Health

“জীবনের সাথে বিপদের পাশে ” করোনা যুদ্ধে বেহালা সাউথ সুবারবন ব্যবসায়ী সমিতি

"বাঁচতে হবে বাঁচাতে হবে " এই মূল মন্ত্র নিয়ে নেমে পড়েছেন বেহালা সাউথ সুবারবন ব্যবসায়ী সমিতির সকলে। ছড়িয়ে দিচ্ছেন এই বার্তা " বিপদে তুমি একা নও "

নিজস্ব সংবাদদাতা : রাজ্য সরকার ব্যবসায়ীদের বিনামূল্যে করোনা ভ্যাকসিনের প্রথম ডোজ় দেওয়ার কথা ঘোষণা করেছিল ৷ সেইমতো বেহালা সাউথ সুবারবন ব্যবসায়ী সমিতির উদ্যোগে ব্যবসায়ীদের জন্য ভ্যাকসিন দেওয়ার কর্মসূচি চালু হয়েছে গত ২৪ শে মে থেকে ৷ বেহালা সাউথ সুবারবন ব্যবসায়ী সমিতি প্রায় ১৮০০ সদস্য আছেন আর তাদের কর্মী বাহিনী নিয়ে প্রায় ৭০০০ জন । মূলত তাড়াতলা ডায়মন্ড হারবার রোড থেকে শখের বাজার পর্যন্ত এই ব্যবসায়ী সমিতির উদ্যোগ। কোন ঢাক-ডোল না বাজিয়েই বেহালা সাউথ সুবারবন ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি শক্তি মন্ডল ও সম্পাদক অরুন ঘোষ এর উপস্থিতিতে শুরু হয় করোনা প্রতিষেধক ব্যবস্থা গত ২৪ শে মে ২০২১ ।

যাঁরা ঠেলা টানেন, বাজারের ব্যবসায়ী , মুটে থেকে শুরু করে হকার, মানবিক কারণে কাউকে ফেরানো হচ্ছে না এই উদ্যোগ থেকে , যদিও সরকারের সাহায্যে হকারদের করোনা প্রতিষেধকের ব্যবস্থা আগেও করা হয়েছে। সকলেই বিনামূল্যে এই ভ্যাকসিন পাবেন। বেহালা সাউথ সুবারবন ব্যবসায়ী সমিতি পক্ষে থেকে জানান হয়, গত ২৪শে মে ৪৯ জন ,২৫শে মে ৬৫ জন, ২৬শে মে ৭৩ জন, ২৭ শে মে ৮৬ জনকে ও আজ ২৮ শে মে চলছে এই কর্মসূচি ।

এই বিপদের দিনে বুকচিতিয়ে যে মানুষ গুলো অক্লান্ত পরিশ্রমে এই উদ্যোগ, তারা হলেন অনিল নন্দী, মলয় মুখার্জী ,সুনীল নন্দী , গোপু রায় ও স্বাস্থ কর্মী গৌতম বসু সহ অনেকে। যারা প্রতিদিন নিয়ম করে বেহালা শরৎ সদনে সমিতির অফিসে বসছেন সকাল ১০ টা থেকে দুপুর ১টা আবার সন্ধ্যে বেলা ৭ টা থেকে ৯টা পর্যন্ত, কাগজ তৈরি করে দিচ্ছেন যারা এই টিকা নেবেন তাদের। শুধু ট্রেড লাইসেন্স এর প্রতি কপি নিয়ে এলেই হবে , তার পর যা করার ওনারাই করবেন। উদ্যোগতা দের পক্ষে অনিল বাবু , মলয় বাবুরা জানালেন যে বিপদের দিনে সহকর্মীদের পাশে দাঁড়ানোর অনুপ্রেরণা আমরা পেয়েছি মাননীয়া মমতা ব্যানার্জীর কাছ থেকে। তাই একটু কষ্ট হচ্ছে কিন্তু মানুষের জীবনের মূল্য যে অনেক বড় , যতটা পারি সুখে-দুঃখে থাকি।

বেহালা সাউথ সুবারবন ব্যবসায়ী সমিতির সহ সভাপতি শঙ্কর ঘোষের সাথে আলাপ চারিতায় উঠে এলো শেষের এক বছরে ব্যবসায়ীদের হাল হকিকত। গত বছরের লকডাউনের শুরুতেই যখন সবাই ঘরে তখন ওনারা রাস্তায় মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে সচেতনতার উদ্যোগে মাস্ক সহ কর্মহীন দিনে খাবারের ব্যবস্থা পর্যন্ত করেছেন প্রায় ৭০০ পরিবারের। এছাড়াও আক্রান্ত হয়েছেন প্রায় ৭০ জন ,১৪ প্রায় মারা গেছেন তাদের পাশেও ট্রেডার্স দাঁড়িয়েছে তাদের সাধ্যমত। আরো জানালেন বেহালা সাউথ সুবারবন ব্যবসায়ী সমিতি প্রতি নিয়ত খোঁজ খবর রাখছেন বয়স্ক মানুষজনের , যাতে বিপদের সময়ে তাদের পাশে দাঁড়ানো যায়।

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্দেশ এই কর্মসূচি নেওয়া হয়েছে ৷ প্রশাসনের এমন উদ্যোগে খুশি ব্যবসায়ী সহ কর্মী বাহিনীরা। ১৯৭৬-এ বাজারটি তৈরির সময়ে ‘সাউথ সাবারবান মিউনিসিপ্যালিটি’র অধীন ছিল বেহালা। ১৯৮৪-র জানুয়ারি থেকে বেহালা কলকাতা পুরসভার অন্তর্গত হলে বাজারটিও পুরসভার আওতায় আসে। আর বিগত তিন বছর বেশ মন্দার মুখে ব্যবসা বাণিজ্য , কারণ মাঝেরহাট ব্রিজ ভেঙে পড়ার সাথে সাথেই বিক্রিতে চূড়ান্ত মন্দ। তার ওপর আবার করোনার করাল গ্রাসে বেহাল ব্যবসায়ীরা।

Show More

Related Articles

Leave a Reply

Back to top button
%d bloggers like this: