Nation

ছিল না কোনো আয়, বাড়ছিল ঋণের বোঝা, শেষমেশ একই পরিবারের ৫ সদস্য বেছে নেয় আত্মহত্যার পথ

লকডাউনে চাকরির হাহাকার, জুটছে না ঠিক করে দু'বেলার খাবার

দেবশ্রী কয়াল : করোনার ভয়ে ত্রস্ত আজ সারা দেশ। প্রতিদিন বেড়েই চলেছে করোনা সংক্রমণের হার। কিন্তু অজান্তেই আরও বড় সঙ্কট রূপে আকার ধারণ করেছে লকডাউন। কারন দীর্ঘ লকডাউনের জেরে আর্থিকভাবে চরম ক্ষতিগ্রস্ত বহু মানুষ। এখন আবারও পুরানো ছন্দে ফিরতে চাইলেও চাকরি হারা বহু মানুষ। যাঁরা দিন আনি দিন খায়, তাঁদের ঠিক করে দুবেলা জুটছে না খাবার। আর এই লকডাউনে আর্থিক সমস্যার জেরে শেষমেশ আত্মঘাতী গুজরাতের একই পরিবারের ৫ সদস্য। মারা গেলেন স্বামী স্ত্রী ও তাঁদের তিন সন্তান। মৃতদের মধ্যে সবথেকে ছোটটির বয়স ৭ বছর। এই মর্মান্তিক ঘটনাটি ঘটেছে গুজরাটের দাহোদ এলাকায়।

সূত্রের খবর অনুযায়ী, মৃতরা বোহরা সম্প্রদায়ের অন্তর্গত। এই দীর্ঘ লকডাউনে কোনো কাজকর্ম না থাকায় দেনা করেই চলছিল তাদের সংসার। যত দিন যাচ্ছিল ততই বেড়ে যাচ্ছিল পাহাড় সম ঋণের বোঝা। অবশেষে সেই বোঝা সহ্য করতে না পেরেই সপরিবারে আত্মঘাতী হলেন বাড়ির কর্তা। একই বাড়ির সবার আত্মহত্যার খবরে স্তব্ধ হয়ে রয়েছে গোটা এলাকা। আর্থিক সঙ্কট ছাড়াও ঠিক কী কারণে গোটা পরিবার এমন চরম পরিণতির দিকে এগিয়ে গেল তা জানতেই তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।

করোনার সংক্রমণ রুখতে দেশজুড়ে দীর্ঘ লকডাউন চলেছে। এখন আনলকের বেশ কয়েকটা পর্যায় কেটে গেলেও লকডাউন পুরোপুরি উঠে যায়নি। কেননা সংক্রমণ বেড়েই চলেছে। একদিকে ভাইরাসের কারণে মৃত্যুর হাহাকার, আর একদিকে লকডাউনের জেরে চাকরি খোয়ানোর হাহাকার। দেশের সাধারণ মানুষ নিদারুণ বিপাকে রয়েছে। আর্থিক বিপাকে বহু মানুষ। আর তাই উপায় না পেয়েই অনেকে বেছে নিচ্ছে আত্মহত্যার মত নির্মম পথ।

Tags
Show More

Related Articles

Leave a Reply

Back to top button
Close
Close
%d bloggers like this: