়ার পরেই ভারতের ড্রাগস কন্ট্রোলার জেনারেল ভিজি সোমানি ইটোলিজুমাব ব্যবহারে সায় দিয়েছেন। তিনি এটি জানাচ্ছেন যে, করোনা রোগীদের যখন তীব্র শ্বাসকষ্ট হবে সেই সময় এই ড্রাগ কার্যকরী হতে পারে। প্রতি মুহূর্তে নানান চেতার মধ্যে দিয়েই চিকিৎসা মহল অঘ্রসর হচ্ছে এবং অব্যশই কোনো চূড়ান্ত ফলের আসতেই। তাই বর্তমানের পর ভবিষ্যতের দিকেই নজর রাখছেন বিশেষজ্ঞরা।

Show More

Related Articles

Back to top button
%d bloggers like this: