West Bengal

ফের মৃতদেহ আগলে রাখার ঘটনা প্রকাশ্যে এলো, এবার ঘটনার কেন্দ্রবিন্দু সরশুনা সরকার হার্ট লেন

মৃত বাবার পচা গলা দেহ দুদিন ধরে আগলে রাখল মানসিক ভারসাম্যহীন মেয়ে।

পল্লবী কুন্ডু : ফের মৃতদেহ আগলে রাখার ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটলো। এবার সরশুনা সরকার হার্ট লেনে । মৃত বাবার পচা গলা দেহ দুদিন ধরে আগলে রাখল মানসিক ভারসাম্যহীন মেয়ে। বুধবার সকালে পচা গন্ধ পেয়ে প্রতিবেশীরা থানায় খবর দিলে সরশুনা থানার পুলিশ এসে মৃতদেহ উদ্ধার করে।স্থানীয়রা জানিয়েছেন, বাবা আরএন চট্টোপাধ্যায় কিছুটা স্বাভাবিক থাকলেও মেয়ে পুরোপুরি মানসিক ভারসাম্যহীন।

জানা যাচ্ছে, বাবা ও মেয়ে নীলাঞ্জনা চট্টোপাধ্যায় এক সঙ্গে থাকতেন। দু’বছর আগে পরিবারে মারা গিয়েছেন মা ও দাদা। পুলিশ প্রাথমিক ভাবেই অনুমান করছেন, বাবা রবীন্দ্রনাথ চট্টোপাধ্য়ায়ের (৯০ বছর) বার্ধক্যজনিত কারণে মারা যায় দুদিন আগেই। ময়নাতদন্তের জন্য দেহ পাঠানো হয়েছে ।মানসিক ভারসাম্যহীন মেয়েকে নিয়ে যাওয়া হয়েছে হসপিটালে। এই পুরো ঘটনার দায়িত্বে রয়েছে সরশুনা থানার পুলিশ।

তবে যে বিষয়টি উঠে আসছে তা হলো, চট্টোপাধ্যায় পরিবারে এটা কোনও নতুন ঘটনা নয়। এর আগে আবাসনের ৩ তলায় ছেলে দেবাশিস চট্টোপাধ্যায়ের মৃতদেহ আগলে রাখার অভিযোগ ওঠে বাবা মা ও বোনের বিরুদ্ধে। পরবর্তীকালে পচা গন্ধ বের হতে থাকলে এলাকার মানুষজন সরশুনা থানায় খবর দেন। পুলিশ এসে ওই দেহ উদ্ধার করে। সেই সময় পুলিশ দাবি করে,দেবাশিসবাবু দু-তিনদিন আগে মারা গিয়েছেন। একই অবস্থা হয় রবীন্দ্রনাথ চট্টোপাধ্যায়ের স্ত্রীর। আবারো সেই একই ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটলো।

আমরা যদি একটু পূর্বের ঘটনার স্মৃতিচারণ করি তবে দেখা যাবে কয়েক বছর আগে রবিনসন স্ট্রিটে দিদির মৃতদেহের সঙ্গে ৬ মাস বাস করেছিলেন পার্থ দে। পরবর্তীকালে প্রায় একই কাণ্ড দেখা যায় বেহালায়, মায়ের পেনশন তোলার জন্য ফ্রিজারে দেহ আগলে রেখেছিলেন ছেলে।আর এবার আবার সেই একই ধরণের ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটলো।

Tags
Show More

Related Articles

Leave a Reply

Back to top button
Close
Close
%d bloggers like this: